বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের পোস্টে স্পষ্ট করে উল্লেখ করেছে, যে খেলোয়াড়কে কিনতে আজ থেকে ৪ বছর আগে লিভারপুলকে গুনে গুনে ১৬ কোটি ইউরো দিয়েছিল, সে কুতিনিওকে বিক্রি করেছে মাত্র ২ কোটি ইউরোতে, ক্ষতি ১৪ কোটি ইউরোর!

সাধারণত কত টাকা দিয়ে খেলোয়াড় কেনাবেচা হলো, সে ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্লাবগুলো সেভাবে সঠিক অঙ্কটা প্রকাশ করে না। কিন্তু বার্সেলোনা কুতিনিওকে বিক্রি করার ক্ষেত্রে ও পথে হাঁটেনি। অ্যাস্টন ভিলা না বলতে চাইলেও অঙ্কটা বার্সেলোনাই ফাঁস করেছে।

ওদিকে অ্যাস্টন ভিলা জানিয়েছে, ‘অপ্রকাশিত ফি’-এর বিনিময়ে বার্সেলোনা থেকে পাকাপাকিভাবে অ্যাস্টন ভিলায় যোগ দিচ্ছেন এই মিডফিল্ডার।

সম্পর্কের সুর আসলে কেটে গিয়েছিল কুতিনিওর বার্সেলোনা যাওয়ার এক বছর পরই। হাজারো স্বপ্ন নিয়ে বার্সেলোনায় যাওয়া এই ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার কখনোই সেই ঝলক দেখাতে পারেননি, যা তাঁকে লিভারপুলে বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় বানিয়েছিল।

ফলে যা হওয়ার, তা–ই হয়েছে। একে এক বছর ধার, ওকে আরেক বছর ধার দিয়েই কুতিনিওর চুক্তির মেয়াদ শেষ করছিল বার্সেলোনা। সর্বশেষ ইংলিশ ক্লাব অ্যাস্টন ভিলায় ধারে খেলছিলেন এই ব্রাজিলিয়ান। সেখানে থাকা অবস্থাতেই নিশ্চিত হলো, এবার আর ক্ষণস্থায়ী নয়, পাকাপাকিভাবেই বিচ্ছেদ করছে বার্সেলোনা।

পরবর্তী সময় অ্যাস্টন ভিলা যদি কুতিনিওকে অন্য কোথাও বিক্রি করে, সে দলবদল ফি-র অর্ধেক যাবে বার্সেলোনার পকেটে। ২০২৬ সাল পর্যন্ত ভিলার সঙ্গে চুক্তি করেছেন কুতিনিও।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন