প্যাট কামিন্সের মতো অনেক অস্ট্রেলিয়ানই খেলছেন আইপিএলে।
প্যাট কামিন্সের মতো অনেক অস্ট্রেলিয়ানই খেলছেন আইপিএলে।ছবি: আইপিএল

ভারতে করোনা পরিস্থিতি দিন দিন খারাপ হচ্ছে। প্রতিদিন মৃত্যুর মিছিলে যোগ দিচ্ছেন হাজারো মানুষ। অক্সিজেনের জন্য হাহাকার করছেন করোনায় সংক্রমিত রোগীরা। দেশটির স্বাস্থ্যব্যবস্থার এই করুণ চিত্র দেখে চমকে উঠেছেন অনেকে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধানও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ভারতের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে। গতকালও নতুন করে ৩ লাখ ১৯ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ভারতে। এরই মধ্যে ঢাকঢোল পিটিয়ে আইপিএল খেলা হচ্ছে বিভিন্ন শহরে।

ভারতের এ পরিস্থিতিতে আইপিএল কেন—এমন প্রশ্ন উঠে গেছে। অ্যাডাম গিলক্রিস্ট ঠারেঠোরে এ প্রশ্ন করেছিলেন। সে প্রশ্নে দুই ভাগে ভাগ হয়ে গেছেন ভারতের মানুষ। ওদিকে ব্রিটিশ ফুটবলার গ্যারি লিনেকার ও টিভি ব্যক্তিত্ব পিয়ার্স মরগান কাল টুইটারে আইপিএলে কেন হচ্ছে, এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। ভারতের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মনে ভয় ঢুকে যাওয়ায় এরই মধ্যে আইপিএল ছেড়ে গেছেন তিন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার।

মুম্বাই ইন্ডিয়ানসে খেলা নাথান কোল্টার-নাইল ভারতে এখন পর্যন্ত নিজেকে নিরাপদই মনে করছেন। তবে তাঁর স্বদেশি তিন ক্রিকেটার কেন আইপিএল ছেড়ে গেছেন, সেটাও বুঝতে পারছেন এই পেসার।

বিজ্ঞাপন
default-image

আইপিএল থেকে নাম কাটিয়ে নেওয়ার পথটা রোববার শুরু হয়েছে। সপ্তাহের শুরুতে কলকাতাকে হারানোর পর রাজস্থান রয়্যালসের ক্রিকেটাররা ড্রেসিংরুমে জানতে পেরেছেন, পেসার অ্যান্ড্রু টাই আর থাকছেন না তাঁদের সঙ্গে। ভারত ছাড়তে এতটাই নাকি উদ্‌গ্রীব হয়েছিলেন যে ভোররাত চারটার ফ্লাইটে উড়াল দেবেন।

অস্ট্রেলিয়ানদের এভাবে ভারত ছাড়ার ধারা চলেছে কালও। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু দুই ক্রিকেটার কেইন রিচার্ডসন ও অ্যাডাম জাম্পা টুর্নামেন্ট থেকে নাম কাটিয়ে নিয়েছেন। ওদিকে ভারতীয় অফ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনও রোববার রাতে করোনার লড়াইয়ে পরিবারকে সময় দিতে সরে গেছেন আইপিএল থেকে। রাজস্থানের সমস্যা বাড়িয়ে ভারত ছেড়েছেন ইংলিশ ব্যাটসম্যান লিয়াম লিভিংস্টোন।

বিদেশি ক্রিকেটাররা ভারত ছাড়ার পেছনে দুটি কারণ দেখিয়েছেন। কেউ বলছেন, এত দীর্ঘ সময় জৈব সুরক্ষাবলয়ে থাকার মানসিক ধকল আর নিতে পারছেন না ক্রিকেটাররা। ওদিকে টাই বলেছেন, ভারতে করোনা পরিস্থিতি যে আকার ধারণ করেছে, তাতে কদিন পর নিজ নিজ দেশে ঢুকতে পারবেন কি না সন্দেহ হচ্ছে। রিচার্ডসন ও জাম্পা সরাসরি কোনো কারণ বলেননি। তবে তাঁদের দেশ ছাড়ার কারণও যে করোনাসংক্রান্ত, এ নিয়ে সন্দেহ নেই কারও।

default-image

এ ব্যাপারে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া কোল্টার-নাইলের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। এমন পরিস্থিতিতে নাইলের মধ্যেও কোনো অস্বস্তি আছে কি না, সেটা জানতে চাওয়া হয়েছে। কোল্টার নাইল বলেছেন, ভারতের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে খুব বেশি চিন্তিত নন। তবে সতীর্থরা কেন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, সেটা বুঝতে পারছেন, ‘সবারই এই ব্যাপারে ব্যক্তিগত মত আছে এবং একেকজনের পরিস্থিতি একেক রকম। আমি টাই, জাম্পা ও রিচোকে বাড়ি ফিরতে দেখে অবাক হয়েছি। কিন্তু যখন ওদের সঙ্গে কথা বলবেন, তখন বুঝতে পারবেন কেন তারা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

কোল্টার-নাইলের ধারণা, এ পরিস্থিতে দেশে ফেরার চেয়ে আইপিএলের জৈব সুরক্ষাবলয়ে থাকাটাই বেশি নিরাপদ। এ কারণেই শুধু শুধু আইপিএল ছাড়তে চান না কোল্টার-নাইল, ‘আমি জাম্পার সঙ্গে একটু আগে কথা বলেছি এবং সে বাড়ি যাওয়ার জন্য বেশ ভালো যুক্তি দেখিয়েছে। কিন্তু আমার মনে হচ্ছে, এই মুহূর্তে বাড়ি ফেরার চেষ্টা করার চেয়ে এখানে সুরক্ষাবলয়ে থাকাই বেশি নিরাপদ। কারণ, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের সব ক্রিকেটার তো আমার মতোই একই নৌকায় আছে। আমার মনে হয়েছে, বাড়ি ফেরার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার মতো কিছু ঘটতে হবে। আমি তাই অপেক্ষা করছি এবং দেখছি কী হয়। খুব বেশি খারাপ কিছু হলে বাড়ি ফেরার আগে হয়তো দুবাইয়ে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে আমাদের, কিন্তু আমি নিশ্চিত, সেটাও সামলানো যাবে।’

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন