বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বুকে ব্যথার পর স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হলে আবিদের হৃদ্‌যন্ত্রে জটিলতা ধরা পড়ে। আবিদ এ মুহূর্তে একজন হৃদ্‌রোগ বিশেষজ্ঞের অধীনে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

মধ্য পাঞ্জাবের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার আবিদ। খাইবার পাখতুনখাওয়ার বিপক্ষে ম্যাচেও দ্বিতীয় ইনিংসে বুকে ব্যথা অনুভূত হওয়ার আগে ৬১ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি।

৩১ বছর বয়সে ২০১৯ সালে আবিদ সুযোগ পান পাকিস্তান টেস্ট দলে। অভিষেকেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে রাওয়ালপিন্ডিতে শতরান করেন তিনি। করাচিতে নিজের দ্বিতীয় টেস্ট ও তৃতীয় ইনিংসেই খেলেছেন ১৭৪ রানের এক ইনিংস। টেস্টের উদ্বোধনী ব্যাটিংয়ে পাকিস্তান দলের একটা বড় সমস্যারই সমাধান যেন এই আবিদ। ১৫টি টেস্ট খেলে ২৫ ইনিংসে ৪ শতক আর ৩ পঞ্চাশে ৪৯.৬০ গড়ে ১ হাজার ১৪১ রান সেটিরই বড় প্রমাণ। এ বছরেরই মে মাসে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারারেতে অপরাজিত ২১৫ রানের ইনিংস খেলে টেস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজের যোগ্যতার বড় প্রমাণ তিনি রেখেছেন।

default-image

পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটে ১৪ বছর কাটিয়ে দিয়েছেন আবিদ আলী। ২০০৭ সালে পাকিস্তানের ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট টুর্নামেন্ট কায়েদে আজম ট্রফিতে তাঁর অভিষেক। ২০১৭-১৮ মৌসুমে ইসলামাবাদের হয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের একটি ইনিংসে আদ্যন্ত ব্যাটিংয়ের রেকর্ড আছে তাঁর। সে ম্যাচে তিনি করেছিলেন অপরাজিত ২৩১। কিছুদিন পর আরও একটি ইনিংসে তাঁর ব্যাট থেকে আসে অপরাজিত ২৪৯ রানের একটি ইনিংস।

আবিদ এখন পর্যন্ত একমাত্র ক্রিকেটার, যিনি টেস্ট আর ওয়ানডে অভিষেকে সেঞ্চুরি করেছেন। অনেকটা নীরবে-নিভৃতেই তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন পাকিস্তানের ক্রিকেট ইতিহাসে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন