আনসু ফাতির চোট বিপাকে ফেলে দিয়েছে বার্সাকে।
আনসু ফাতির চোট বিপাকে ফেলে দিয়েছে বার্সাকে।ছবি: টুইটার

অনেক কোচই ঘন ঘন ম্যাচ খেলা নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন এই মৌসুমে। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন লিভারপুলের ইয়ুর্গেন ক্লপ, ম্যানচেস্টার সিটির পেপ গার্দিওলা, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ওলে গুনার সুলশার ও পিএসজির টমাস টুখেল। তাঁদের কথা হলো, করোনাভাইরাসের কারণে অনেক দিন বন্ধ থাকা ফুটবলের ক্ষতি পোষাতে আমরা বেশি বেশি খেলছি ঠিকই, কিন্তু এটা করতে গিয়ে খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিচ্ছি না মোটেও। তাঁদের এই শঙ্কাটা যে মোটেও অমূলক নয়, সেটাই যেন প্রমাণ করলেন তিন ইউরোপীয় পরাশক্তির তিনজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। লিভারপুলের রাইটব্যাক ট্রেন্ট আলেক্সান্ডার-আরনল্ড, বার্সেলোনার আনসু ফাতি ও রিয়াল মাদ্রিদের ফেদেরিকো ভালভার্দে—এ সপ্তাহে প্রত্যেকেই ভিন্ন ভিন্ন চোটে পড়ে মাঠের বাইরে চলে গেছেন।

সবচেয়ে বড় ক্ষতিটা হয়েছে বার্সেলোনার, সেটি আনসু ফাতির চোটে। আতোয়ান গ্রিজমান, ফিলিপ কুতিনিওর অনিয়মিত ফর্ম ও লুইস সুয়ারেজ চলে যাওয়ার কারণে বার্সা যে বিপদে পড়েছিল, তরুণ ফাতি নিজের পারফরম্যান্স দিয়েই নিজেকে দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ করে তুলেছিলেন। বয়স কম হলেও কোচ তাঁর ওপর আস্থা রাখছেন অনেক, খেলাচ্ছেন নিয়মিত। আর এটাই কাল হয়ে দাঁড়াল যেন। সেদিন রিয়াল বেতিসের বিপক্ষে খেলতে নেমে আলজেরিয়ান ডিফেন্ডার আইসা মান্দির বাজে এক ট্যাকলের শিকার হয়ে চোটে পড়লেন। প্রথমার্ধের আর মাঠেই নামতে পারেননি। পরে বার্সা জানায়, বাঁ পায়ের অভ্যন্তরীণ মিনিসকাস ছিঁড়ে গেছে এই তরুণ তারকার। চোটটা সুবিধার নয়, সেটি কারও অজানা ছিল না। এই চোট এর আগে বেশ কয়েকজন ফুটবলারকেই তিন থেকে চার মাসের জন্য মাঠের বাইরে চলে যেতে হয়েছে। লেগেছে অস্ত্রোপচার। ফাতিও এর ব্যতিক্রম নন। তাঁরও অস্ত্রোপচার লেগেছে, অন্তত পাঁচ মাসের জন্য মাঠের বাইরে চলে গেছেন তিনি।

default-image
বিজ্ঞাপন

ওদিকে সেদিন ভ্যালেন্সিয়ার কাছে ৪-১ গোলে হারাটাই রিয়াল মাদ্রিদের জন্য একমাত্র খারাপ সংবাদ ছিল না। কোচ জিনেদিন জিদানের চিন্তা বাড়িয়ে মাঠের বাইরে চলে গেছেন নির্ভরযোগ্য মিডফিল্ডার ফেদেরিকো ভালভার্দে। জানা গেছে, তাঁর ডান হাঁটুর নিচের হাড় ভেঙে গেছে। মাঠের বাইরে থাকতে হবে অন্তত এক মাস। এ কারণে রিয়াল তো বটেই, ঝামেলায় পড়বে তাঁর দেশ উরুগুয়েও। কলম্বিয়া ও ব্রাজিলের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের দুটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে খেলতে পারবেন না জাতীয় দলের হয়ে। এমনিতেই কাসেমিরো করোনায় আক্রান্ত হয়ে মাঠের বাইরে, এখন ভালভার্দেও খেলতে পারবেন না মাসখানেক। রক্ষণাত্মক মিডফিল্ডার হিসেবে জিদান এবার কাকে খেলাবেন, সেটাই দেখার বিষয়।

default-image

মাসখানেকের জন্য মাঠের বাইরে চলে গিয়েছেন লিভারপুলের ইংলিশ রাইটব্যাক ট্রেন্ট আলেক্সান্ডার-আরনল্ডও। সেদিন ম্যানচেস্টার সিটির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র হওয়া ম্যাচে ৬০ মিনিটে চোটে পড়ে মাঠ থেকে উঠে গিয়েছিলেন এই তারকা। এমনিতেই ভার্জিল ফন ডাইক ও ফাবিনিওর মতো তারকারা চোটে, এবার আলেক্সান্ডার-আরনল্ডও তাঁদের সঙ্গী হয়ে ইয়ুর্গেন ক্লপকে নতুন যন্ত্রণায় ফেলে দিলেন। এই চোটে কারণে লিগের অন্তত তিন ম্যাচ খেলতে পারবেন না আলেক্সান্ডার-আরনল্ড। এ ম্যাচ তিনটি লেস্টার সিটি, ব্রাইটন ও উলভসের বিপক্ষে। এমনকি চ্যাম্পিয়নস লিগে আতালান্তা ও আয়াক্সের বিপক্ষে দুই ম্যাচেও থাকবেন না এই রাইটব্যাক।

মন্তব্য পড়ুন 0