default-image

স্প্যানিশ দৈনিক মার্কা জানাচ্ছে, নরউইচের বিপক্ষে এই হ্যাটট্রিকে নিশ্চিত হয়ে গেছে, রোনালদো ‘বোনাস’ হিসেবে আরও ৮ লাখ ৫০ হাজার পাউন্ড পাচ্ছেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা কত দাঁড়ায়? ৯,৬৭,০০,৯৩৬ টাকারও বেশি! খটোমটো লাগছে সংখ্যাটা? দশ কোটিই ধরে নিতে পারেন!

মার্কা জানাচ্ছে, গতকালের হ্যাটট্রিকে মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ২১ গোল হয়ে গেছে রোনালদোর। ক্যারিয়ারে টানা ১৬তম মৌসুমে ২০ গোল বা তার বেশি হলো তাঁর। তা এবার ২০ গোলের মাইলফলক পেরোনোর পুরস্কার? মার্কার হিসাবে, ২০ গোল হতেই সাড়ে ৭ লাখ পাউন্ড ‘বোনাস’ বরাদ্দ হয়ে গেছে রোনালদোর নামে। চুক্তি অনুযায়ী, ২০-এর পর প্রতি গোলের জন্য ১ লাখ পাউন্ড করে পাবেন রোনালদো, অর্থাৎ হ্যাটট্রিক পূর্ণ করতেই ‘বোনাস’ হিসেবে তাঁর ব্যাংক একাউন্টে আরও ১ লাখ পাউন্ড ঢোকা নিশ্চিত হয়ে গেছে।

এখন থেকে মৌসুমের শেষ পর্যন্ত ইউনাইটেডের জার্সিতে প্রতিটি গোলের জন্যই এভাবে ১ লাখ পাউন্ড করে পাবেন রোনালদো। বাংলাদেশি মুদ্রায়? ১ কোটি ১৩ লাখ টাকারও বেশি! একেকটা গোলেই কোটি টাকা! ঘরোয়া কাপ ও চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে আগেই বাদ পড়া ইউনাইটেডের মৌসুমে আর ম্যাচ বলতে শুধু লিগে ছয়টা ম্যাচই আছে।

এক হ্যাটট্রিকে আরেকটা বিশেষ কীর্তি এই যে, বয়স ৩০ পেরোনোর পর এটি রোনালদোর ৩০তম হ্যাটট্রিক। বয়স ৩০ হওয়ার আগেও হ্যাটট্রিক কতটি ছিল তাহলে? ঠিক ৩০টিই! কী আশ্চর্য সমতা!

তা ২০ গোলের মাইলফলক পেরোতেই সাড়ে সাত লাখ ঢুকেছে তাঁর ব্যাংক একাউন্টে, বাকি ছয় ম্যাচে আরও ৯ গোল করে যদি মৌসুমে ৩০ গোলের মাইলফলক পেরিয়ে যান রোনালদো? প্রতি গোলের জন্য ১ লাখ পাউন্ড করে ৯ লাখ তো পাবেনই, পাশাপাশি ৩০ গোলের মাইলফলক পেরোলে বোনাস হিসেবে পাবেন আরও ২৭ লাখ ৫০ হাজার পাউন্ড। বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩১ কোটি ৩০ লাখ টাকা ‘মাত্র!’

এখানেই শেষ নয়। এই মূহূর্তে মৌসুমে ইউনাইটেডের সর্বোচ্চ গোলদাতা রোনালদো যে মৌসুম শেষেও ক্লাবের সর্বোচ্চ গোলদাতাই হবেন, সেটি নিশ্চিত। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা ব্রুনো ফার্নান্দেজের গোল যে ৯টি! তা মৌসুম শেষে সর্বোচ্চ গোলদাতা হলে সেখানেও বোনাস পাবেন রোনালদো, যদিও এতক্ষণে অনেক বড় বড় অঙ্ক দেখতে দেখতে সেই অঙ্কটাকে ‘কিছুই না’ মনে হতে পারে—১ লাখ পাউন্ড!

অবশ্য বিজ্ঞাপনী চুক্তি থেকে বিলিয়ন পাউন্ডে আয় করা রোনালদোর কাছে এসব অঙ্ক তো হাতখরচের মতোই! সেসব বাদ দিয়ে বরং রোনালদোর এই হ্যাটট্রিকের কীর্তিগুলো নিয়েই কথা বলা যায়। এক হ্যাটট্রিকেই যে কত কীর্তি হয়ে গেছে তাঁর!

এই হ্যাটট্রিকটা রোনালদোর ক্যারিয়ারের ৬০তম, যার মধ্যে ক্লাব ফুটবলে এটি ৫০তম। হ্যাটট্রিকের পথে তৃতীয় গোলটি রোনালদো করেছেন ফ্রি-কিকে! ক্যারিয়ারে ফ্রি-কিক থেকে তাঁর ৫৮তম গোলটিতে ঘুচেছে প্রায় দুই বছরে গড়ানো ফ্রি-কিকে গোলের খরা। এর আগে ফ্রি-কিকে রোনালদোর গোল দেখা গিয়েছিল সেই ২০২০ সালের ৪ জুলাই, তখনো জুভেন্টাসেই ছিলেন রোনালদো।

এই এক হ্যাটট্রিকে আরেকটা বিশেষ কীর্তি এই যে, বয়স ৩০ পেরোনোর পর এটি রোনালদোর ৩০তম হ্যাটট্রিক। বয়স ৩০ হওয়ার আগেও হ্যাটট্রিক কতটি ছিল তাহলে? যোগ-বিয়োগের সহজ অঙ্ক, ঠিক ৩০টিই! কী আশ্চর্য সমতা! রোনালদোর অবশ্য এই সমতা বিশেষ পছন্দ হচ্ছে না বলেই মনে হতে পারে। পর্তুগিজ মহাতারকার ইনস্টাগ্রাম পোস্ট তো সেরকমই ভাবতে বাধ্য করে, ‘৩০-এর আগে ৩০ হ্যাটট্রিক, ৩০-এর পরেও ৩০টি। এই ভারসাম্যটা বদলানোর সময়ও এসেছে!’

বদলটা হলে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের খরচ আরেকটু বাড়বে আর কি! তবে অনেক তৃপ্তি এনে দেওয়া এই হ্যাটট্রিকগুলোর জন্য এই অল্প খরচে মোটেও কষ্ট হবে না ইউনাইটেডের, সে নিশ্চিত।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন