বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

লিওনেল মেসি তো ছিলেন। মেসির পাশাপাশি আক্রমণভাগের দায়িত্ব সামলেছেন হোয়াকিন কোরেয়া, আনহেল দি মারিয়া। পরে গোমেজ নেমেছেন, নেমেছেন ইউলিয়ান আলভারেজ, নিকোলাস গঞ্জালেসরাও। কিন্তু পরম প্রার্থিত গোলটা বের করে আনতে পারেনি আর্জেন্টিনা। স্বাগতিকদের কাছে আটকে গেছে গোলশূন্য ড্রয়ে।


পয়েন্ট হারানোর কারণে আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনি যারপরনাই হতাশ। গোল না পেলেও আর্জেন্টিনা যে ভালো খেলেছে, সেটা বারবার উঠে এসেছে তাঁর কথায়, ‘প্রথমার্ধে আমরাই ভালো খেলেছি। দ্বিতীয়ার্ধে প্যারাগুয়েও বেশ ভালো খেলেছে। তবে সব মিলিয়ে আমরাই এগিয়ে ছিলাম। আমরাই ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ করেছি। বাছাইপর্বের ম্যাচগুলো এমনিতেই অনেক কঠিন হয়। খেলোয়াড়েরাও বুঝেছে, প্যারাগুয়েতে এসে খেলা কতটা কঠিন। আমরা গোলের বেশ কিছু সুযোগ নষ্ট করেছি। তবে একটা জিনিস ইতিবাচক, আমরা আশা ছাড়িনি, আমরা শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করে গেছি।’

default-image

প্রথমার্ধে ২৮৪ পাস খেলেছে আর্জেন্টিনা, ১২২ পাস খেলা প্যারাগুয়ে বেশিক্ষণ পায়ে বল রাখতে পারেনি। গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর দ্বিতীয়ার্ধে দুই দলের প্রতিদ্বন্দ্বিতা তুলনামূলক বেড়েছে।

কিন্তু গোলমুখ খুলতে পারেনি আর্জেন্টিনা, ‘প্যারাগুয়ে বেশ কঠিন এক প্রতিপক্ষ। আমরা যেভাবে আক্রমণ করি, সে অনুযায়ী তারা তাদের খেলার ধরন বদলেছে। এখন সবাই আর্জেন্টিনাকে হারাতে চায়। তারা নিয়মিত নিজেদের খেলার ধরন বদলাচ্ছে। এটাই এখন মেনে নিতে হবে। আমরা অনেক পাস খেলার চেষ্টা করেছি। অনেক সুযোগ সৃষ্টি করেছি গোল করার। বেশ গতি নিয়ে খেলেছি আমরা। কখনো কখনো ভালো খেললেও জয় পাওয়া যায় না। এটাই ফুটবল।’

দিনের শেষে ড্র-ই মেনে নিয়েছেন আর্জেন্টিনার কোচ, ‘আমরা জানতাম, প্যারাগুয়ে অনেক চাপে রাখবে আমাদের। আমার মনে হয়, আমার দল প্যারাগুয়ের চাপ সহ্য করে বেশ কিছু গোলের সুযোগ সৃষ্টি করেছে। শুধু আর্জেন্টিনাই নয়, যেকোনো দলই প্যারাগুয়ের বিপক্ষে খেলতে গিয়ে সমস্যায় পড়বে। আমরা জানতাম তারা অনেক শক্ত প্রতিপক্ষ।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন