default-image
>মাশরাফি বিন মুর্তজা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২ লাখ ৭১ হাজার ২১০ ভোট পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক এখন সাংসদ, তাঁর এই বিজয় কীভাবে দেখছেন তাঁর সতীর্থেরা?

ক্রিকেটাররা এখনো ছুটির মেজাজে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ শেষে খেলোয়াড়েরা সবাই যাঁর যাঁর বাড়িতে, বিপিএল সামনে রেখে সবাই ঢাকায় ফিরতে শুরু করবেন কাল থেকে। এবার সবার ছুটি কেটেছে নির্বাচনী-হাওয়া গায়ে মেখে। এলাকা ভিন্ন হলেও খেলোয়াড়দের সবার বিশেষ মনযোগ ছিল নড়াইল-২ আসনটির দিকে। এই আসনে যে নির্বাচন করেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। বিপুল ভোটে একাদশ সংসদ নির্বাচনে সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক। মাশরাফির এই বিজয়ে ভীষণ খুশি তাঁর সতীর্থেরা।

মেহেদী হাসান মিরাজের বাড়ি নড়াইলের পাশের জেলায়, খুলনায়। ছুটিতে বাড়ি যাওয়ার পথে তিনি অংশ নিয়েছেন মাশরাফির নির্বাচনী প্রচারণায়। যদিও অধিনায়ক নিষেধ করেছিলেন তাঁর সতীর্থদের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে। কিন্তু মিরাজ তা শুনলে তো! ২১ বছর বয়সী অলরাউন্ডার যুক্তি দেখান, অধিনায়কের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতেই তিনি নড়াইলে ছুটে গেছেন। এখন তিনি ভীষণ খুশি মাশরাফি নির্বাচনে বড় ব্যবধানে জিতে যাওয়ায়, ‘অনেক ভালো লাগছে। মাশরাফি ভাই দেশের হয়ে কাজ করবে আশা করি। এটা শুধু মাশরাফি ভাইয়েরই নয়, বলব নড়াইলবাসীর জন্যও অনেক বড় প্রাপ্তি। বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দিয়ে তিনি অনেক দূর এগিয়ে নিয়েছেন। এবার আশা করি নড়াইলকেও এগিয়ে নেবেন। তিনি নড়াইল নিয়ে অনেক ভাবেন, আমাদের সঙ্গে প্রায়ই নিজের এলাকার নানা সমস্যা-সম্ভাবনার কথা শেয়ার করেন। এবার তাঁর সুযোগ এসেছে নড়াইলের উন্নয়নে কাজ করার। আশা করি নড়াইল বদলে যাবে তাঁর হাত ধরে।’

মাশরাফি জেতার পরই ফেসবুকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তাসকিন আহমেদ। অধিনায়ক সাংসদ নির্বাচিত হওয়ায় ২৩ বছর বয়সী এই পেসারের মনেও কাজ করছে অন্যরকম ভালো লাগা, ‘প্রথমবারের মতো এবার ভোট দিয়েছি। অন্যরকম অনুভূতি, রোমাঞ্চ কাজ করেছে। মাশরাফি ভাই নির্বাচিত হয়েছেন এতে ভালো লাগাটা বহুগুণে বেড়ে গেছে। জনগণ সব সময়ই ভালো মানুষকে তাদের প্রতিনিধি হিসেবে চেয়ে থাকে। যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারাও ভালো। তবে এঁদের মধ্যে ভীষণ ভালো যে কজন মানুষ এবার যুক্ত হয়েছেন, মাশরাফি ভাই তাদের একজন। আশা করি তাঁদের হাত ধরে দেশ আরও ভালোর দিকে এগিয়ে যাবে।’

সাতক্ষীরায় ছুটি কাটাতে যাওয়া বাঁহাতি ওপেনার সৌম্য সরকার বললেন, মাশরাফি সাংসদ নির্বাচিত যাওয়ায় সামনে তাঁদের অন্যরকম অভিজ্ঞতা হতে যাচ্ছে, ‘ক্যাপ্টেনের অধীনে খেলেছি এত দিন। এখন এমপি ক্যাপ্টেনের অধীনে খেলব, নতুন এক অভিজ্ঞতাই হবে। বাংলাদেশের প্রথম অধিনায়ক মাঠে নামবেন, যিনি একই সঙ্গে সাংসদ। তার জন্য শুভকামনা। মাঠে তিনি সফল। আশা করি রাজনীতিতেও তিনি সফল হবেন। তিনি যে মন-মানসিকতার মানুষ, নড়াইলের অনেক উন্নয়ন হবে আশা করি। নড়াইল নিয়ে তাঁর ভাবনায় যে পরিকল্পনা আছে, এখন রাজনৈতিক ক্ষমতা কাজে লাগিয়ে সেগুলো বাস্তবায়ন করতে পারবেন।’

মাশরাফি বিন মুর্তজা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২ লাখ ৭১ হাজার ২১০ ভোট পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান পেয়েছেন ৭ হাজার ৮৮৩ ভোট। এ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ১৭ হাজার ৮৪৪। ইমরুল কায়েস মনে করেন, মাশরাফির প্রতি মানুষের যে ভীষণ আস্থা, সেটির প্রমাণ এই ফল, ‘মাশরাফি ভাইয়ের প্রতি আমাদের সব সময়ই ভালোবাসা আছে। মানুষও যে তাঁকে ভীষণ ভালোবাসেন সেটির একটা প্রমাণ তো এ নির্বাচনে হলো। বাংলাদেশ দলের একজন খেলোয়াড় এমপি হয়েছে, সতীর্থ হিসেবে আমাদের জন্য অনেক আনন্দের বিষয়। আশা করি ভবিষ্যতে আমাদের পথচলা সহজ করে দিতে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবেন। তাঁর নেতৃত্ব থেকে অনেক কিছু শেখার আছে।’

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন