>
default-image
বাংলাদেশের তিন মাসে তিনবার পাকিস্তানে যাওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সাবেক পাকিস্তানি তারকা শোয়েব আখতার অবশ্য বলছেন, বাংলাদেশের এভাবে পাকিস্তান সফরের পেছনে বাইরের কারও হাত আছে।

অনেক নাটকের পর বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজ আলোর মুখ দেখছে। বহুদিন শুধু টি-টোয়েন্টি খেলে ফেরার কথা বলা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড শুধু যে টেস্টই খেলবে তা–ই না, মাঝে একটা ওয়ানডে খেলে টেস্টের প্রস্তুতিও নেবে। তবে এ কাজগুলো তিনটি ভিন্ন সফরে করবে বাংলাদেশ। তিন মাসে বাংলাদেশের এভাবে তিনবার পাকিস্তানে যাওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। শোয়েব আখতার অবশ্য বলছেন, বাংলাদেশের এভাবে পাকিস্তান সফরের পেছনে বাইরের কারও হাত আছে।

সাবেক ফাস্ট বোলার ইদানীং মতামত জানাতে ইউটিউবকেই বেছে নিয়েছেন। গতকাল বুধবার নিজের ইউটিউব চ্যানেলেই বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর নিয়ে মতামত জানিয়েছেন ক্রিকেটের সবচেয়ে দ্রুতগতির বোলার। সেখানেই তাঁর দাবি, বাংলাদেশের কোনো দোষ নেই। ‘নাম বলা যাবে না’—এমন কিছু শক্তির চাপেই নাকি বাংলাদেশ এভাবে পাকিস্তান সফরের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নিজের চ্যানেলে শোয়েব বলেছেন, ‘পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরানোর জন্য যে জোর চেষ্টা চালাচ্ছে, তাতে পিসিবিকে কৃতিত্ব দিতেই হবে। আমি মানুষকে বলব বাংলাদেশের ব্যাপারে বাজে কথা না বলতে। তারা আসলে এমন করেছে অদৃশ্য চাপে পড়ে। এসব চাপ নিয়ে আমি প্রকাশ্যে কিছু বলতে পারব না। বিসিবিকে অনেক রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও অনেক চাপ সামলাতে হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের সফরের জন্য পাকিস্তানের এশিয়া কাপ আয়োজনের সুযোগ ছেড়ে দেওয়াটা আমার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়েছে।’

২০২০ টি-টোয়েন্টি এশিয়া কাপ আয়োজনের দায়িত্ব পাকিস্তান পেয়েছিল। কিন্তু এখন শোয়েবের দাবি এ টুর্নামেন্টের আয়োজক বাংলাদেশ হওয়ারই সম্ভাবনা বেশি, ‘বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর নিয়ে অনেক গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। অনেকেই বলছে, বাংলাদেশ যা চেয়েছে সেটাই পেয়েছে। অনেকে বলছে, এশিয়া কাপ আয়োজনের অধিকার আদায় করে তার বদলে পাকিস্তান আসতে রাজি হয়েছে বাংলাদেশ। এর ফলে পাকিস্তানে নয়, বাংলাদেশে হবে পরের এশিয়া কাপ।’

বাংলাদেশের এভাবে তিনবার পাকিস্তান–যাত্রা ঠিক মেনে নিতে পারছেন না শোয়েব। তাঁর ধারণা, বারবার সফর করে ক্ষুদ্র সময়ের জন্য পাকিস্তানে থাকা নিশ্চিত করে পাকিস্তানকে অনিরাপদ দেখানোর চেষ্টা করা হচ্ছে, ‘পাকিস্তান খুবই নিরাপদ একটি দেশ। যে নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে, সেটা দারুণ। অনেক ক্রিকেটারই পাকিস্তানের নিরাপত্তার প্রশংসা করেছে। এভাবে বিচ্ছিন্নভাবে সফর করার কোনো মানে দেখছি না আমি। তবু তো ভালো বাংলাদেশ আসছে। কিন্তু এমন ভাগে ভাগে সফর করতে আসা বিশ্বের কাছে সঠিক বার্তা দিচ্ছে না।’

সব শেষে দৃষ্টিটা ক্রিকেটে ফিরিয়েছেন শোয়েব। তাঁর ধারণা, সাকিব-মাশরাফিবিহীন বাংলাদেশ দলই নাকি পাকিস্তানের কঠিন পরীক্ষা নেবে, ‘এটা খুব কঠিন সিরিজ হবে। এ সিরিজে হার কোনোভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। একটা হার মানেই পুরো দলের গঠন নিয়ে প্রশ্ন উঠে যাবে। পাকিস্তানের উচিত সিরিজের জন্য ভালোভাবে প্রস্তুত হওয়া।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন