বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বিরাট কোহলি ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের দুটি অর্ধশতকে ১৬৫ রান তোলে বেঙ্গালুরু। তাড়া করতে নেমে রোহিত শর্মার ২৮ বলে ৪৩ রান দারুণ শুরু এনে দেয় মুম্বাইকে। কিন্তু এরপর যুজবেন্দ্র চাহালের দুর্দান্ত স্পিন মুম্বাইকে আটকে দেয়। ৪ ওভারে মাত্র ১১ রান দিয়ে ৩ উইকেট পেয়েছেন বিশ্বকাপে জায়গা না পাওয়া চাহাল। তবু মুম্বাইয়ের আশা ছিল। উইকেটে হার্দিক পান্ডিয়া, কাইরন পোলার্ডরা ছিলেন। ৪ ভারে ৬০ রান দরকার—এমন অবস্থায় বোলিংয়ে এসেছেন প্যাটেল। প্রথম বলে পান্ডিয়া ক্যাচ তুললেন, পোলার্ড হলেন বোল্ড, আর রাহুল চাহার হলেন এলবিডব্লু, হ্যাটট্রিক!

default-image

১৯তম ওভারে ফিরে অ্যাডাম মিলনেকেও বোল্ড করে দলকে ৫৪ রানের জয় এনে দিয়েছেন প্যাটেল। কিন্তু এখনো ঘোর কাটছে না তাঁর, ‘জীবনে এই প্রথম হ্যাটট্রিক করলাম আমি। এর আগে এমনকি স্কুল ক্রিকেটেও হ্যাটট্রিক ছিল না আমার। আইপিএলে এর আগে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা ছয়বার জাগিয়েছিলাম এবং এবারই প্রথমবারের মতো হ্যাটট্রিক হলো। এটার মর্ম বুঝতে আরও সময় লাগবে।’

default-image

জীবনের প্রথম হ্যাটট্রিক। ৩০ বছর বয়সী এই পেসারের জন্য প্রতিটি উইকেটই তাই স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তবে এর মাঝেও কাইরন পোলার্ডের উইকেট আলাদাভাবে মনে থাকবে তাঁর, ‘পোলার্ডের উইকেট বেশি তৃপ্তি দিয়েছে, কারণ সেটা একটা ধোঁকা ছিল। দলের মিটিংয়ে আলোচনা করেছিলাম, ওয়াইডে টানা বল করে ফাঁদ পাততে হবে এবং এরপর পায়ের কাছে একটা ইয়র্কার দিলে কাজ হয়। আমি দ্রুতগতির ইয়র্কার না দিয়ে স্লোয়ার দিয়েছি।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন