এক ম্যাচে দুই পেনাল্টি মিস রামোসের।
এক ম্যাচে দুই পেনাল্টি মিস রামোসের।ছবি: রয়টার্স

কী অনায়াসেই না পেনাল্টি থেকে গোল করতে পারেন তিনি। টানা ২৫টি পেনাল্টি থেকে গোল করা তো আর যেনতেন কথা নয়! সের্হিও রামোস সেটা করে দেখিয়েছেন। কাল সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে উয়েফা নেশনস কাপে এই রামোসই কিনা পরপর দুটি পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হলেন! এ নিয়ে তো চারদিকে হইচই। তা হতে পারে, কিন্তু অধিনায়কের ওপর আস্থা হারাচ্ছেন না স্পেনের কোচ লুইস এনরিকে। একই ম্যাচে স্পেন যদি আরও একটি পেনাল্টি পেত সেটিও নাকি রামোসই নিতেন! ম্যাচ শেষে এমনটাই বলেছেন এনরিকে।

ম্যাচের ২৬ মিনিটে নিজেদের মাঠে এগিয়ে যায় সুইজারল্যান্ড। ৫৫ মিনিটে ম্যাচে সমতা আনার সুযোগ পান রামোস। কিন্তু তাঁর নেওয়া পেনাল্টি ঠেকিয়ে দেন সুইস গোলরক্ষক। স্পেন আবার সমতায় ফেরার সুযোগ পায় ৮০ মিনিটে। এই পেনাল্টিটি নেওয়ার আগে অবশ্য সাইডলাইনে গিয়ে কোচ এনরিকের সঙ্গে কথা বলেন রামোস। স্পেনের সংবাদমাধ্যমের খবর, সেই সময় পেনাল্টিটি রামোসকে নিতে বারণ করেছিলেন এনরিকে। সেটি দিতে বলেছিলেন মোরাতাকে।

default-image
বিজ্ঞাপন

শেষ পর্যন্ত মোরাতাকে না দিয়ে পেনাল্টিটি নিজেই নেন রামোস। এবার পানেনকা পেনাল্টি থেকে গোল করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু গোলকিপার রামোসের মনোভাব বুঝে ফেলেন এবং তাঁর নেওয়া সহজ পেনাল্টিটি ঠেকিয়ে দেন। স্পেনের সংবাদমাধ্যমে এ নিয়ে চলছে বিশ্লেষণ—কেন কোচের কথা না শুনে নিজেই আবার পেনাল্টি নিতে গেলেন রামোস! কিন্তু এনরিকে কোনো রাখঢাক না রেখেই অধিনায়কের পাশে দাঁড়িয়েছেন, ‘আমরা যদি তৃতীয় পেনাল্টি পেতাম তাহলে সেটাও সে–ই (রামোস) নিত।’

কেন রামোসকে তিনি পরের পেনাল্টিটিও নিতে দিতেন, সেই ব্যাখ্যাও দিয়েছেন এনরিকে। স্পেন কোচের ব্যাখ্যায় উঠে এসেছে পেনাল্টি থেকে রামোসের ধারাবাহিক গোল করার বিষয়টি, ‘পেনাল্টি থেকে সের্হিওর গোল করার পরিসংখ্যানটা অবিশ্বাস্য।’ রামোসের দুটি পেনাল্টি মিস করার পরও অবশ্য সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে ড্র করে ফিরতে পেরেছে স্পেন। সেটা অবশ্য মোরেনোর কল্যাণে। ৮৯ মিনিটে দলের সমতাসূচক গোলটি করেছেন তিনিই।

মন্তব্য পড়ুন 0