মেসিরা দারুণ সুযোগ হারিয়েছেন।
মেসিরা দারুণ সুযোগ হারিয়েছেন। ছবি: টুইটার

রিয়াল মাদ্রিদের মাঠে হারটা বাদ দিলে লিগে আগের ২২ ম্যাচে হারেনি বার্সেলোনা। গ্রানাদার বিপক্ষে নিজেদের মাঠে আজ যখন নামছিলেন মেসিরা, সামনে সমীকরণটা ছিল – জিতলেই লিগের শীর্ষে উঠে যাবেন।

কিন্তু এই মৌসুমে শিরোপার লড়াইয়ে একের পর এক টুইস্ট দেখানো লা লিগা সেটি হতে দিল না। পিছিয়ে পড়েও বার্সার মাঠ থেকে ২-১ গোলের জয় নিয়ে গেল গ্রানাদা! ক্যাম্প ন্যু-তে প্রথম এই জয়ে শুধু তো নিজেদের ইতিহাসই গড়েনি, উড়তে থাকা বার্সার ডানাও যেন ছেঁটে দিয়েছে গ্রানাদা!

default-image

গ্রানাদা জিতে আগামী মৌসুমের ইউরোপা লিগে খেলার স্বপ্ন তো বাঁচিয়ে রাখলই, পাশাপাশি সবচেয়ে বড় উপকারটা করে দিয়ে গেছে আতলেতিকো মাদ্রিদ ও রিয়াল মাদ্রিদের। কেন? তা বলবে পয়েন্ট তালিকা।

বিজ্ঞাপন

জিতলে শীর্ষে উঠে যাওয়ার হাতছানি নিয়ে মাঠে নামা বার্সা এই হারে এখন ৩৩ ম্যাচে ৭১ পয়েন্ট নিয়ে আছে লিগের পয়েন্ট তালিকার তিন নম্বরে। সমান ম্যাচে সমান পয়েন্ট রিয়াল মাদ্রিদের, কিন্তু মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে থাকায় বার্সার চেয়ে এগিয়ে দুই নম্বরে জিনেদিন জিদানের দল। ৩৩ ম্যাচে ৭৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আতলেতিকো। চার নম্বরে থাকা সেভিয়াও আছে শিরোপাদৌড়ে, ৩৩ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ৭০।

default-image

আগামী ৮ মে ক্যাম্প ন্যু-তে আতলেতিকোর বিপক্ষে খেলবে বার্সা। একই দিনে সেভিয়ার সঙ্গে খেলবে রিয়াল মাদ্রিদ। সে দিনটাই হয়তো গড়ে দেবে লা লিগার শিরোপাভাগ্য।

নিজেদের মাঠে আজ ৮২ শতাংশ বলের দখল ছিল বার্সার, শট নিয়েছে ১৬টি। যেখানে গ্রানাদা শট নিয়েছে ৫টি। কিন্তু ২৩ মিনিটে লিওনেল মেসির গোলে এগিয়ে গেলেও দ্বিতীয়ার্ধে কিছুটা গা এলিয়ে দেওয়ার বড় মূল্য দিতে হয়েছে রোনাল্ড কোমানের দলকে।

৬৩ মিনিটে দারউইন মাচিস ও ৭৯ মিনিটে হোর্হে মলিনার গোলে মলিন মেসিদের মুখ। ম্যাচে ৬৭ মিনিটে লাল কার্ড দেখেন বার্সা কোচ রোনাল্ড কোমান।

ম্যাচের শুরু থেকে দাপট বার্সারই ছিল। ৯ মিনিটে আলবার শট অল্পের জন্য পোস্টে ঢোকেনি, ১৯ মিনিটে গ্রিজমানের দূরপাল্লার শট ঠেকিয়ে দেন গ্রানাদা গোলকিপার এসকান্দেল। কিন্তু ২৩ মিনিটে মেসিকে আর আটকাতে পারেননি।

default-image

আক্রমণের শুরুটা মেসিকে দিয়েই। গ্রিজমানের দিকে পাস বাড়িয়ে নিজে সামনে এগিয়ে যান মেসি। এক খেলোয়াড়কে কাটিয়ে গ্রিজমান আবার থ্রু বাড়ান মেসির দিকে। গোলকিপারকে দর্শক বানিয়ে বল জালে পাঠালেন বার্সা অধিনায়ক, এবারের লিগে মৌসুমে ২৬তম বারের মতো।

বিজ্ঞাপন

এর দুই মিনিট পরই অবশ্য গ্রানাদাকে গোলের সুযোগ যেন ‘উপহার’ দিয়েছে বার্সা। মাঝমাঠে বুসকেতসের কাছ থেকে বল কেড়ে নেয় গ্রানাদা, কিন্তু এরেরার শটটাতে গতি ঠিকঠাক ছিল না। উল্টো দিকে ৩৬ মিনিটে ঝাঁপিয়ে পড়ে মেসিকে গোলবঞ্চিত করেন গ্রানাদা গোলকিপার।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই দুদিকে চাঞ্চল্য। প্রথমে গ্রিজমানের শট ডানদিকের পোস্ট ঘেঁষে গেল, এরপর পিকে দারুণ ডিফেন্ডিংয়ে বাঁচালেন বার্সাকে। কিন্তু ধীরে ধীরে ম্যাচে দারুণভাবে ফিরে আসা গ্রানাদা সমতায় ফিরল অল্প কিছুক্ষণ পরই।

default-image

অস্কার মিঙ্গেসা আর রাইটব্যাক সের্হি রবার্তো ঠিকভাবে সামলাতে পারেননি গ্রানাদার আক্রমণভাগকে, তার সুযোগ নিয়ে ৬৩ মিনিটে সমতা ফেরান মাচিস। এর চার মিনিট পর তো কোমান লাল কার্ড দেখলেন।

আরও বড় ধাক্কা বার্সা খেল ৭৯ মিনিটে। বাঁদিক থেকে আসা ক্রসে দারুণ হেডে জালে জড়ান মলিনা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন