বিজ্ঞাপন

বেলজিয়ামের ইতিহাসে সর্বোচ্চসংখ্যক ম্যাচ খেলা শীর্ষ পাঁচ খেলোয়াড়ই আছেন এবার ইউরোয়—ইয়ান ভার্টোগেন (১২৭), অ্যাক্সেল উইটসেল (১১০), টবি অল্ডারউইল্ড (১০৯), এডেন হ্যাজার্ড (১০৭) ও দ্রিস মের্তেনস (৯৮)। শনিবার রাশিয়ার বিপক্ষে ‘বি’ গ্রুপ থেকে বেলজিয়াম দলে খেলার সুযোগ পেলে দেশের হয়ে শততম ম্যাচ খেলার পথে আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবেন নাপোলি ফরোয়ার্ড মের্তেনস।

অভিজ্ঞতার কথা যেহেতু উঠলই, এবার ইউরোয় আরও ১৯ জন খেলোয়াড় আছেন যাঁদের দেশের হয়ে ম্যাচসংখ্যা এক শ ছাড়িয়ে গেছে। পর্তুগালের হয়ে ১৭৫ ম্যাচের ঝুলি নিয়ে অভিজ্ঞতার এ মিছিলে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো নেতৃত্ব দিচ্ছেন সর্বাগ্রে। গোলসংখ্যায়ও তাঁর ধারেকাছে কেউ নেই।

১০৪ গোল করা রোনালদো আর মাত্র ৬ গোল পেলেই আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড গড়বেন। তখন তাঁর পেছনে পড়বেন ইরানের আলী দাইয়ি। রোনালদো এরই মধ্যে ইউরোর মূল পর্বে সর্বোচ্চ ২১ ম্যাচ খেলার রেকর্ড গড়া ফুটবলার। এটি হবে দেশের হয়ে তাঁর ইউরোপসেরা হওয়ার পঞ্চম অভিযান।

default-image

৩৬ বছর বয়সী রোনালদো এবার ইউরোয় সবচেয়ে বেশি বয়সী ফুটবলার নয়। ২০১০ বিশ্বকাপে দারুণ গোলকিপিং করে নেদারল্যান্ডসকে ফাইনালে তুলেছিলেন মার্টেন স্টেকেলেনবার্গ। খেলেছেন ২০১২ ইউরোর গ্রুপ পর্বেও।

কিন্তু এরপর চার বছর ছিলেন না জাতীয় দলে। ২০১৬ সালে ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব দিয়ে ফেরেন জাতীয় দলে। এরপর আবারও জায়গা হারান।

গত মার্চে নেদারল্যান্ডস কোচ ফ্রাঙ্ক ডি বোয়ের ৩৮ বছর বয়সী এ গোলরক্ষককে ফিরিয়ে আনেন জাতীয় দলে। সবকিছু ঠিক থাকলে আয়াক্সের হয়ে লিগজয়ী স্টেকেলেনবার্গ-ই হতে যাচ্ছেন এবার ইউরোয় সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড়।

ইউরোর ইতিহাসে চল্লিশোর্ধ্ব বয়সে খেলার কীর্তিও অবশ্য আছে। তিনিও গোলকিপার, হাঙ্গেরির গাবোর কিরালি (২০১৬)।

default-image

সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড়ের কথা তো হলো। এবার সবচেয়ে কম বয়সীর প্রসঙ্গে আসা যাক—পোল্যান্ডের ১৭ বছর বয়সী মিডফিল্ডার কাসপার কাসৎপার কসওফোস্কি। এবার ইউরোয় তিনিই হতে যাচ্ছেন সবচেয়ে কম বয়সী ফুটবলার।

এবারের টুর্নামেন্টে দুজন ১৭ বছর বয়সী ফুটবলারকে দেখা যাবে, ইউরোপসেরা এ টুর্নামেন্টে এর আগে কখনো দেখা যায়নি। অন্য খেলোয়াড়টি ইংল্যান্ডের জুড বেলিংহাম। ২৯ জুন ১৮ বছরে পা রাখবেন তিনি। কসওফোস্কির ১৮ বছরে পা রাখতে রাখতে অক্টোবর চলে আসবে।

দল বিচারে গড়ে সবচেয়ে কম বয়সী ফুটবলারদের নিয়ে মাঠে নামবে স্পেন। তাদের স্কোয়াডের গড় বয়স ২৪.৫ বছর। সুইডেনের অবস্থান ঠিক তার উল্টো। এবার ইউরোয় স্পেন যদি হয় সবচেয়ে কম বয়সী ফুটবলারদের দল, সুইডেন তাহলে সবচেয়ে বেশি বয়সী—গড় বয়স ২৯.২ বছর। সবচেয়ে কম বয়সী অধিনায়ক স্কটল্যান্ডের ২৭ বছর বয়সী লেফটব্যাক অ্যান্ড্রু রবার্টসন।

default-image

চ্যাম্পিয়নস লিগের সর্বশেষ ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল চেলসি ও ম্যানেচস্টার সিটি। এ দুটি ক্লাব থেকে এবার ইউরোয় সর্বোচ্চ ১৫ জন করে খেলোয়াড় অংশ নেবেন। ১৪ খেলোয়াড় নিয়ে দুইয়ে বায়ার্ন মিউনিখ।

এদিকে ইংল্যান্ড তাদের ২৬ জনের স্কোয়াডে ২৩ জনই বেছে নিয়েছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ থেকে। এবার ইউরোয় ঘরোয়া লিগ থেকে এত খেলোয়াড় নেওয়ার নজির নেই আর কোনো দেশের। সিরি ‘আ’ থেকে ইতালি নিয়েছে ২২ খেলোয়াড়। রাশিয়াও নিজেদের লিগ থেকে নিয়েছে ২২ খেলোয়াড়। ওদিকে ফিনল্যান্ড ও স্লোভাকিয়া ঘরোয়া লিগ থেকে একজন করে খেলোয়াড় বেছে নিয়েছে।

ইতালি-তুরস্ক ম্যাচ দিয়ে আজ বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় শুরু হচ্ছে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন