আইপিএল ছেড়েছেন রায়না
আইপিএল ছেড়েছেন রায়নাছবি: এএফপি

করোনাভাইরাস, ব্যক্তিগত কারণ, চাচার মৃত্যু, হোটেলের সুইট না পছন্দ হওয়া - কারণ যা-ই হোক না কেন, আরব আমিরাত থেকে তল্পিতল্পা গুটিয়ে ভারতে চলে এসেছেন চেন্নাই সুপার কিংসের সহ-অধিনায়ক সুরেশ রায়না। এবার আইপিএল খেলবেন না বলে জানিয়েছেন তিনি। রায়নার সিদ্ধান্তটা যে চেন্নাই-সংশ্লিষ্ট কারওরই তেমন পছন্দ হয়নি, তার ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছিল। এখন জানা গেল, খেলোয়াড়দের নিজস্ব হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে এই ব্যাটসম্যানকে।

বিজ্ঞাপন

টুকটাক কথা বলার জন্য বা চ্যাটিং করার জন্য অনলাইনে 'হোয়াটসঅ্যাপ' এর জনপ্রিয়তা অনেক। এসএমএস যুগ থেকে বেরিয়ে এসে অনেকেই এখন হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন। শুধুমাত্র দুজনের মধ্যেই নয়, চাইলে হোয়াটসঅ্যাপে গ্রুপ করেও একাধিক মানুষ নিজেদের মধ্যে কথাবার্তা চালিয়ে যেতে পারেন। যার থাকতে ইচ্ছে হবে না, সে চাইলে গ্রুপ থেকে লিভও নিতে পারবে, অর্থাৎ চলে যেতে পারবে। বিভিন্ন দলের খেলোয়াড়দের মধ্যেও এমন হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ থাকে। খেলোয়াড়েরা নিজেদের মধ্যে কথা বলেন সে গ্রুপে, কৌশল নির্ধারণ করেন। এমন এক হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ আছে চেন্নাই সুপার কিংসের খেলোয়াড়দের মধ্যেও। ধোনি, রায়না, ডোয়াইন ব্রাভোরা নিজেরা নিজেরা সে গ্রুপে কথা বলেন, ভাব বিনিময় করেন। সে গ্রুপেই এখন রায়না নেই আর, এমনটাই শোনা গেছে।

default-image

ইনসাইডস্পোর্টস জানিয়েছে, হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ থেকে বের হওয়া, ও দলের মূল পৃষ্ঠপোষক এন শ্রীনিবাসনের বিরক্তি, সবকিছু মিলিয়ে রায়না নিজের ভুল বুঝতে পেরেছেন। চেন্নাই কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে নিজের আচরণের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন রায়না। নির্ভরযোগ্য এক সূত্রের বরাত দিয়ে ইনসাইডস্পোর্টস লিখেছে, দলকে ছেড়ে চলে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে রায়নাকে। তা দেখে চেন্নাইয়ের প্রধান নির্বাহী, অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি, কোচ স্টিফেন ফ্লেমিংয়ের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন রায়না। এদিকে শ্রীনিবাসন আগেই বলেছিলেন, রায়নাকে দলে ফেরত নেওয়ার সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র ধোনির।

বিজ্ঞাপন

রায়নাকে ধোনি ফেরত নেবেন কি না, কেউ জানে না। তবে এখনো রায়নার বিকল্প হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে কাউকে দলে নেয়নি ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। চেন্নাইয়ের প্রধান নির্বাহী কাসি বিশ্বনাথন জানিয়েছিলেন, 'আমরা দলে এখনই কোনো বিকল্প আনছি না। দলে যারা আছে তাদের নিয়েই দলের কোচ ও অধিনায়ক সন্তুষ্ট।'

এর আগে রায়নার ঘনিষ্ঠ এক সূত্র বলেছিলেন, ‘রায়নার এই চলে যাওয়ার বিষয়টি চেন্নাই সুপার কিংসের কর্তা ব্যক্তিরা ভালোভাবে নেয়নি। আগামী মৌসুমে তাকে হয়তো নিলামে ফিরে আসতে হবে এবং সেখান থেকেই নতুন দল পেতে হবে।’ এর আগে রায়নার সিদ্ধান্তে বিরক্ত হওয়ার কথা বলেছিলেন বিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি শ্রীনিবাসন, ‘ক্রিকেটাররা এমনিতেই একটু অভিমানী স্বভাবের হয়। চেন্নাই সুপার কিংস একটা পরিবারের মতো আর এখানে সিনিয়র খেলোয়াড়েরা খুবই সাহায্য প্রবণ।’

আউটলুককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শ্রীনিবাসন বলেছিলেন, ‘মৌসুম এখনো শুরু হয়নি। আমার মনে হয় রায়না অবশ্যই বুঝবে ও কি মিস করছে। ও কত টাকা হারাতে চলেছে।’

দলের পরিস্থিতির কারণেও হয়তো রায়না দেশে ফিরে গেছেন। টুর্নামেন্টের মাঝপথে আবার রায়নার ফিরে আসার সুযোগ নেই। চেন্নাই তাই রায়নার বদলি খোঁজার চেষ্টা করছে। তবে কাজটা সহজ হবে না। আইপিএলের প্রতি আসরেই রায়না ছিলেন চেন্নাইয়ের ‘রান ব্যাংক’। প্রতি মৌসুমেই চেন্নাইকে ৪০০-এর আশপাশে রান দিয়েছেন এই বাঁহাতি।

দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্যকে হারিয়ে তাই যারপরনাই বিরক্ত মালিক এন শ্রীনিবাসন। সাবেক বিসিসিআই সভাপতির কাছে মনে হয়েছে, এত টাকা দূরে ঠেলে দিয়ে রায়না শান্তিতে থাকতে পারবেন না। নিজের ভুল অবশ্যই বুঝবেন। আউটলুককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শ্রীনিবাসন বলেছেন, ‘মৌসুম এখনো শুরু হয়নি। আমার মনে হয় রায়না অবশ্যই বুঝবে ও কি মিস করছে। ও কত টাকা হারাতে চলেছে।’

বছরের পর বছর সাফল্য পেয়ে রায়নার মাথা ঘুরে গিয়েছে বলে মনে করেন শ্রীনিবাসন, ‘আমার মনে হয় সুখী না থাকলে, খেলতে ইচ্ছা না হলে ফিরে যাওয়াই ভালো। সাফল্য আমার মনে হয় আপনি যদি সুখী না থাকেন ও আপনার যদি খেলতে ইচ্ছে না হয়, তাহলে ফিরে যান। আমি খেলার জন্য জোর-জবরদস্তি করব না। অনেক সময় সাফল্যে মাথা ঘুরে যায়।’

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন