default-image

ম্যাচের সপ্তম মিনিটে কর্নার থেকে আসা বল শুরুতে ক্লিয়ার করে দেন ভিক্টর লিন্ডেলফ। কিন্তু একেবারে বিপদমুক্ত করতে পারেননি। বল চলে যায় আতলেতিকোর ব্রাজিলিয়ান লেফট ব্যাক রেনান লোদির পায়ে। তিনি ক্রস তুলেন ইউনাইটেডের বক্সের দিকে। দৌড়ে এসে নেওয়া জোয়াও ফেলিক্সের হেড বাঁ পোস্টে লেগে ঢুকে যায় গোললাইনের ভেতরে। চ্যাম্পিয়নস লিগে নিজের ২০তম ম্যাচে এটা ফেলিক্সের সপ্তম গোল, হেডে এই প্রথম।

মাঝমাঠে স্কট ম্যাকটমিনের দম ও শক্তি কিছুটা মিস করেছে ইউনাইটেড। ফ্রেডেরও অবশ্য দমের অভাব নেই। তবে ম্যাকটমিনে এর সঙ্গে যে শারীরিক ফুটবলটা যোগ করেন, সেখানেই ফ্রেডের কিছুটা ঘাটতি।

default-image

ওদিকে আতলেতিকোর মাঝমাঠ পুরোটাই যেন নিয়ন্ত্রন করেছেন জিওফ্রে কনডগবিয়া। মধ্য আফ্রিকার এই সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার ইউনাইটেডের পল পগবাকে খেলতেই দেননি। শুধু পগবাই নয়, ফ্রেড-ব্রুনো ফার্নান্দেজকেও দারুণ ভাবে বশে রেখেছিলেন কনডগবিয়া, ইউনাইটেড খেলা গুছিয়ে তোলার আগেই নষ্ট করেছেন। তাঁকে পেরিয়ে যাওয়া অসম্ভব হয়ে গিয়েছিল রালফ রাংনিকের শিষ্যদের জন্য।

মাঝমাঠ থেকে বারবার ফিরে আসলে নিচ থেকে স্ট্রাইকারদের জন্য লম্বা পাস বাড়াতে হয়। প্রথমার্ধে সেই কাজটাই করতে পারেননি ইউনাইটেড খেলোয়াড়েরা। ছোট পাসে খেলতে গিয়ে বারবার বাধায় পড়েছেন। উল্টো বিরতির ঠিক আগে আগে আরেকটা গোল খেতে বসেছিল ইউনাইটেড। কপাল ভালো তাদের, আতলেতিকোর ফুলব্যাক সিমে ভিসালকোর হেড ফিরে আসে ক্রসবারে লেগে।

default-image

বিরতির পর মাঠে নেমেও আতলেতিকো কিছুটা চেনা কৌশলেই খেলেছে। নিচে নেমে রক্ষণ জমাট করে রাখা, এবং প্রতিআক্রমনের অপেক্ষা করা। তবে ৬৬ মিনিটে একসঙ্গে তিন পরিবর্তন করে ইউনাইটেডের খেলায় কিছুটা ধার ফেরান কোচ রাংনিক। রাইট ব্যাক হিসেবে খেলার দুঃসহ যন্ত্রনা থেকে লিন্ডেলফকে মুক্তি দিয়ে মাঠে নামানো হয় অ্যারন ওয়ান-বিসাকাকে, রক্ষণে বাঁ পাশে লুক শর বদলে নামেন অ্যালেক্স তেল্লেস, মাঝমাঠে পগবার বদলে নেমানিয়া মাতিচ।

ম্যাচের মোড় ঘুরানো পরিবর্তনটা অবশ্য রাংনিক করেন ৭৫ মিনিটে, মার্কাস রাশফোর্ডের বদলে অ্যান্থনি এলাঙ্গাকে নামিয়ে। নামার পাঁচ মিনিটের মধ্যেই ব্রুনো ফার্নান্দেজের পাস থেকে রক্ষণচেরা এক শটে সমতা ফেরান ১৯ বছর বয়সী এলাঙ্গা। ইউনাইটেডের জার্সিতে তাঁর চেয়ে কম বয়সে চ্যাম্পিয়নস লিগে গোল আছে শুধু ওয়েইন রুনি, ম্যাসন গ্রিনউড, ডেভিড বেকহাম ও ফিল জোনসের। সপ্তাহ তিনেক পরে ওল্ড ট্রাফোর্ডের ফিরতি লেগে শুরু থেকে খেলার দাবিটাএখন করতেই পারেন এলাঙ্গা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন