বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সেই মেন্দি অবশ্য অভিশপ্ত এক রত্ন বলেই প্রমাণিত হয়েছেন। যাঁকে তাঁর রক্ষণের বাঁ দিকের সমস্যার সমাধান বলে ভেবেছিলেন গার্দিওলা, সেই মেন্দি মাঠে ও মাঠের বাইরে দলের জন্যই সমস্যা হয়ে উঠেছেন। এর মধ্যেই তাঁর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠায় তাঁকে নিষিদ্ধ করেছে ক্লাব। সে মামলা চলার মধ্যেই আবার নতুন করে তাঁর বিরুদ্ধে দুটি ধর্ষণের মামলা করা হয়েছে।

default-image

২০১৭ সালে দলে যোগ দেওয়ার পর থেকেই মেন্দি চোট ও শৃঙ্খলাজনিত সমস্যায় দলের মাথাব্যথার কারণ ছিলেন। সাড়ে চার বছর ধরে ক্লাবে থাকার পরও মাত্র ৭৫টি ম্যাচে মাঠে ছিলেন। এর মধ্যে এই মৌসুমে মাত্র একবারই মাঠে ছিলেন। এর কারণ। গত ২৬ আগস্ট এইই লেফটব্যাকের বিরুদ্ধে তিন নারীকে শারীরিক নিগ্রহের অভিযোগ উঠেছিল।

ধীরে ধীরে অতীতের পাপ সব উঠে আসতে শুরু করায়, সেই অভিযোগ এখন ছয়টি ধর্ষণ ও একটি যৌন নিগ্রহের মামলায় রূপ নিয়েছে। আগামী বুধবার স্টকপোর্ট ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হতে বলা হয়েছে তাঁকে।

default-image

মেন্দির বিরুদ্ধে যেসব ঘটনার অভিযোগ উঠেছে, সেগুলো ২০২০ সালের অক্টোবর থেকে ২০২১ সালের আগস্টের মধ্যে হয়েছে বলে জানা গেছে। এই মামলায় আপাতত পুলিশ হেফাজতে আছেন এই ফুটবলার। ২৭ বছর বয়সীর দ্বিতীয় জামিন আবেদনও গত অক্টোবরে নাকচ হয়ে গেছে। একই মামলার তদন্তে ৪০ বছর বয়সী আরেক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে আরও দুটি ধর্ষণের অভিযোগ আছে। তাঁকেও বুধবার আদালতে হাজির করা হবে।

এই দুজনের বিচারকাজ আগামী ২৪ জানুয়ারি শুরু হবে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন