বিজ্ঞাপন

শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়েই মাঠে নামতে হয় রিভার প্লেটকে। ২০১৪ বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠা আর্জেন্টিনা দলের সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার এনজো পেরেজ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়ে মাঠের বাইরে ছিলেন তিনি। রিভার প্লেট কোচ মার্সেলো গ্যালার্দো ৩৫ বছর বয়সী পেরেজের হাতে গোলকিপিং গ্লাভসের তুলে দেন। মজার ব্যাপার, একজন মিডফিল্ডারকে গোলকিপার হিসেবে পেয়েও কলম্বিয়ান ক্লাবটি কিন্তু পেরেজকে তেমন সমস্যায় ফেলতে পারেনি। কোপা লিবার্তোদোরেসে চারবারের চ্যাম্পিয়ন রিভার প্লেটে খেলা পেরেজ দারুণ দক্ষতার সঙ্গে সামলেছেন এই ‘নতুন দায়িত্ব’।

default-image

ম্যাচের ৩ মিনিটে ফ্যাব্রিজিও আনজিলিয়েরির গোলে এগিয়ে গিয়েছিল রিভার প্লেট। এর ৩ মিনিট পর দ্বিতীয় গোল এনে দেন জুলিয়ান আলভারেজ। ৭৩ মিনিটে কেলভিন ওসোরিওর গোলে ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করেছিল সান্তা ফে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর পারেনি। সান্তা ফের পাঁচ খেলোয়াড়ও কোভিড পজিটিভ ছিলেন। ১৫ বছর বয়সী কলম্বিয়ান মিডফিল্ডার হোলমান ম্যাকরমিককে বদলি হিসেবে মাঠে নামিয়েছিল তারা। কোপা লিবার্তোদোরেসে এবারের সংস্করণে এখনো জয়ের মুখ দেখেনি সান্তা ফে। ৫ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে ‘ডি’ গ্রুপের শীর্ষে উঠল রিভার প্লেট।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন