default-image


রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে দ্বিতীয় দিন শেষে কোন দল এগিয়ে? সব হিসাব-নিকাশ করে পাকিস্তানকেই একটু এগিয়ে রাখা যায়। প্রথম ইনিংসে ২৭২ রানে অলআউট হয়ে গেছে স্বাগতিক পাকিস্তান। দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার রান ৪ উইকেটে ১০৬। এখনো তারা পাকিস্তানের চেয়ে ১৬৬ রানে পিছিয়ে।

পাকিস্তান যে একটু এগিয়ে থাকল, সেটাতে অবদান বোলারদের। বিশেষ করে হাসান আলীর। পরপর দুই বলে ডিন এলগার ও রাসি ফন ডার ডুসেনকে তুলে নিয়ে তিনি শেষ করে দেন দক্ষিণ আফ্রিকার ভালো শুরুর আশা। পাকিস্তানকে এগিয়ে রাখতে হাসান আলীর সঙ্গে অবদান মিডিয়াম পেসার ফাহিম আশরাফ ও বাঁহাতি স্পিনার নোমান আলীরও। দ্রুত ২ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ফাফ ডু প্লেসিকে নিয়ে দলকে বিপদের হাত থেকে বাঁচাতে লড়ছিলেন এইডেন মার্করাম। শেষ বিকেলে দুজনকে তুলে নেন ফাহিম ও নোমান।

বিজ্ঞাপন
default-image

তৃতীয় উইকেটে মার্করাম ও ডু প্লেসির ২৯ রানের জুটি ভাঙেন ফাহিম। ১৭ রান করা ডু প্লেসিকে ফিরিয়েছেন এই মিডিয়াম পেসার। এরপর চতুর্থ উইকেটে টেম্বা বাভুমার সঙ্গে ২৬ রান যোগ করে ফিরে যান মার্করামও। নোমানের বলে আউট হওয়ার আগে ৬০ বলে ৫ চারে ৩২ রান করেছেন দক্ষিণ আফ্রিকান ওপেনার। এরপর কোনো বিপদ ঘটতে না দিয়ে দিনের বাকি সময়টা নির্বিঘ্নে পার করে দেন বাভুমা ও অধিনায়ক কুইন্টন ডি কক। পঞ্চম উইকেটে ২৫ রান তুলে অবিচ্ছিন্ন রয়েছেন তাঁরা।

করাচি টেস্ট হেরে যাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার এটা সিরিজ বাঁচানোর লড়াই। সেই লড়াই জয়ে প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে থাকতে এখন তাদের ভরসা ডি কক। আক্রমণই রক্ষণের সেরা উপায় মেনে নিয়ে শেষ বিকেলে ১১ বলে ৫ চারে ২৪ রান করে উইকেটে আছেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক। কাল সকালেও তিনি যদি এভাবে পাল্টা আক্রমণে পাকিস্তানের তরুণ বোলারদের ভড়কে দিতে পারেন, তাহলে ম্যাচের মোড় অন্যদিকে ঘুরে গেলেও যেতে পারে।

default-image

রাওয়ালপিন্ডিতে টেস্টের দ্বিতীয় দিনটি আসলে ছিল বোলারদের। হাসান-নোমানদের আগে পাকিস্তানকে অল্প রানে গুটিয়ে দিতে আজ ৪ উইকেট নিয়েছেন আনরিখ নর্কিয়া। গতকাল একটি উইকেট পাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার প্রথম ইনিংস শেষ করেছেন ৫ উইকেট নিয়ে।

আগের দিন ২২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলার পর পাকিস্তানের ইনিংস পথে রেখেছিলেন অধিনায়ক বাবর আজম ও ফাওয়াদ আলম। আগের দিনের ৩ উইকেটে ১৪৫ রান নিয়ে আজ ব্যাটিংয়ে নামেন তাঁরা। দুজনের প্রতিরোধ দিনের শুরুতেই বালুর বাঁধের মতো ভেঙে যায়। দিনের দ্বিতীয় বলে আউট হয়ে ফেরেন বাবর। আগের দিনের রানের সঙ্গে তখনো কোনো রান যোগ করতে পারেনি পাকিস্তান। ৪ রান যোগ হতেই ফিরে যান আগের দিনের অপরাজিত আরেক ব্যাটসম্যান ফাওয়াদও।

এরপর নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট পড়তে থাকে পাকিস্তানের। শেষ পর্যন্ত অলআউট হয়েছে তারা ২৭২ রানে। নর্কিয়া ৫ উইকেট নিতে খরচ করেছেন ৫৬ রান। ৯০ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়েছেন স্পিনার কেশব মহারাজ।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন