default-image

এই তো ২০১৯ সালের অক্টোবরে কলকাতায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ফুটবল বাছাইয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ম্যাচটা উত্তেজনার পারদ চড়িয়েছিল। এক গোলে এগিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত ম্যাচ ড্র করেছিল বাংলাদেশ। সে ম্যাচের উত্তেজনার রেশ দুই বাংলাতেই ছিল বেশ কয়েক দিন। তবে মাঠের বাইরে দুই দেশের দুই জাতীয় দলের ফুটবলারের মধ্যে প্রকাশ পেয়েছে উষ্ণ সম্পর্ক।

হাঁটুর চিকিৎসার জন্য বর্তমানে কলকাতায় অবস্থান করছেন বাংলাদেশ জাতীয় দল ও আবাহনীর স্ট্রাইকার নাবিব নেওয়াজ। শনিবার কলকাতার একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচার হয়েছে নাবিবের। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বর্তমানে হোটেলে আছেন তিনি। অস্ত্রোপচারের শুরু থেকে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করা থেকে শুরু করে হোটেলে থাকা পর্যন্ত নাবিবের দেখভাল করছেন ভারতীয় জাতীয় দলের ডিফেন্ডার প্রীতম কোটাল।

বিজ্ঞাপন
default-image

পশ্চিমবঙ্গের ছেলে প্রীতম ২০১৫ সাল থেকে ভারতীয় দলের নিয়মিত মুখ হলেও বাংলাদেশের বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচটি খেলা হয়নি তাঁর। সে ম্যাচে রাইটব্যাক হিসেবে খেলানো হয়েছিল রাহুল ভেকেকে। মোহনবাগানের ডিফেন্ডার কোটালের আতিথেয়তায় মুগ্ধ নাবিব, ‘আমি তো কলকাতায় কাউকে নিয়ে আসিনি। প্রীতম কোটালই আমার খোঁজখবর নিচ্ছে। শুরু থেকেই চিকিৎসকের সঙ্গে ও–ই যোগাযোগ করেছে। অপারেশনের দিন আমার সঙ্গে দেখা করে গিয়েছে। আবার অপারেশনের পরদিনও এসেছিল। ও আমাকে অনেক সহযোগিতা করছে।’

ভারতীয় এই ডিফেন্ডার ছাড়াও স্থানীয় পরিচিত এক ভাই তাঁকে সহযোগিতা করছেন বলে জানিয়েছেন নাবিব। তবে দেশ থেকে সঙ্গে কাউকে না নিয়ে যাওয়ায় আফসোস করছেন আবাহনীর এই ফরোয়ার্ড। অস্ত্রোপচার শেষে কত কিছুরই না প্রয়োজন অনুভূত হয়। রাতে পায়ে ব্যথা হয়, জ্বরও আসে। সব সময় তাঁকে দেখভাল করার মতো কেউ নেই।

শঙ্কা তৈরি হয়েছে আরও একটি। দেশে ফিরবেন কীভাবে? ২১ তারিখে আকাশপথে ঢাকায় ফেরার টিকিট চূড়ান্ত ছিল তাঁর। কিন্তু লকডাউন বাড়ানোর ঘোষণা আসায় দেশে ফেরা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়ে গিয়েছেন নাবিব, ‘আমার তো ২১ এপ্রিল টিকিট কাটা আছে। কিন্তু আজ শুনলাম লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়ানো হবে। এখন কীভাবে দেশে ফিরব, বুঝতে পারছি না।’

মন্তব্য করুন