বার্সেলোনার বিমানবন্দরে নামার পর থেকেই সংবাদকর্মী-আলোকচিত্রীদের আকর্ষণের কেন্দ্রে হোর্হে মেসি (বাঁয়ে)।
বার্সেলোনার বিমানবন্দরে নামার পর থেকেই সংবাদকর্মী-আলোকচিত্রীদের আকর্ষণের কেন্দ্রে হোর্হে মেসি (বাঁয়ে)। ছবি: রয়টার্স

বহুল আলোচিত বৈঠকটা ঠিক কখন?

সোজা কথায়, কেউ জানে না। তবে লিওনেল মেসির বাবার সঙ্গে বার্সেলোনার বৈঠকটা যে আজই হবে সে খবর জানিয়েছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘এল চিরিঙ্গিতো’। হোর্হে মেসি আজ স্থানীয় সময় বিকালে পা রেখেছেন বার্সেলোনায়। তখন থেকেই সবাই অপেক্ষায় বার্সার সঙ্গে কখন আলোচনার টেবিলে বসবেন মেসির বাবা ও তাঁর এজেন্ট হোর্হে। প্রথমে জানা গেল, বাংলাদেশ সময় রাতে হতে পারে এ বৈঠক। পরে জানা গেল, বিকালেই হবে আলোচনার মোড়কে কথা চালাচালি, যুক্তি–তর্ক। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বৈঠক এখনো শুরু হয়নি।

বিজ্ঞাপন

তবে জল্পনা–কল্পনা থেমে নেই। মেসির বাবা বার্সেলোনায় পা রাখার পর থেকেই সংবাদকর্মী ও আলোকচিত্রী পরিবেষ্টিত। বার্সায় মেসিদের পারিবারিক অফিস আছে। সেখানেই সময় কাটিয়েছেন হোর্হে মেসি। সঙ্গে ছিলেন তাঁর বড় ছেলে রদ্রিগো। স্পেনে লিওনেল মেসির পারিবারিক ও অন্যান্য বিষয় দেখাশোনা করেন রদ্রিগো। পারিবারিক অফিসে আইনজীবীদের সঙ্গে দুপুর পর্যন্ত আলোচনা সেরেছেন হোর্হে। দুপুরে রদ্রিগোকে নিয়ে তিনি ঢুঁ মেরেছেন ইতালিয়ান রেঁস্তোরায়। সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে এর মধ্যে বার্সেলোনা সভাপতি হোসে মারিয়া বার্তোমেউয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়নি মেসির বাবার।

বিজ্ঞাপন

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘মুন্দো দেপোর্তিভো’ জানিয়েছে, স্থানীয় সময় দুপুর ১.৫৫ মিনিটের আগ পর্যন্ত পারিবারিক অফিসেই ছিলেন মেসির বাবা। অফিস থেকে বের হয়ে হেঁটে এগিয়ে গিয়ে গাড়িতে ওঠেননি তিনি। সংবাদকর্মীদের এড়াতে একটু কৌশল করে পার্কিং লট থেকে গাড়ি এনে বের হয়ে যান হোর্হে মেসি। সঙ্গে ছিলেন রদ্রিগো। এরপরও অবশ্য বাবা–ছেলে সংবাদকর্মী ও আলোকচিত্রীদের এড়াতে পারেননি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ভেসে গেছে তাঁদের ছবি ও ভিডিও–তে।

বিজ্ঞাপন

মেসি-সাগার এমনই অবস্থা যে, প্রতিটি খুঁটিনাটিই এখন খবরে। স্কাই স্পোর্টসের সংবাদকর্মী গ্যারি কোটেরিল জানিয়েছেন, দুপুরে ঠিক কী কী খাবার গ্রহণ করেছেন হোর্হে মেসি ও রদ্রিগো। মেসির বাবা ও তাঁর ভাই যে রেঁস্তোরায় খাবার খেয়েছেন সেখান থেকে ভিডিও প্রতিবেদনে তথ্যগুলো জানান কোটেরিল। দুপুরের খাবার ইতালিয়ান রিগাতোনি পাস্তা দিয়ে শুরু করেন তাঁরা। এরপর গারলিক পারমেজান, ট্রাফল, বেকড এগ দিয়ে খাবার শেষ করেন বাবা–ছেলে। সঙ্গে পানি তো ছিলই। তবে কোনোরকম পানীয় গ্রহণ করেননি তাঁরা। কোটেরিলের ভাষায়, ‘কোনো ওয়াইন ছিল না। অর্থাৎ উদ্‌যাপনের মতো কিছু এখনো ঘটেনি।’

বিজ্ঞাপন

উদযাপন? বার্সেলোনায় মেসির বাবা এসেছেন তাঁর ছেলের ক্লাব ছাড়ার পথ সুগম করতে। বার্সার চোখে তা ‘অসম্ভব’—মানে ফ্রি-এজেন্ট হিসেবে যেতে পারবেন না মেসি। বাই আউট ক্লজের পুরো ৭০ কোটি ইউরো গুণে যেতে হবে তাঁকে। টুইটারে সংবাদকর্মীরা গুঞ্জন তুলেছেন, এই অচলাবস্থার মাঝে মেসির জন্য একটি পথ বের করতে চান হোর্হে। মানে, মেসি বার্সা ছাড়তে চান, তবে দীর্ঘদিনের ক্লাব সে জন্য কোনো টাকা-পয়সা পাবে না তেমন যেন না হয়। মাঝামাঝি একটা পথ বের করতে চান আর্জেন্টাইন তারকা।

বিজ্ঞাপন

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, বৈঠকে মেসির চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাব রাখবে বার্সা। কিন্তু মেসি বার্সা ছাড়ার সিদ্ধান্তে অটল—ছেলের এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করবেন হোর্হে মেসি। এর মধ্যে স্প্যানিশ রেডিও কাদেনা সের জানাচ্ছে, মেসি বার্সা ছেড়ে অন্য কোনো ক্লাবে গেলে তাঁকে ও তাঁর নতুন ক্লাবকে ফিফার দরবারে নেবেন বার্সা সভাপতি বার্তোমেউ। সে যা-ই হোক, মেসির বাবার খাবার–দাবার গ্রহণ তো হলো, এখন বৈঠকের লড়াই কখন শুরু হয় সেটাই দেখার বিষয়।

মন্তব্য পড়ুন 0