বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের সফরটি আগে থেকেই আছে আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রামে (এফটিপিতে)। ২০২২ সালের ১৮ মার্চ থেকে ১৯ এপ্রিলের মাঝে হওয়ার কথা টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ।

default-image

সিএসএর ডিরেক্টর অব ক্রিকেট গ্রায়েম স্মিথ বলেছেন, ‘সম্ভবত আমাদের সবচেয়ে ঠাসা ঘরোয়া গ্রীষ্মই হতে যাচ্ছে এটি। এই কঠিন সময়ে এত ভালো ক্রিকেট হবে আমাদের মাটিতে, এটা দারুণ ব্যাপার। এর মাঝে আছে তিন সংস্করণে ভারতীয় দলের পূর্ণাঙ্গ সফর, বাংলাদেশের বিপক্ষে লাল ও সাদা বলের সিরিজ, সঙ্গে নেদারল্যান্ডস জাতীয় দলের প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকা সফরও।’

সর্বশেষ ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে গিয়েছিল বাংলাদেশ দল। সেবার দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডের সঙ্গে বাংলাদেশ খেলেছিল দুটি টি-টোয়েন্টিও। এখন পর্যন্ত দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে মোট পাঁচবার দক্ষিণ আফ্রিকা গেলেও সেখানে বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা কখনোই সুখকর হয়নি। পাঁচ দফায় বাংলাদেশ খেলেছে ২০টি ম্যাচ। ১৯টিতেই জিতেছে দক্ষিণ আফ্রিকা, পরিত্যক্ত হয়েছে ১টি।

default-image

সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বেশ ঘটনাবহুলই ছিল বাংলাদেশের জন্য। ব্যক্তিগত কারণে টেস্ট সিরিজ থেকে ছুটি নিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। সব ম্যাচই হেরেছিল বাংলাদেশ। সে সফর শেষেই দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন তখনকার প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পর টেস্ট অধিনায়কত্বেও এসেছিল পরিবর্তন। মুশফিকুর রহিমের জায়গায় দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল সাকিব আল হাসানকে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন