default-image

এই মৌসুমে দুর্দান্ত ফর্মে আছেন করিম বেনজেমা। কাল সেভিয়ার বিপক্ষে দৃষ্টিকটুভাবে বেশ কিছু সুযোগ নষ্ট করেছেন। কিন্তু ঠিকই ম্যাচের যোগ করা সময়ে দলকে জয় এনে দেওয়া গোল পেয়েছেন বেনজেমা। এতে মৌসুমে ৩৯ ম্যাচে ৩৯ গোল হয়ে গেল তাঁর। আর লিগে ৬ ম্যাচ হাতে রেখেই গোল হয়ে গেছে ২৫টি। রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে এক মৌসুমে লিগে তাঁর ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড এটি। সব টুর্নামেন্ট মিলিয়ে এক মৌসুমে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড তো আগেই করে ফেলেছেন, এই মৌসুমের আগে রিয়ালে বেনজেমা মৌসুমে সবচেয়ে বেশি ৩২ গোল করেছিলেন ২০১১-১২ মৌসুমে।

এসব তো সব ব্যক্তিগত রেকর্ড। দলীয় রেকর্ডেও ওলটপালট করেছেন কিছু। গতকাল লা লিগায় নিজের ২১৭তম গোল করেছেন বেনজেমা। আর তাতে ছাপিয়ে গেছেন আলফ্রেডো ডি স্টেফানোকে। রিয়াল মাদ্রিদের সর্বকালের সেরা ফুটবলার তাঁকেই মানেন সবাই, ১১ মৌসুমে ২৮২ ম্যাচে তিনি স্প্যানিশ লিগে রিয়ালের জার্সিতে গোল করেছিলেন ২১৬টি। বেনজেমা অবশ্য ম্যাচ খেলেছেন অনেক বেশি। গতকাল ৪১১তম লিগ ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন বেনজেমা।

বেনজেমার সামনে এখন দুজন। একজন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। লিগে মাত্র ২৯২ ম্যাচে ৩১১ গোল তাঁর। বেনজেমার পক্ষে তাঁকে ছাড়িয়ে যাওয়া প্রায় অসম্ভব। এই মৌসুমেই নিজের সেরা সাফল্য পাচ্ছেন বেনজেমা। এই ফর্ম ধরে রাখতে পারলেও রোনালদোকে ছাড়িয়ে যেতে তিন মৌসুম এভাবে খেলে যেতে হবে তাঁকে। বেনজেমার বয়স এখন ৩৪। এরপর গোলের ক্ষুধা থাকতে পারে, কিন্তু ক্ষুধা মেটানোর ক্ষমতায় রাশ টানবে বয়স। ৩৭ বছর বয়সী রোনালদোর এই মৌসুমের পরিসংখ্যানই তা বলে দেয়।

রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে রোনালদোর সর্বোচ্চ গোলদাতার রেকর্ডের ক্ষেত্রেও সেটা প্রযোজ্য। রিয়ালের হয়ে কাল পর্যন্ত বেনজেমার গোল ৩১৮টি। ওদিকে রোনালদোর গোল ৪৫০টি। অর্থাৎ রোনালদোর ধারেকাছে যেতে আগামী তিন মৌসুমে অন্তত ৪০টি করে গোল করতে হবে বেনজেমাকে।

default-image

এর চেয়ে আরেক ক্লাব কিংবদন্তিকে ছাড়িয়ে যাওয়াটাই সহজ। ভালোবেসে যাঁর কারণে রিয়াল মাদ্রিদকে ‘রাউল মাদ্রিদ’ ডাকা হতো, সেই রাউল গঞ্জালেসের রিয়ালের জার্সিতে গোল ৩২৩টি। অর্থাৎ আর পাঁচ গোল করলেই যৌথভাবে দুইয়ে চলে আসবেন বেনজেমা। আর ছয় গোল করলে এককভাবেই। এই মৌসুমে এখনো অন্তত ৮ ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছেন বেনজেমা। এ মৌসুমে ম্যাচপ্রতি এক গোল করলেই তো রেকর্ড ছাপিয়ে আরেকটু এগিয়ে যাবেন! যে ছন্দে আছেন, তাতে ফ্রেঞ্চ স্ট্রাইকারের পক্ষে কাজটা খুব কঠিন নয়।

লিগ গোলে অবশ্য রাউলকে টপকাতে আগামী মৌসুমেই নজর দেওয়া ভালো বেনজেমার। কারণ, লিগে রাউলের গোল ২২৮টি। অর্থাৎ এই মৌসুমেই সে রেকর্ড করতে চাইলে ৬ ম্যাচে ১২ গোল করতে হবে। শেষ ১০ ম্যাচে ১৫ গোল করা বেনজেমার পক্ষেও কাজটা কঠিন।

default-image

একদিক থেকে অবশ্য রাউলকে ছাড়িয়ে গেছেন বেনজেমা। সেটা রিয়ালের জার্সিতে ম্যাচপ্রতি গোলে। রিয়ালের জার্সিতে কাল পর্যন্ত ৫৯৮ ম্যাচে ৩১৮ গোল বেনজেমার। অর্থাৎ প্রতি ম্যাচে ০.৫৩টি গোল। ওদিকে রাউলের ৩২৩ গোল ৭৪১ ম্যাচে। তাঁর ম্যাচপ্রতি গোল ০.৪৪।

এ ক্ষেত্রেও রোনালদো চূড়ায়। তাঁর ম্যাচপ্রতি গোল ১.০৩! দুইয়ে থাকা লোকটিও বেশ বিখ্যাত, ফেরেঙ্ক পুসকাস। হাঙ্গেরিয়ান কিংবদন্তি, ‘দ্য গ্যালপিং মেজর’-এর ২৪২ গোল এসেছে ২৬২ ম্যাচে, অর্থাৎ ম্যাচপ্রতি ০.৯২ গোল তাঁর। এরপর আছেন পুসকাসকেও দলের দ্বিতীয় সেরা খেলোয়াড় বানিয়ে রাখা আলফ্রেডো ডি স্টেফানো। তাঁর ৩০৮ গোল এসেছে ৩৯৬ ম্যাচে (০.৭৮)। পরের জায়গাটি আরেক গোলমেশিন হুগো সানচেজের। মেক্সিকান এই স্ট্রাইকার ৭ বছরেই ২০৮ গোল করেছিলেন। তাঁর ম্যাচপ্রতি ০.৭৪ গোলের পরই জায়গা পাচ্ছেন বেনজেমা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন