default-image

বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ যৌথ বাছাইপর্বে বাংলাদেশের ম্যাচ বাকি চারটি। সেটিরই প্রস্তুতি হিসেবে ৫ আগস্ট থেকে তিন ভাগে ক্যাম্পে ওঠা শুরু হয় ফুটবলারদের। প্রথম দুই দিনে ২৪ খেলোয়াড়ের মধ্যে ১৮ জন করোনা শনাক্ত হওয়ায় মাত্র ৫ খেলোয়াড় যোগ দিতে পেরেছিলেন গাজীপুরের ক্যাম্পে। তবে আজ বিশ্বনাথ ঘোষ ছাড়া করোনা শনাক্ত হওয়া সবাইকে ক্যাম্পে ডেকে পাঠানো হয়েছে।

এ ছাড়া আজ শেষ ভাগে ক্যাম্পে যোগ দিয়েছেন ৬ ফুটবলার। যদিও সবার করোনা পরীক্ষা করানো হলেও ফল পাওয়ার আগেই ক্যাম্পে নেওয়া হয়েছে তাঁদের। আজকের তালিকা থেকে অসুস্থতার কারণে ক্যাম্পে যোগ দেননি শুধু নাবীব নেওয়াজ। গাজীপুরের সারাহ রিসোর্টে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ক্যাম্প। আপাতত করোনা ‘পজিটিভ’-‘নেগেটিভ’ আলাদা করে আলাদা রাখা হবে তাঁদের। করোনা আক্রান্ত খেলোয়াড়েরা থাকবেন আইসোলেশনে।

তবে সহসাই দলের সঙ্গে যোগ দিতে পারছেন না অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। বর্তমানে ডেনমার্কে অবস্থান করছেন জামাল। করোনা ভাইরাসের কারণে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা থাকায় এ মাসে বাংলাদেশে আসার সম্ভাবনা নেই জামালের। তবে সহসাই ক্যাম্পে যোগ দিতে পারেন প্রথমবারের মতো জাতীয় দলে ডাক পাওয়া ফিনল্যান্ড প্রবাসী তারিক রায়হান কাজী। প্রবাসী এই দুই ফুটবলারের ঢাকায় আসা প্রসঙ্গে আজ অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় দল ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, ‘ডেনমার্ক থেকে জামালের এশিয়ান অঞ্চলে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আছে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত। এর পরে সে ক্যাম্পে যোগ দেবে। তারিক কাজী ক্যাম্পে যোগ দিতে পারে ১৯ আগস্ট।’

৮ অক্টোবর দেশের মাটিতে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে স্থগিত হয়ে থাকা বাছাইপর্ব শুরু করবে বাংলাদেশ। আফগানিস্তান ছাড়াও দেশের মাটিতে ভারত (১২ নভেম্বর) ও ওমানের (১৭ নভেম্বর) বিপক্ষে খেলবেন জামালরা। অন্য ম্যাচটি কাতারের বিপক্ষে দোহায় ১৩ অক্টোবর। চার ম্যাচ খেলে এক পয়েন্ট নিয়ে ‘ই’ গ্রুপের তলানিতে আছে বাংলাদেশ।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0