বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

রোনালদোর ফেরা উপলক্ষে কাল ম্যানচেস্টারে ছিল সাজ সাজ রব। হাতেগোনা কয়েকজন সমর্থক ছাড়া কাল ওল্ড ট্রাফোর্ডের গ্যালারিতে আসা ৭৬ হাজার দর্শকের সবাই এসেছিলেন রোনালদোর সাত নম্বর জার্সি পরে। পুরো ম্যাচ জুড়েই রোনালদোর নামে গান পেয়েছে তারা। রোনালদোও এর প্রতিদান দিয়েছেন জোড়া গোল করে। স্মরণীয় করে রেখেছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে নিজের নতুন পথচলার শুরুটাকে।

রোনালদো নিজেই বলেছেন, এমন অভিষেক তিনি কল্পনা করতে পারেননি। এমন আনন্দের এক দিনেই কি না লেভেল আপ কালির দাগ লাগিয়ে দিল রোনালদোর শরীরে! ইংলিশ দৈনিক ডেইলি মেইল অবশ্য এমন কিছুর আভাস আগেই দিয়েছিল। তারা লিখেছিল, কিছু নারীবাদী সংগঠন রোনালদোর অভিষেকের দিনে তাঁর বিরুদ্ধে অবস্থান নেবে। ২০০৯ সালের জুনে লাস ভেগাসে রোনালদো তাঁকে ধর্ষণ করেছিলেন বলে যে অভিযোগ করেছিলেন মায়োরগা, সে ইস্যুতেই সরব হয়েছে এই সংগঠনগুলো। রোনালদো এ ব্যাপারে সব সময়ই নিজেকে ‘নিরপরাধ’ বলে দাবি করেছেন।

default-image

মায়োরগা দাবি করেছেন, এ ঘটনা প্রকাশ না করার শর্তে তাঁকে ২ লাখ ৭০ হাজার পাউন্ডও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এই ঘটনা চেপে রাখতে রাখতে গিয়ে ‘মানসিকভাবে বিপর্যস্ত’ হয়ে পড়েছিলেন। ব্যাপারটি আর মেনে নিতে পারছিলেন না বলে সংবাদমাধ্যমের কাছে মুখ খোলেন মায়োরগা।

নতুন করে তদন্ত শুরু হলেও সেটা ২০১৯ সালে আবার থেমে যায়। ‘সন্দেহাতীতভাবে দোষী এটা প্রমাণ করা যাচ্ছে না’ বলে মামলা আর চালিয়ে না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় পুলিশ। কিন্তু মায়োরগা হাল ছাড়েননি। নতুন করে ৫ কোটি ৬০ লাখ পাউন্ডের ক্ষতিপূরণ মামলা করেছেন রোনালদোর বিপক্ষে। সে মামলা এখনো চলছে।

default-image

মায়োরগার দাবি, ঘটনা প্রকাশ না করার চুক্তিতে যখন সই করেছিলেন, তখন ‘মানসিকভাবে সুস্থ’ ছিলেন না। ওদিকে রোনালদোর আইনজীবীরা স্বীকার করেছেন, এমন একটা চুক্তি হয়েছে, তবে সেটা কোনোভাবেই ‘অপরাধ স্বীকার করে নেওয়ার প্রমাণ’ নয়। ফলে নারীবাদী সংগঠনগুলো এ ব্যাপারে রোনালদোর নিরপরাধ দাবি ঠিক গ্রহণ করতে রাজি নয়। তাই ম্যাচের আগে অপ্রীতিকর কিছু ঘটার আশঙ্কায় ম্যানচেস্টারের বিভিন্ন কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করা হয়েছিল।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন