ইংল্যান্ড পেসার জফরা আর্চার
ইংল্যান্ড পেসার জফরা আর্চারফাইল ছবি: এএফপি

আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ভারত-ইংল্যান্ড সিরিজ। প্রথমেই চেন্নাই টেস্ট দিয়ে পর্দা উঠবে সিরিজের। সিরিজকে সামনে রেখে এর মধ্যেই কথার লড়াই শুরু হয়ে গিয়েছে দুই দলে, যে লড়াইয়ে যোগ দিয়েছেন ইংল্যান্ডের ফাস্ট বোলার জফরা আর্চারও।

তাঁর মতে, ভারত চাইলেও ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের স্পিনে ঘায়েল করতে পারবে না। ইংলিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলে লেখা এক কলামে নিজের এই মতামত জানিয়েছেন আর্চার।

আর্চার বহুদিন ধরেই ভারতের মাটিতে আইপিএল খেলছেন রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে। আইপিএলে ৩৫ ম্যাচ খেলে ৪৬ উইকেট নেওয়া এই ফাস্ট বোলার ভারতের পিচের চরিত্র বেশ ভালোই বোঝেন।

আবার এটাও বোঝেন, টি-টোয়েন্টি আর টেস্ট ক্রিকেটের মধ্যে তফাতটা আকাশ-পাতাল। টি-টোয়েন্টির অভিজ্ঞতা দিয়ে টেস্ট সিরিজ খেলতে চাইলে সেটা হবে না।

বিজ্ঞাপন

‘আমি এখানে প্রচুর আইপিএল খেলেছি। তবে আমার কাছে মনে হয় প্রথম শ্রেণির ম্যাচে খেলার অভিজ্ঞতার সামনে এগুলো কিছুই নয়। তাই লাল বলে এখানে খেলতে কেমন লাগে, সেটা দেখতে হবে,’ কলামে লিখেছেন আর্চার।

টি-টোয়েন্টির সঙ্গে টেস্টের মূল পার্থক্যটা কোথায়, সেটাও ফুটে উঠেছে আর্চারের কলামে, ‘আইপিএলে ব্যাটসম্যানরা আপনাকে মার‍তে চাইবে। কিন্তু টেস্টে তারা একের পর এক বল ঠেকিয়ে যাবে, রান তোলার তাড়ায় থাকবে না। আর উইকেট থেকেও যদি তেমন কোনো সাহায্য পাওয়া না যায়, তাহলে ব্যাটসম্যানদের আউট করা কষ্টকর হবে।’

default-image

কিছুদিন আগেই শ্রীলঙ্কার মাটিতে টেস্ট খেলে এসেছেন। দুই টেস্টের সিরিজে ইংল্যান্ড জিতে এসেছে, দুই স্পিনার জ্যাক লিচ আর ডম বেস খেলেছেন দুর্দান্ত। দুই স্পিনারের এই সফলতা দেখেই কি না, আর্চারের মনে সাহস বেড়ে গেছে।

তিনি আশা করছেন, ভারতের মাটিতেও ভারতের স্পিনারদের সঙ্গে বেশ ভালোই টেক্কা দেবেন লিচ আর বেস। ফলে, শেষমেশ টেস্ট জেতার জন্য হয়তো পেসারদের দিকে তাকাতে হতে পারে।

কারণ, আর্চার মনে করেন, জো রুট কিংবা অন্য ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের উপমহাদেশের মাটিতে স্পিন খেলার বেশ ভালোই সামর্থ্য আছে, ‘আমি আশা করব, পিচ যেন পেসারদের একটু সাহায্য করে। আশা করব, আমরাও যেন উইকেট পাই। কেননা, আমার কাছে মনে হয়, স্পিনের লড়াইয়ে দুই দলের মধ্যে তেমন পার্থক্য নেই। স্পিনের যুদ্ধে আমরাও ছেড়ে কথা বলব না। তখন স্বাভাবিকভাবেই ম্যাচ একপেশে হবে না। আমাদের স্কোয়াডেও অনেক ভালো স্পিনার আছে, তাই ভারত চাইলেও আমাদের স্পিনের লড়াইয়ে হারাতে পারবে না বলে আমার বিশ্বাস।’

default-image

ভারতে দীর্ঘ এক সিরিজ খেলতে এসেছে ইংল্যান্ড। চেন্নাইয়ে দুই টেস্ট খেলার পর আহমেদাবাদে খেলবে আরও দুই টেস্ট, যার মধ্যে একটি টেস্ট আবার দিবারাত্রির। এরপরই শুরু হবে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি যুদ্ধ।

প্রতিটি টি-টোয়েন্টিই হবে আহমেদাবাদের মাটিতে। এরপর তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে নামবে দুই দল। সিরিজ শেষ হবে একেবারে মার্চের শেষে।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন