default-image

গতকাল তুরিনোর বিপক্ষে এসি মিলানের জয়ে কোনো অবদান রাখতে হয়নি ইব্রাহিমোভিচকে। নেমেছেন ৮৫ মিনিটে, প্রথমার্ধের দুই গোলের অগ্রগামিতা ধরে রেখেই মাঠ ছেড়েছে মিলান। তবু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচনাটা ইব্রাকে নিয়েই।

চল্লিশে পা রেখেছেন তিন মাস হয়ে গেছে, এখনো যে দাপটে খেলছেন তাতে বিস্ময় দিন দিন বাড়ছেই। কাল মাঠে নামার আগে সবার চোয়াল আরেকটু ঝুলিয়ে দিলেন। গা গরম করছিলেন, পাশে কোচিং স্টাফকে দেখেই করলেন এক কাণ্ড। দাঁড়িয়ে থাকা কোচিং স্টাফের মাথার ওপর দিয়ে ঘুরিয়ে আনলেন পা। সেটা যে আচমকা হয়ে যায়নি সেটা বোঝাতে আবার ওদিক থেকে এদিকে নিলেন পা।

অবশ্য তায়াকান্দো জানা ইব্রার জন্য এ আর এমন কী? এমএলএসে থাকার সময় 'শাওলিন সকার' গোল করে দেখানো ইব্রাকে তাই আবার জাতীয় দলে দেখতে চান দেয়ান কুলুসেভস্কি। সুইডেনের হয়ে ২০১৬ সালে সর্বশেষ খেলা ইব্রাকে অবসর ভেঙে জাতীয় দলে ফেরার অনুরোধ জানিয়েছেন জুভেন্টাস স্ট্রাইকার।

বিজ্ঞাপন

গতকাল সাসসুয়েলোর বিপক্ষে ৩-১ গোলে জয় পেয়েছে জুভেন্টাস। প্রথমার্ধে পাওলো দিবালার বদলি নামা কুলুসেভস্কি গোল পাননি, তবে দলের জয় দেখেই তৃপ্ত ২০ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড। ম্যাচ শেষে জুভেন্টাসের জার্সিতে অনেক দিন খেলার আশার কথা জানিয়ে বলেছেন, ‘যখন নেমেছি মাথায় শুধু একটা চিন্তাই কাজ করছিল, ম্যাচ জিততে হবে। আরও ভালো করতে পারতাম কিন্তু পয়েন্ট পেয়েছি এতেও খুশি।’

নিজের চেয়ে ইব্রাহিমোভিচকে নিয়ে বেশি কথা বলতে দেখা গেছে কুলুসেভস্কিকে। স্বদেশির গুণমুগ্ধ এই স্ট্রাইকারের আশা সামনের ইউরোতে আবার জাতীয় দলের জার্সি গায়ে চাপাবেন ইব্রা, ‘আমার আদর্শ তিনি। তিনি যা করছেন, সেটা করার মতো খেলোয়ড় বিশ্বে খুব কমই আছেন। তিনি আমার প্রশংসা করলেই এত গর্ব হয় যে পরদিন অনুশীলনে আরও বাড়তি পরিশ্রম করি। আমি আসলেই আশা করি তিনি ইউরোতে সুইডেনের হয়ে খেলবেন। আমার জন্য, পুরো সুইডেনের জন্য ব্যাপারটা দারুণ হবে। ইব্রা, চলে আসুন!’

default-image

বহুদিন পর এসি মিলানকে ইতালিয়ান ফুটবলের শীর্ষে দেখা যাচ্ছে। জুভেন্টাসের চেয়ে সাত ও ইন্টার মিলানের চেয়ে তিন পয়েন্টে এগিয়ে আছে মিলান। লিগে ১০ গোল করেছেন ইব্রাহিমোভিচ। এমন এক ফরোয়ার্ডকে জাতীয় দলে আবার দেখার।

সুইডেনের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতাও মিইলান স্ট্রাইকার। ১১৬ ম্যাচে ৬২ গোল করা ইব্রার জাতীয় দলে ফেরা ব্যাপারটা অবশ্য অত সহজ নয়। ২০১৬ ইউরোর পর জাতীয় দল থেকে অবসর নিয়ে ফেলেন ইব্রা। দলের নতুন কোচ ইয়ান অ্যান্ডারসন তাঁকে ছাড়াই ২০১৮ বিশ্বকাপে নিয়ে যান দলকে। পরে ইব্রা বিশ্বকাপের জন্য ফিরতে চাইলেও সে প্রস্তাব উড়িয়ে দিয়েছিলেন কোচ অ্যান্ডারসন। কদিন আগেও অবশ্য নতুন করে জাতীয় দলে ফেরার ইচ্ছা আকারে–ইঙ্গিতে জানিয়েছেন এই স্ট্রাইকার, ‘সত্যি বলতে, আমি জাতীয় দলে খেলা মিস করি। এটা গোপন কিছু না। যারা জাতীয় দলে খেলার তাগিদ অনুভব করে না, তাদের ক্যারিয়ার শেষ হয়ে গেছে। আমার ক্যারিয়ার এখনো শেষ হয়নি।’

বিজ্ঞাপন
default-image

তাঁকে ছাড়া এবারও আরেকটি প্রতিযোগিতায় (ইউরো) জায়গা করে নিয়েছে সুইডেন। কোচ অ্যান্ডারসন এবার অবশ্য ইব্রাকে ফেরানোর ব্যাপারে এত অনাগ্রাহী নন। তবে তাঁকে পরিষ্কার করে ইচ্ছার কথা জানতে বলেছেন, ‘আমি খুবই বিরক্ত। ২০১৬ সালে আমাকে বলল সে অবসর নিতে চায় এবং আমি তার সিদ্ধান্তকে সম্মান দিয়েছি। এখন সিদ্ধান্ত নেওয়ার পালা তার। সে যদি জাতীয় দলের অংশ হতে চায় আবার, মত পাল্টাতে চায়, ওকে পরিষ্কারভাবে বলতে হবে। তখন আমি সিদ্ধান্ত নেব এ ব্যাপারে।’

দেশের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতাকে দলে ফেরানোর ব্যাপারে সরাসরি আগ্রহ না দেখালেও মিলানে এই দীর্ঘদেহী ফরোয়ার্ডের অবদান যে তাঁর চোখে পড়েছে সেটা স্বীকার করে নিয়েছেন অ্যান্ডারসন, ‘যদি বলি আমি বিস্মিত হয়েছি (দলে ফেরার ইচ্ছায়) তাহলে মিথ্যা বলা হবে। মাথে এখনো যে ক্ষুধা নিয়ে নামে, যাই করে সেটাই এত উচ্চ মানের যে আমি মুগ্ধ এবং চমকিত। সে দারুণ অ্যাথলেট, অনেক বড় ব্যবধানেই সুইডেনের সর্বকালের সেরা খেলোয়াড়, যা করে সেটা দুর্দান্ত, আমি শুধু তাঁকে অভিনদন জানাতে পারি।’

বল এখন ইব্রাহিমোভিচের কোর্টে। বরাবরই হেয়ালি করা এই স্ট্রাইকারের এখন ঝেড়ে কাশার ইচ্ছা হলেই হয়।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন