চোট পেয়ে মাঠেই বসে পড়েন নেইমার। ছবি: এএফপি
চোট পেয়ে মাঠেই বসে পড়েন নেইমার। ছবি: এএফপি

চ্যাম্পিয়নস লিগে কাল ইস্তাম্বুল বাশাকশেহিরকে ২-০ গোলে হারিয়েছে পিএসজি। জয় পেলেও স্বস্তি পাচ্ছেন না পিএসজি কোচ টমাস টুখেল। দলের সবচেয়ে বড় তারকা নেইমার কুঁচকিতে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন ২৬ মিনিটে। ম্যাচ শেষে শঙ্কার কথাই জানিয়েছেন টুখেল।

পিএসজিতে যাওয়ার পর থেকে চোট নেইমারের জন্য নতুন কিছু না। পিএসজিতে প্রথম দুই মৌসুমে ভুগেছেন মেটাটারসাল হাড়ের চোটে। বাশাকশেহিরের মাঠে কাল নিজ থেকেই মাঠ ছাড়ার ইঙ্গিতটা কোচকে দেন নেইমার। অগত্যা ব্রাজিল তারকাকে মাঠ থেকে তুলে নেন টুখেল। খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে মাঠ ছাড়েন নেইমার। পাবলো সারাবিয়াকে নেইমারের বদলি হিসেবে মাঠে নামান টুখেল। চ্যাম্পিয়নস লিগে এতে গোলখরা পাঁচ ম্যাচে গড়াল নেইমারের। তবে গোল না পাওয়ার চেয়ে তাঁর দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠা নিয়েই বেশি আগ্রহ থাকবে পিএসজি কোচের।

বিজ্ঞাপন
default-image

জয়ের পর ‘আরএমসি স্পোর্ট’কে টুখেল বলেন, ‘তাকে তুলে নেওয়া দরকার ছিল। এখন আমাদের পরীক্ষার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। তেমন ভয়ানক ব্যথা নয়, তবে সে মোটেও স্বস্তি বোধ করছিল না। ঠাসা সূচির কারণে সে কয়েক ম্যাচ নাও খেলতে পারে। তবে এই মুহূর্তে কিছুই নিশ্চিত করে বলতে পারছি না।’ নেইমারের চোট কোথায় এবং কত মারাত্মক—এ প্রশ্নের জবাবে টুখেল জানান, ‘ঊরুর (নিচে) মাংসপেশিতে। আশা করি চোটটা যেন মারাত্মক না হয়। কাল পরীক্ষার পর জানা যাবে।’

নেইমার দ্রুত মাঠ ছাড়লেও ময়েজ কিনের জোড়া গোলে জয় তুলে নেয় পিএসজি। এ মৌসুমে ছয় ম্যাচে দুই গোলের সঙ্গে ছয়টি গোল বানিয়েছেন নেইমার। আগামী ১০ দিনের মধ্যে তিনটি ম্যাচ খেলবে পিএসজি—লিগ ওয়ানে খেলবে নঁতে ও রেঁনের বিপক্ষে। চ্যাম্পিয়নস লিগে রয়েছে লাইপজিগের বিপক্ষে ম্যাচ। স্বাভাবিকভাবেই এ তিন ম্যাচ ঘিরে নেইমারের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছে পিএসজি।

default-image

গত মৌসুমে চোটের কারণে লিগে ১০ ম্যাচে খেলতে পারেননি নেইমার। পিএসজিকে ফাইনালে তোলার আগে এ প্রতিযোগিতায় মাঠের বাইরে ছিলেন ৪ ম্যাচ। এ মৌসুমে শুধু চোট নয়, ভাগ্যটাও সহায় হচ্ছে না নেইমারের। সংক্রমিত হয়েছিলেন করোনাভাইরাসে। লিগে পিএসজির প্রথম ম্যাচে খেলতে পারেননি। এরপর মার্শেইয়ের বিপক্ষে উত্তাপের ম্যাচে লাল কার্ড দেখে নিষেধাজ্ঞায় ছিলেন দুই ম্যাচ। আন্তর্জাতিক বিরতির পরও এক ম্যাচে পিএসজির হয়ে মাঠে নামতে পারেননি। গত সপ্তাহে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে অবশ্য পুরো সময় মাঠে ছিলেন নেইমার। তাঁর ফিটনেস নিয়ে দুশ্চিন্তা থাকবে টুখেলের।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0