এভারটনের মাঠ গুডিসন পার্কের বড় পর্দায় ভেসে ওঠে মার্কাস রাশফোর্ডের ছবি।
এভারটনের মাঠ গুডিসন পার্কের বড় পর্দায় ভেসে ওঠে মার্কাস রাশফোর্ডের ছবি। ছবি: রয়টার্স

প্রতিপক্ষের মাঠে সম্মান বা শ্রদ্ধা পাওয়ার ঘটনা খুব বেশি নেই ফুটবলে। বার্সেলোনার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের মাঠে দর্শকদের কাছ থেকে আসন ছেড়ে উঠে দাঁড়ানোর শ্রদ্ধা পেয়েছিলেন কিংবদন্তি ডিয়েগো ম্যারাডোনা। রিয়ালের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে দলটির সমর্থকদের কাছ থেকে একই শ্রদ্ধা পরে পেয়েছেন ব্রাজিলিয়ান প্লেমেকার রোনালদিনিও। প্রতিপক্ষের মাঠে এমন শ্রদ্ধা পাওয়ার ঘটনার কথা এখন আর খুব বেশি শোনা যায় না।

সবাইকে বিস্ময় উপহার দিয়ে আজ এভারটনের সমর্থকেরা এর চেয়েও বড় শ্রদ্ধা জানিয়েছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ফরোয়ার্ড মার্কাস রাশফোর্ডকে। এভারটনের মাঠ গুডিসনের বড় পর্দায় ভেসে ওঠে ইউনাইটেডের জার্সি পরা রাশফোর্ডের ছবি। পাশে লেখা, ‘আপনাকে ধন্যবাদ।’ ঘটনাটি আজ এভারটনের মাঠে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ম্যাচটি শুরুর আগের মুহূর্তে।

বিজ্ঞাপন
default-image

ম্যারাডোনা বা রোনালদিনিও রিয়ালের মাঠে রিয়াল সমর্থকদের শ্রদ্ধা পেয়েছিলেন মাঠের পারফরম্যান্সের কারণে। সেই দুই ম্যাচে ম্যারাডোনা ও রোনালদিনিও এতটাই ভালো খেলেছিলেন যে মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিল রিয়ালের সমর্থকেরাও। রাশফোর্ডকে এভারটনের সমর্থকেরা শ্রদ্ধা বা অভিনন্দন জানিয়েছেন অবশ্য মাঠের বাইরের একটি কারণে। করোনাভাইরাস মহামারির সময়ে ইংল্যান্ডের স্কুলগুলো বন্ধ ছিল। বন্ধ হয়ে যায় স্কুলগুলোর ‘মিড ডে মিল’ দেওয়ার বিষয়টি।

‘মিড ডে মিল’ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়ে দেশটির হাজার হাজার দরিদ্র শিশু। বিষয়টি নিয়ে সরব হয়ে ওঠেন ইউনাইটেডের ইংলিশ ফরোয়ার্ড রাশফোর্ড। প্রথমে নেমে পড়েন সেসব শিশুদের খাবার দেওয়ার জন্য অর্থ সংগ্রহে। নিজের উদ্যোগে কাজটি করেন তিনি। সফলও হয়েছেন রাশফোর্ড। যে অর্থ উঠেছে তা দিয়ে হাজার হাজার শিশুর খাবারের ব্যবস্থা করতে পেরেছেন। এরপর কিছু না ভেবে হঠাৎ করেই মিড ডে মিল বন্ধ করে দেওয়ায় সরকারের সমালোচনাও করেন রাশফোর্ড।

default-image

রাশফোর্ডের এমন উদ্যোগের প্রশংসা অবশ্য অনেকেই করেছেন। টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয় প্রশংসার বৃষ্টিতে ভাসতে থাকেন তিনি। এবার তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রতিপক্ষ এভারটনের সমর্থকেরা। বড় পর্দায় তাঁর ছবির পাশে লিখেছে, ‘আমাদের শিশুদের জন্য কিছু বলার জন্য কাউকে দরকার ছিল। আপনি সেটা করায় আপনাকে ধন্যবাদ।’ ২৩ বছর বয়সী রাশফোর্ডকে শুধু এভারটনের সমর্থকেরাই শ্রদ্ধা জানাননি, তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছেন এভারটনের কোচ কার্লো আনচেলত্তি।

ম্যাচের আগে এক অনুষ্ঠানে ইতালিয়ান কোচ একটি নোট লিখেছেন। সেটি এ রকম, ‘আমি শুনেছি, আমাদের সমর্থকেরা মার্কাস রাশফোর্ডকে তাঁর অসাধারণ ভূমিকার জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছে। সে এটা নিশ্চিত করতে চেয়েছে যে তাঁর দেশে যেন কোনো শিশু না খেয়ে থাকে। আমিও তাঁকে অভিনন্দন জানাই। আমরা ফুটবলের মানুষেরা এমন একটি অবস্থানে আছি, যাঁদের কথা অন্যরা শোনে। মার্কাস এই প্ল্যাটফর্মটা কাজে লাগিয়ে অর্থবহ ও ভালো একটা পরিবর্তন করতে চাইছে।’

বিজ্ঞাপন
default-image

রাশফোর্ডকে অভিনন্দন জানানো এই ম্যাচে অবশ্য ইউনাইটেডের কাছে হেরে গেছে এভারটন। উলে গুনার সুলশারের দলের কাছে আনচেলত্তির এভারটনের হার ৩-১ গোলে। ম্যাচের ১৯ মিনিটে এগিয়ে গিয়েছিল এভারটনই। তবে ২৫ থেকে ৩২—এই সাত মিনিটের মধ্যে ব্রুনো ফার্নান্দেজের জোড়া গোলে স্কোরলাইন ২-১ করে ইউনাইটেড। ফার্নান্দেজের দ্বিতীয় গোলটিতে সহায়তা করেছেন রাশফোর্ড। দলের ৩ নম্বর গোলটি এদিনসন কাভানির। এ মৌসুমেই পিএসজি থেকে ইউনাইটেডে নাম লেখানো উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের প্রথম গোল এটি। গোলটিতে সহায়তা করেছেন ফার্নান্দেজ।

মন্তব্য পড়ুন 0