পর্তুগালের হয়ে খেলতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হন রোনালদো।
পর্তুগালের হয়ে খেলতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হন রোনালদো। ছবি: রয়টার্স

পর্তুগালের হয়ে খেলতে গিয়েই ঝামেলাটা বাঁধিয়েছিলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। করোনা পজিটিভ হয়ে ফিরেছিলেন তুরিনে। সাধারণত কারও শরীর করোনার সঙ্গে লড়াইয়ে কোনো ঝামেলা ছাড়াই জিতে গেলে দিন পনেরোর মধ্যে সব ঠিকঠাক হয়ে যায়। রোনালদোর মতো ফিট একজন খেলোয়াড়ও সুস্থ হবেন—এমনটা অনুমিত ছিল।

অবশেষে অনুমান সত্যি করে কাল এসেছে সুখবর। জুভেন্টাস নিশ্চিত করেছে, রোনালদো করোনামুক্ত হয়েছেন। সেটি শোনার পর থেকেই এখন রোনালদোভক্তদের অন্য অপেক্ষা শুরু হয়েছে, আগামীকাল বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় লিগে স্পেৎসিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে খেলবেন রোনালদো?

এ কয়দিন রোনালদো যে সব ম্যাচে খেলতে নামেননি সেসব ম্যাচ নিয়ে ফুটবলভক্তদের তেমন কোনো চিন্তা ছিল না। চিন্তা হোক বা হতাশা হোক, তা ছিল শুধু একটা ম্যাচ ঘিরেই। এর মধ্যেই যে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচে রোনালদোর জুভেন্টাস আর মেসির বার্সেলোনার মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল!

বিজ্ঞাপন

রোনালদো রিয়াল ছেড়ে জুভেন্টাসে আসার পর থেকেই বিশ্ব ফুটবলের এই দুই মহারথীর আর দেখা হয় না ফুটবল মাঠে। এবার সম্ভাবনা তৈরি হলেও বেরসিক করোনাভাইরাস দূরে ঠেলে রেখেছিল রোনালদোকে। রোনালদোকে ছাড়াই তাই মাঠে নামতে হয় তুরিনের বুড়িদের। দুদিন আগে রোনালদোহীন জুভেন্টাস মেসির বার্সার কাছে হেরে বসে ২-০ গোলে।

default-image

আর সেই ম্যাচ শেষের ঠিক পরদিনই ঘোষণা এল, করোনা নেগেটিভ হয়েছেন রোনালদো। ফুটবলভক্তরা তাই মাথা কুটে করোনাকে বলতেই পারেন, ‘আর দুটি দিন আগে গেলি না কেন?’

মেসির বিপক্ষে নামতে হলে ম্যাচ শুরুর অন্তত ৪৮ ঘণ্টা আগে করোনা পরীক্ষায় উতরাতে হতো রোনালদোর। সেটি হয়নি। ম্যাচ শেষ হওয়ার পরেই আবারও রোনালদোর পিসিআর পরীক্ষা করা হয়। আর সে পরীক্ষাতেই আসে সুসংবাদ। জানা যায়, রোনালদো এখন করোনামুক্ত।

সেই ১২ অক্টোবর থেকে সতীর্থদের সঙ্গে অনুশীলন করতে পারছেন না রোনালদো। একাই অনুশীলন করে নিজেকে ফিট রাখছেন। নেগেটিভ হওয়ার ফলে এখন আবার দলগত অনুশীলন শুরু করতে পারবেন এই পর্তুগিজ তারকা।

কিন্তু করোনার সঙ্গে লড়াইয়ের পর তাঁর শরীর ম্যাচে নেমে যাওয়ার মতো ফিট আছে? আগামীকাল স্পেৎসিয়ার বিপক্ষে জুভেন্টাসের ম্যাচের আগে আজ এ প্রশ্নটা হয়েছে জুভ কোচ আন্দ্রেয়া পিরলোর সংবাদ সম্মেলনেও। পিরলোর কথা অবশ্য খুব একটা আশা জাগায় না, ‘দ্বিতীয় সোয়াব পরীক্ষায় ওর নেগেটিভ এসেছে। আজকে সকালে ও ব্যক্তিগত অনুশীলন শুরু করেছে।’

তবে পিরলো একটু সম্ভাবনা জাগিয়ে রাখলেন। শুধু একাদশে রোনালদো থাকবেন না নিশ্চিত করেছেন, ‘ও দলের সঙ্গে থাকবে। আমার মনে হয় না ওকে শুরু থেকে খেলাতে পারব।’

বিজ্ঞাপন

তার মানে বদলি হিসেবে নামার সম্ভাবনা আছে রোনালদোর? হয়তো! তবে পিরলো কিছু নিশ্চিত করেননি। শুধু তাত্ত্বিক কথাগুলোই বললেন জুভ কোচ, ‘গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হচ্ছে ওকে দলে পাওয়া। ও এতদিন বাড়িতে অনুশীলন করে গেছে। ও আমাদের সঙ্গে থাকাটা আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ।’

রোনালদোকে পাওয়া জুভেন্টাসের জন্য কত গুরুত্বপূর্ণ, তা নিয়ে সংশয় সামান্যই। রোনালদো করোনা পজিটিভ হওয়ার পর থেকেই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে জুভেন্টাস। সিরি আ-তে টানা দুই ম্যাচ ড্র করেছে, দুটিই অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল ক্রোতোনে ও হেল্লাস ভেরোনার বিপক্ষে। লিগে ৫ ম্যাচ শেষে ৯ পয়েন্ট নিয়ে লিগের পয়েন্ট তালিকার পাঁচ নম্বরে ছিল জুভেন্টাস, শীর্ষে থাকা এসি মিলানের পয়েন্ট ৫ ম্যাচে ১৩।

ওদিকে চ্যাম্পিয়নস লিগে বার্সেলোনার বিপক্ষে তো হেরেই বসেছে। রোনালদো ফেরার পর এখন যেন আক্রমণভাগে আবারও সেই আগের ফর্ম ফিরে আসে, এটাই এখন জুভেন্টাসভক্তদের কামনা।

মন্তব্য পড়ুন 0