বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রথমার্ধে প্যারাগুয়ের জালে গোলের পাঁচটি সুযোগ জলে গেছে। সুযোগ নষ্ট হয় বিরতির পরও। প্যারাগুয়ে মাঝে-মধ্যে বিশেষ করে বিরতির পর ছোবল মারার চেষ্টা করলেও এই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ মেসি-দি মারিয়াদের মুঠোয়ই ছিল।

মেসি দুই অর্ধেই গোলের সুযোগ পেয়েছেন। তবে একটু পেছন থেকে খেলায় তাঁকে খুব বেশি বক্সের ভেতরে ঢুকতে দেখা যায়নি। বাইরে থেকে খেলাটা তৈরি করে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করেছেন। দুই অর্ধে দুটি ফ্রি-কিক পেলেও কাজে লাগাতে পারেননি। তবে শট নিয়েছেন কয়েকটি। ৮ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দুইয়ে আর্জেন্টিনা।

default-image

প্রথমার্ধে ছোট পাসে সুন্দর ফুটবলে গোলমুখ খেলার চেষ্টা করেছে আর্জেন্টিনা। চোটের কারণে লাউতারো মার্তিনেজ খেলতে পারেননি। তাঁর ইন্টার মিলান সতীর্থ হোয়াকুইন কোরেয়াকে সামনে রেখে পেছনে লিওনেল মেসি, আনহেল দি মারিয়া ও জিওভান্নি লো সেলসোকে নিয়ে আক্রমণভাগ সাজান লিওনেল স্কালোনি। ছোট পাসে বল আদান প্রদান করে প্যারাগুয়ের রক্ষণ ভাঙলেও কাজের কাজ গোলটা হয়নি।

ম্যাচ শুরুর ১২ মিনিটের মধ্যে গোলের চারটি ভালো সুযোগ পেয়েছে আর্জেন্টিনা। ১ ও ৩ মিনিটে কোরেয়ার দুটি শট রুখে দেন প্যারাগুয়ে গোলকিপার আন্তনিও সিলভা। ১২ মিনিটের মধ্যে আরও দুবার তাঁর পরীক্ষা নেন কোরেয়া ও দি মারিয়া। এর মধ্যে দি মারিয়ার শট প্রায় গোল লাইন থেকে ঠেকান প্যারাগুয়ে ডিফেন্ডার জুনিয়র আলোনসো।

মেসি আক্রমণ গড়ে দিলেও তা গোলে রুপান্তর করতে পারেননি কেউ। তিনি নিজেও দুটো শট নেন। প্রথমার্ধে ২৮৪ পাস খেলেছে আর্জেন্টিনা, ১২২ পাস খেলা প্যারাগুয়ে বেশিক্ষণ পায়ে বল রাখতে পারেনি।

default-image

গোলশুন্য প্রথমার্ধের পর দ্বিতীয়ার্ধে দুই দলের প্রতিদ্বন্দ্বীতা তুলনামূলক বেড়েছে। খেলায় গতি বাড়ানোয় ২০ মিনিটের মধ্যে গোলের দুটি ভালো সুযোগ পায় প্যারাগুয়ে। ৬৪ মিনিটে প্যারাগুয়ে ফরোয়ার্ড আন্তনিও সানাব্রিয়া বাঁ প্রান্ত দিয়ে ঢুকে ভালো শট নিলেও দারুণভাবে রুখে দেন আর্জেন্টিনা গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্তিনেজ।

৫০ মিনিটে গুস্তাভো গোমেজের হেডও মার্তিনেজের দৃঢ়তায় লক্ষ্যভ্রষ্ঠ হয়। তবে সেরা সেভটা তিনি করেছেন ৭১ মিনিটে। বাঁ প্রান্ত থেকে সানাব্রিয়ার আচমকা শটে অবিশ্বাস্যভাবে দেয়াল হয়ে দাঁড়ান অ্যাস্টন ভিলা গোলকিপার।

ম্যাচে কিছু সময় উত্তেজনাও ছড়িয়েছে। ৮০ মিনিটের পর একটি কর্নার থেকে নিকোলাস ওতামেন্দিকে ফেলে দেন প্যারাগুয়ের এক ডিফেন্ডার। এ নিয়ে প্রথমে তর্ক-বিতর্ক এবং পরে ধাক্কাধাক্কি করেন দুই দলের খেলোয়াড়েরা। রেফারির হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন