আগুয়েরোকে নিতে চাচ্ছে বার্সেলোনা?
আগুয়েরোকে নিতে চাচ্ছে বার্সেলোনা?ছবি: রয়টার্স

লুইস সুয়ারেজ দল থেকে চলে যাওয়ার পর থেকেই এই গুঞ্জনটা চলছে। নিজেদের ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই স্ট্রাইকার মৌসুমের শুরুতেই যোগ দিয়েছেন শিরোপা প্রতিদ্বন্দ্বী আতলেতিকো মাদ্রিদে। দুই বছর ধরে ‘সুয়ারেজের বিকল্প চাই’, ‘সুয়ারেজের বিকল্প চাই’ করে দলবদলের বাজার গরম করে রাখা বার্সেলোনা সুয়ারেজকে ছেড়ে দিলেও বিকল্প আর দলে আনেনি। হ্যাঁ, মার্টিন ব্রাথওয়াইট দলে থাকলেও তাঁকে সুয়ারেজের বিকল্প হিসেবে ভাবা বাড়াবাড়ি। তাই নতুন স্ট্রাইকারের খোঁজ চলছেই।

আর এই নতুন স্ট্রাইকারের খোঁজে এখন যাঁর নাম সবচেয়ে বেশি জোরেশোরে শোনা যাচ্ছে, তিনি ম্যানচেস্টার সিটির বর্ষীয়ান আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার সের্হিও আগুয়েরো। সিটির সঙ্গে ১০ বছরের সম্পর্ক এবারই শেষ হয়ে যেতে পারে আগুয়েরোর, বাজারে জোর গুঞ্জন। পেপ গার্দিওলার দলে বহু আগেই জায়গা হারিয়েছেন এই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার। এমনিতেই দলে তেমন স্ট্রাইকার খেলাতে পছন্দ করেন না গার্দিওলা আজকাল, খেলালেও, মাঠে নামিয়ে দেন তরুণ ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার গ্যাব্রিয়েল জেসুসকে। ফলে আগুয়েরোর সঙ্গে সিটির চুক্তি আস্তে আস্তে শেষ হয়ে গেলেও, চুক্তি নবায়নের ক্ষেত্রে সিটির তেমন আগ্রহ নেই। ফলে ধরে নেওয়াই যায়, সিটি ছাড়ছেন তর্কাতীতভাবে দলের ইতিহাসের শ্রেষ্ঠতম এই স্ট্রাইকার।

default-image
বিজ্ঞাপন

এদিকে এই সুযোগটাই নিতে চাইছে বার্সেলোনা। এমনিতেই খেলোয়াড় কেনার জন্য বার্সার তেমন টাকাপয়সা নেই এখন। ফলে নতুন কাউকে দলে আনার জন্য ‘ফ্রি’ খেলোয়াড়দের দিকেই নজর দিচ্ছে তারা, যাঁদের দলে আনতে ট্রান্সফার ফি বাবদ কোনো টাকাপয়সা খসাতে হবে না। আর সিটির সঙ্গে আসছে জুনে চুক্তি শেষ হয়ে গেলে আগুয়েরো তো ‘ফ্রি’-ই! বয়স হয়ে গেলেও আগুয়েরোর মান নিয়ে প্রশ্ন তোলার অবকাশ নেই মোটেও। তাই ফ্রি তে এমনই এক স্ট্রাইকার দলে আনার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমগুলো।

বিশেষ করে হোয়ান লাপোর্তা নতুন সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই নতুন স্ট্রাইকার হিসেবে সের্হিও আগুয়েরোকে আনার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বার্সেলোনা, এমনটাই শোনা যাচ্ছে। হোয়ান লাপোর্তার সঙ্গে খেলোয়াড়ের মুখপাত্র এর্নান রেগুয়েরা বহুদিন ধরেই কথাবার্তা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম মার্কা। আগুয়েরো নিজেও নিজের দেশের কোনো ক্লাবে ফেরত যাওয়ার আগে আরও একটি শীর্ষ ক্লাবে খেলে যেতে চান, এমনটাই জানা গেছে।

আর মেসির সঙ্গে আগুয়েরোর বন্ধুত্ব নিয়ে তো নতুন করে কিছু বলার নেই। আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে দুজন যখনই গেছেন, হোটেলে একই রুমে থেকেছেন, এতটাই গাঢ় বন্ধুত্ব তাঁদের। তাই আগুয়েরোর মতো বন্ধুকে দলে আনার মাধ্যমে মেসি নিজে যদি বার্সেলোনার সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করেন, লাপোর্তার চিন্তাভাবনা হয়তো এমনই! এমনিতেই বার্সেলোনায় মেসির যত বন্ধু ছিলেন, জাভি-ইনিয়েস্তা থেকে শুরু করে ফ্যাব্রিগাস, নেইমার থেকে শুরু করে সুয়ারেজ— সবাই ক্লাব ছেড়েছেন। মেসি যদি বার্সেলোনা ছাড়তেও চান, তার অন্যতম কারণ এটাও হতে পারে, ক্লাবে মেসির বন্ধুহীনতা। আগুয়েরোকে আনার মাধ্যমে মেসিকে একটি বন্ধু এনে দেওয়ার চিন্তাই হয়তো করছেন লাপোর্তা।

default-image

ক্লাবের নতুন স্ট্রাইকার হিসেবে লিওঁর ডাচ স্ট্রাইকার মেমফিস ডিপাইকে আনার জন্য মৌসুমের শুরু থেকেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বার্সা কোচ কোমান। লিওঁর সঙ্গে এই ডিপাইয়ের চুক্তিও শেষ হবে আগামী জুনে। তখন কোচের পছন্দের স্ট্রাইকার বাদ দিয়ে আগুয়েরোকে দলে আনা কতটুকু যুক্তিযুক্ত হবে, সে প্রশ্ন থেকেই যায়।

অপেক্ষা শুধু আগামী জুনের। মেসি-আগুয়েরো-ডিপাই, সবার ভাগ্যই নির্ধারিত হয়ে যাবে আর মাত্র কয়েকটা মাস পর।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন