সেই তালিকার সর্বশেষ সংযোজন—সের্হিও আগুয়েরো। গতকাল ম্যানচেস্টার সিটি তাদের ইতিহাসের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকারের ভাস্কর্য উন্মোচন করেছে নিজেদের মাঠ ইতিহাদ স্টেডিয়ামের বাইরে। সবকিছুই ঠিক ছিল, কিন্তু বিপত্তিটা বাধল এক জায়গায়।

সোজাসুজি দেখলে সে ভাস্কর্যের খেলোয়াড়কে আগুয়েরো নয়, বরং রিয়াল মাদ্রিদের জার্মান মিডফিল্ডার টনি ক্রুসের মতো বলেই বেশি মনে হয়। এ নিয়ে গতকাল থেকেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে হাস্যরস চলেছে। ব্যাপারটা চোখে পড়েছে ক্রুসেরও। হালকা মশকরা করার সুযোগটা হারাননি রিয়ালের জার্মান মিডফিল্ডার।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি স্পোর্টসের ক্রীড়াবিষয়ক সাংবাদিক সাইমন স্টোন আগুয়েরোর ভাস্কর্যের ছবি টুইটারে পোস্ট করে লিখেছিলেন, ‘সের্হিও এসে গেছে!’ সে টুইটটা রিটুইট করে ক্রুস লিখেছেন, ‘আসলেই কি?’

ইঙ্গিতটা পরিষ্কার, ক্রুসেরও মনে হচ্ছে, আগুয়েরোর ভাস্কর্যটাকে দেখতে আগুয়েরো নয়, বরং তাঁর মতোই লাগছে!

২০১২ সালে ৪৪ বছর পর লিগ শিরোপা জেতে সিটি। আবুধাবিভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সিটির মালিক হওয়ার পর সেবারই প্রথম লিগ জেতে দলটা। আর সেই লিগ জয় নিশ্চিত হয় লিগের শেষ ম্যাচে কুইন্স পার্ক রেঞ্জার্সের বিপক্ষে আগুয়েরোর এক বিখ্যাত গোলের পর। যোগ করা সময়ে, ৯৩ মিনিট ২০ সেকেন্ডে করা আগুয়েরোর গোলটা প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসেরই অন্যতম নাটকীয় মুহূর্ত।

default-image

শিরোপা জিততে হলে ম্যাচটা জিততেই হতো সিটিকে, তাহলে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সঙ্গে পয়েন্টে সমতায় থাকলেও গোলব্যবধানে এগিয়ে থাকা সিটি জিতবে শিরোপা—এ-ই ছিল সমীকরণ। তাতে হারের মুখ থেকে ফিরে যোগ করা সময়ের দুই গোলে ৩-২ ব্যবধানে জেতে সিটি, জয় নিশ্চিত করা গোলটা ছিল ছিল আগুয়েরোর।

সম্প্রতি আগুয়েরোর সেই গোলের ১০ বছর পূর্তি হয়েছে। সে কারণেই আগুয়েরোর ভাস্কর্য বানিয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। জার্সি খুলে মাথার ওপর বনবন করে ঘোরাতে ঘোরাতে ভোঁ–দৌড়, ভাস্কর্যে আগুয়েরোর সেই গোলের উদ্‌যাপনই ফুটে উঠেছে।


এর আগে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর ভাস্কর্য নিয়েও এমন বিতর্ক উঠেছিল। ২০১৭ সালে নিজ শহর মাদেইরার বিমানবন্দরে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের এক আবক্ষ ভাস্কর্য বানানো হয়েছিল। কিন্তু ভাস্কর্যটি দেখতে এতটাই বীভৎস ছিল যে রোনালদোর সঙ্গে সেটির চেহারায়-অবয়বে কোনো মিলই পাওয়া যাচ্ছিল না। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ নিয়ে হাসি-তামাশা হয়েছে বিস্তর।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন