বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে মেসিদের এই অর্জন দেখার জন্য কোনো দর্শক মাঠে ছিলেন না, সেটাও কষ্ট দিয়েছে বার্সা অধিনায়ককে, ‘আমাদের ভক্তদের সামনে ট্রফি জয় উদ্‌যাপন করতে পারছি না, ব্যাপারটা কষ্টের। কিন্তু কিচ্ছু করার নেই, এভাবেই চলতে হবে আমাদের। খুবই হতাশার বিষয় এটা। কোপা দেল রে সব সময়েই একটা বিশেষ স্থান দখল করে থাকে, আমাদের ভক্তরাও এই ট্রফি জিতলে অনেক আনন্দ পায়।’

বিলবাওকে হারানোর পেছনে মেসিরা কি কোনো বিশেষ কৌশলের আশ্রয় নিয়েছিলেন? সাক্ষাৎকারে আবছাভাবে ফুটে উঠেছে সে কথাও, ‘আমরা জানতাম বিলবাও কীভাবে খেলবে। ৪-৪-২ ছকে খুব আঁটসাঁটভাবে খেলার চেষ্টা করবে তারা। আমরা বল পায়ে অনেক ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছি, নিজেদের সুযোগ তৈরি করেছি, জায়গা বানিয়ে নিয়েছি। প্রথম থেকেই আমরা অনেক দৌড়ে খেলেছি। আমার মনে হয় দ্বিতীয়ার্ধে ওরা ওদের গতি একটু কমিয়ে দিয়েছিল।’

default-image

কোপা দেল রে’র এই সাফল্য মেসিকে লিগের ব্যাপারেও আশাবাদী করে তুলেছে। লিগের শীর্ষস্থানের জন্য অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ ও রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে নিয়মিত লড়তে থাকা বার্সেলোনা অবশেষে লিগেও ভালো কিছু করতে পারবে বলে আশা করছেন মেসি, ‘মৌসুমের শুরুতে আমাদের বেশ কষ্ট হয়েছে। খামোকা কিছু পয়েন্ট হারিয়েছি। কিন্তু আস্তে আস্তে আমরাও শক্তিশালী হচ্ছি, ভালো খেলছি, আর আমরা এখন বেশ ভালোভাবেই শিরোপার দৌড়ে আছি। কপাল খারাপ, ক্লাসিকোতে একটা ইতিবাচক ফল আনতে পারিনি।’

গত রাতে জোড়া গোল করেছেন মেসি। জোড়া গোল করে কোপা দেল রে ফাইনালের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি গোল করার রেকর্ড করে ফেলেছেন, আগে যে রেকর্ডটা বিলবাওয়েরই সাবেক স্ট্রাইকার তেলমো জারার দখলে ছিল। কোপা ফাইনালে এখন মেসির গোল নয়টা।

এই নিয়ে খেলোয়াড় হিসেবে মোট ৩৭টা শিরোপা জেতা হয়ে গেল মেসির। এর মধ্যে বার্সেলোনার জার্সি গায়ে ৩৫টা, আর্জেন্টিনার হয়ে ২টি (অলিম্পিক ও অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপ)। ফুটবল ইতিহাসের সফলতম খেলোয়াড় হিসেবে সাবেক সতীর্থ দানি আলভেসের (৪২) পর এখন যৌথভাবে দ্বিতীয় স্থানে আছেন মেসি। মেসির সঙ্গে দ্বিতীয় স্থানে আরও আছেন আরও দুই সাবেক সতীর্থ আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা ও বার্সার সাবেক ব্রাজিলিয়ান লেফটব্যাক ম্যাক্সওয়েল।

default-image

ট্রফির খেলায় অবশ্য ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো মেসির চেয়ে পিছিয়ে আছেন। দলগত শিরোপা রোনালদোর ৩৩টা, বার্সার আরেক কিংবদন্তি জাভির সমান। তালিকায় নবম স্থানে আছেন রোনালদো ও জাভি। তালিকায় মেসি ও রোনালদোর মাঝে আছেন রায়ান গিগস, কেনি ডালগ্লিশ, জেরার্দ পিকে, ভিতর বাইয়ার মতো তারকারা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন