বার্সেলোনায় তরুণ প্রতিভাবান একজন রাইটব্যাক খেলবেন মেসির পাশে।
বার্সেলোনায় তরুণ প্রতিভাবান একজন রাইটব্যাক খেলবেন মেসির পাশে। ছবি: রয়টার্স

বার্সেলোনায় মোটেও আনন্দে নেই লিওনেল মেসি। সেটি সম্ভবত এই মুহূর্তে নতুন করে বলার মতো কিছু নয়। গত আগস্টে ক্লাব ছাড়ার ইচ্ছে জানিয়ে বার্সেলোনাকে পাঠানো বুরোফ্যাক্সেই মেসি বুঝিয়ে দিয়েছেন, ক্লাবের বর্তমান বোর্ডের সঙ্গে তাঁর বোঝাপড়া মোটেও ভালো নয়। দিন দুয়েক আগে লুইস সুয়ারেজের বার্সা ছাড়ার দিনে প্রিয় বন্ধুকে বিদায়ী শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে আরেক দফা বোর্ডকে এক হাত নিয়েছেন।

মাঠের বাইরে অসুখী মেসি বার্সার জার্সিতে মাঠেও কি সুখী? গত মৌসুমে কোনো শিরোপা জেতা হয়নি, ২০১৫ সালের পর চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা হয়নি। জেতা তো দূরের কথা, বছরের পর বছর চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বার্সা বিদায় নিয়েছে লজ্জায়। সেটির পেছনে অনেক কারণ আছে, তবে এর একটি কারণ ধরা হয় বার্সার কোনো যথাযথ রাইটব্যাক না থাকা। সেই দানি আলভেজ থাকার সময়ে সর্বশেষবার ইউরোপ শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট উঠেছিল বার্সার মাথায়। মেসির বন্ধু আলভেজ বার্সা ছেড়েছেন ২০১৬ সালে। সর্বশেষ চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ের পরের বছর, এত দিন পর বুঝি ডানে আরেকজন ‘দোস্ত’ পেতে যাচ্ছেন মেসি। নাম? সের্হিনিও দেস্ত।

বিজ্ঞাপন
default-image

অনেক নাটকের পর অবশেষে যুক্তরাষ্ট্রের ১৯ বছর বয়সী রাইটব্যাককে পেতে যাচ্ছে বার্সা। ইউরোপজুড়ে দলবদলের বাজারজুড়ে খবর, আয়াক্স থেকে ২ কোটি ২০ লাখ থেকে ২ কোটি ৩০ লাখ ইউরোতে দেস্তের বার্সায় যাওয়া চূড়ান্ত, শুধু দুই পক্ষের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসা বাকি। এই অর্থের পাশাপাশি শর্তসাপেক্ষে আরও কিছু অর্থ আয়াক্সকে দেবে বার্সা।

দলবদলের খবর আগেভাগে সঠিকভাবে জানিয়ে ইউরোপজুড়ে বিশ্বস্ত হয়ে যাওয়া সাংবাদিক ফাব্রিজিও রোমানো টুইটে লিখেছেন, ২০২৫ সাল পর্যন্ত বার্সার সঙ্গে চুক্তি হতে যাচ্ছে দেস্তের। বিখ্যাত ডাচ পত্রিকা টেলিগ্রাফের সাংবাদিক মাইক ভেরভেই টুইট করেছেন, আগামীকাল বার্সেলোনায় গিয়ে স্বাস্থ্যপরীক্ষা করাবেন দেস্ত। যদিও স্প্যানিশ রেডিও আরএসি ওয়ান বলছে, স্বাস্থ্যপরীক্ষা আজই হয়ে যাওয়ার কথা।

যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় দলের হয়ে খেলা দেস্তের বাবা মার্কিন, মা নেদারল্যান্ডসের। তাঁর জন্মও আমস্টারডামেই। আয়াক্সের একাডেমিতে বেড়ে ওঠার পর গত মৌসুমেই আয়াক্সের জার্সিতে অভিষেক হয়েছে। এ পর্যন্ত ডাচ ক্লাবটির জার্সিতে খেলেছেন মোট ৩০ ম্যাচ। যা খেলেছেন, তাতেই দেস্তকে নিয়ে কাড়াকাড়ি পড়ে যাওয়ার জোগাড়! বার্সার ভাগ্য ভালো, বার্সায় খেলা দেস্তের আজন্ম স্বপ্ন। না হলে যে তরুণ এই রাইটব্যাকের বায়ার্ন মিউনিখে চলে যাওয়া প্রায় নিশ্চিত হয়েই গিয়েছিল!

বিজ্ঞাপন

বার্সা ও বায়ার্ন মিউনিখের দড়ি টানাটানির শুরু থেকে বায়ার্নই এগিয়ে ছিল। আয়াক্সকে দেস্তের জন্য সবার আগে প্রস্তাব দিয়েছিল বর্তমান ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন জার্মান ক্লাবটিই। বার্সা তখনো অর্থ জোগাড়ে ব্যস্ত। কিন্তু দেস্তের সঙ্গে বায়ার্নের ব্যক্তিগত চুক্তি করা বাকি ছিল, এদিকে বার্সা তাঁকে চায় বলে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। দেস্তেরও শৈশব থেকেই স্বপ্ন ছিল বার্সেলোনায় খেলার। গত মৌসুমেই সাবেক ডাচ ফুটবলার অ্যান্ডি ফন ডার মেইডের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে দেস্ত সেই স্বপ্নের কথা জানিয়েছিলেন। বার্সা তাঁকে পেতে চায় শুনেই তাই দেস্ত অপেক্ষায় ছিলেন বার্সা-আয়াক্স সমঝোতার, অপেক্ষায় রেখেছেন বায়ার্নকে।

ছোট ছোট পাসে খেলতে পছন্দ করেন, ড্রিবলিংও পারেন ভালো। আক্রমণভাগের খেলোয়াড়ের সঙ্গে ওয়ান-টু খেলে প্রতিপক্ষ রক্ষণভাগ খুলতে পারেন। ফুটবলের তথ্য-পরিসংখ্যান নিয়ে কাজ করা ওয়েবসাইট হুস্কোরড জানাচ্ছে, পাসিং, ড্রিবলিংয়ের পাশাপাশি রক্ষণভেদী পাস দেওয়া দেস্তের শক্তির জায়গা।

তবে দেস্তের দুর্বলতাগুলো শুনলে বার্সা সমর্থকদের আনন্দের বেলুনটা একটু চুপসে যাবে নিশ্চিত। প্রতিপক্ষের চাপের মুখে বলের দখল রাখায় এখনো অতটা দক্ষ নন দেস্ত, দক্ষ নন বাতাসে ভেসে আসা বল সামলাতেও। বার্সার রক্ষণভাগের অন্যতম বড় দুর্বলতাই তো বাতাসে ভেসে আসা বল!

বিজ্ঞাপন

তবে দেস্ত এলে মেসির জন্য হয়তো ভালো কিছুই হবে। ২০১৬ সাল পর্যন্ত বার্সার আক্রমণের ডানে দানি আলভেজের সঙ্গে মেসির জুটি জমেছিল বেশ। কিন্তু বার্সেলোনা বোর্ডের ওপর রাগ করে ২০১৬ সালে মেসির প্রিয় বন্ধুদের একজন আলভেজ ক্লাব ছেড়ে যান, আক্রমণের ডানে এরপর তেমন ভরসা করার মতো কাউকে পাননি মেসি। এরপর বার্সার আর চ্যাম্পিয়নস লিগ জিততে না পারার পেছনে আলভেজের মতো ডানে না থাকাই যে অন্যতম বড় কারণ, তা কে না বলবে!

দেস্তের ফুটবল পায়ে কারিকুরি, দক্ষতা, রক্ষণভেদী পাস দেওয়ার ক্ষমতা আলভেজের মতো নয়। তবে ছোট পাসে খেলা, প্রতিপক্ষ বক্সের সামনে ওয়ান-টু খেলায় আলভেজের সঙ্গে কিছুটা মিল আছে। দেস্তের মধ্যেই মেসি ডানে নতুন ‘দোস্ত’ পাবেন? সময় বলবে!

মন্তব্য পড়ুন 0