বিজ্ঞাপন
ধর্মীয় বিষয়ে জ্ঞানী সেই ব্যক্তি আফ্রিদিকে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনের কথা মনে করিয়ে আফ্রিদিকে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে ফিরিয়ে এনেছিলেন।

পাকিস্তান ক্রিকেটে রাজনীতির প্যাঁচ নিয়ে শোরগোল তো নতুন কোনো খবর নয়। তবে গত কয়েক মাসে এ নিয়ে কথা হচ্ছে অনেক। শুরুটা মোহাম্মদ আমিরের মাত্র ২৯ বছর বয়সে সব ধরনের ক্রিকেট থেকেই সরে যাওয়ার পর থেকে। গত ডিসেম্বরে এভাবে হঠাৎ অবসর নেওয়ার পেছনে পাকিস্তানের দলকে ঘিরে রাজনীতিকে কারণ হিসেবে দেখিয়েছিলেন আমির। দলের নির্বাচনপদ্ধতিকে অন্যায্য বলেছিলেন বাঁহাতি ফাস্ট বোলার। এরপর শোয়েব মালিক কদিন আগে বললেন, পাকিস্তানের দল গঠনের ক্ষেত্রে স্বজনপ্রীতি হয় অনেক। এবার পাকিস্তানের ক্রিকেটে রাজনীতি নিয়ে কথা বললেন দেশটির ক্রিকেটের বর্ণিল চরিত্রগুলোর একটি আফ্রিদি।

‘আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম আর ক্রিকেটই খেলব না। শোয়েব মালিক তখন দলের অধিনায়ক ছিল, দলের ভেতরে তখন অনেক রাজনীতি চলছিল’, অবসরের ভাবনার কারণ ব্যাখ্যা করে পাকিস্তানি টিভি চ্যানেল সামা টিভিতে বলেছেন আফ্রিদি। পরে কীভাবে সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছেন, সে ব্যাখ্যায় জানালেন এক বুজুর্গ বা জ্ঞানী ব্যক্তির কথা। ধর্মীয় বিষয়ে জ্ঞানী সেই ব্যক্তি আফ্রিদিকে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনের কথা মনে করিয়ে আফ্রিদিকে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে ফিরিয়ে এনেছিলেন।
‘তিনি আমাকে বলেছিলেন, আপনি আপনার নিজের পারফরম্যান্স আর বৈশ্বিক ব্যাপার নিয়ে কতই না ভাবছেন! শুধু আপনার জীবনের জটিলতাগুলোকে মহানবী মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনের কঠিন দিকগুলোর সঙ্গে তুলনা করে দেখুন, আপনি বুঝতে পারবেন আপনার ঝামেলাগুলো কোনো ঝামেলাই নয়’, জানিয়েছেন আফ্রিদি।

default-image

মজার ব্যাপার হচ্ছে, আফ্রিদি যে সময়ে অবসরের ভাবনা এসেছে বলে জানাচ্ছেন, সেটি পাকিস্তানের ক্রিকেটে বেশ রমরমা একটা সময়ই ছিল। সে বছর ইংল্যান্ডে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতেছিল পাকিস্তান, টুর্নামেন্টজুড়ে দারুণ খেলা আফ্রিদি সেমিফাইনাল ও ফাইনালে হয়েছিলেন ম্যাচসেরা। সেই একই বছরে কিনা দলের রাজনীতির কারণে খেলা ছেড়ে দেওয়ার ভাবনা এসেছিল তাঁর!

তবে ওই বুজুর্গ ব্যক্তির পরামর্শে সিদ্ধান্ত বদলানোতে আফ্রিদির লাভই হয়েছে। এরপরও অনেকটা সময় জাতীয় দলের অধিনায়কত্ব করেছেন। ২০১০ সালের জুলাইয়ে টেস্ট থেকে অবসর নিয়েছিলেন বটে, তবে সাদা বলের ক্রিকেটে অনেক দিন দলের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে ছিলেন। তাঁর অধিনায়কত্বেই ভারতের মাটিতে ২০১১ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলে পাকিস্তান। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে ২০১৫ বিশ্বকাপ খেলে ওয়ানডে থেকে অবসর নেন আফ্রিদি, টি-টোয়েন্টি খেলেন আরও দু-তিন বছর। ২০১৮ সালই ছিল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তাঁর শেষ!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন