দুই গোলকিপারের পারফরম্যান্স ম্যাচে পার্থক্য গড়ে দিয়েছে।
দুই গোলকিপারের পারফরম্যান্স ম্যাচে পার্থক্য গড়ে দিয়েছে।ছবি: প্রথম আলো

শীতের রাতেও বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে ফুটবল ঘিরে একদল দর্শকের সেকি উন্মাদনা! বল নিজেদের দলের খেলোয়াড়ের পায়ে পড়তেই সমর্থকদের উল্লাস। ম্যাচে গোল হওয়ার পর যে উল্লাস বেড়েছে বহুগুণ। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের সিনথেটিক ট্র্যাকে আজ দিনভর চলেছে ৪৪তম জাতীয় অ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতা। অ্যাথলেটদের ইভেন্ট শেষ হতেই জ্বলে ওঠে স্টেডিয়ামের ফ্লাডলাইট। আর সেই আলোর ঝলকানিতে প্রিমিয়ার লিগের প্রথম ম্যাচে জ্বলে উঠেছে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র।

আজ লিগে নিজেদের প্রথম জয় তুলে নিয়েছে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র, ব্রাদার্স ইউনিয়নকে হারিয়েছে ২-১ গোলের ব্যবধানে। শেখ রাসেলের গোল দুটি করেছেন মোহাম্মদ আবদুল্লাহ ও জিয়ানকার্লো লোপেজ রদ্রিগেজ। ব্রাদার্সের একটি গোল করেছেন সিও জুনাপিও।

সদ্য শেষ হওয়া ফেডারেশন কাপে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছে ব্রাদার্স। গ্রুপ পর্বের তিন ম্যাচে ব্রাদার্স হজম করে ১১ গোল। ফেডারেশন কাপের প্রথম ম্যাচে আরামবাগের কাছে ২-০ গোলে হেরেছিল ব্রাদার্স। সাইফ স্পোর্টিংয়ের কাছে বিধ্বস্ত হওয়া ম্যাচে ৬-১ গোলে হেরেছিল। সর্বশেষ উত্তর বারিধারার কাছে হার ছিল ৩-০ গোলের ব্যবধানে।

বিজ্ঞাপন

ব্রাদার্সের রক্ষণভাগ যে কতটা ভঙ্গুর, তা মৌসুমের সূচনাসূচক টুর্নামেন্টেই বোঝা গেছে। তবে আজকের হারে ডিফেন্ডারদের চেয়ে বেশি দায় ব্রাদার্স গোলরক্ষক মহিউদ্দিন রানুর। গোপীবাগের ক্লাবটি দুটি গোলই যে হজম করেছে মহিউদ্দিনের দোষে।

default-image

ম্যাচের প্রথম গোলটি হয়েছে ১৩ মিনিটের মাথায়। মাঝমাঠ থেকে আসা বল অহেতুক বক্সের বাইরে এসে মুঠোবন্দী করেন মহিউদ্দিন। বক্সঘেঁষা জায়গায় ফ্রি–কিক পেয়ে যায় শেখ রাসেল। আর ওই ফ্রি–কিক থেকে বাঁকানো শটে গোল করেন আবদুল্লাহ। বলটা শূন্যে ভেসে ক্রসবারে লেগে ঢোকে জালে।

তিন মিনিট পর আবার ব্রাদার্স গোলরক্ষক মহিউদ্দিন জায়গা ছেড়ে বেরিয়ে আসেন, এবারও সেই ভুলের খেসারত দিয়েছে তাঁর দল। গোল খেয়েছে ব্রাদার্স। মাঝমাঠ থেকে বখতিয়ার দুশোবেকভের লম্বা থ্রো জায়গা ছেড়ে ক্লিয়ার করতে এগিয়ে আসেন মহিউদ্দিন। কিন্তু বলটা তো ক্লিয়ার করতে পারেনইনি, উল্টো বল তাঁর হাতে লেগে মাথার ওপর দিয়ে ঢুকে যাচ্ছিল জালে। একেবারে শেষ মুহূর্তে দৌড়ে এসে বলটিতে মাথা বাড়িয়ে দেন শেখ রাসেলের ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড লোপেজ।

অবশ্য গোল শোধে মরিয়া ব্রাদার্স ততক্ষণে ভালোভাবেই আক্রমণে উঠেছে। ম্যাচের ২৭ মিনিটে একটা চমৎকার সুযোগ পেয়েও গোল করতে পারেননি ব্রাদার্স ফরোয়ার্ড আরিফুল ইসলাম। সামনে তখন শুধুই শেখ রাসেলের দ্বিতীয় গোলরক্ষক সবুজ দাস। কিন্তু তড়িঘড়ি করে বলটা সবুজের হাতে মারেন আরিফুল।

এমনিতেই আজ জাতীয় দলের গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলামকে খেলাননি শেখ রাসেলের কোচ সাইফুল বারী। করোনা হয়েছে শঙ্কায় গত চার দিন অনুশীলন করছেন না দলের প্রধান গোলরক্ষক। করোনা টেস্ট করাতে দিয়েছেন তিনি। কিন্তু এখনো করোনার ফল হাতে পাননি। আশরাফুলের অভাবটাও টের পাওয়া গেছে ম্যাচে।

default-image

ম্যাচের ৩২ মিনিটে ব্রাদার্সকে হাসির একটা উপলক্ষ এনে দেন কঙ্গোর ফরোয়ার্ড সিও জুনাপিও। বক্সের মধ্যে জটলায় শেখ রাসেলের মিডফিল্ডার দিদারুল হকের হাতে বল লাগলে পেনাল্টি পায় ব্রাদার্স। পেনাল্টি থেকে ডান পায়ে গোলার মতো শটে গোল করেন জুনাপিও। এটি লিগে জুনাপিওর প্রথম গোল। এর আগে মৌসুমের প্রথম গোলটিও করেছিলেন পেনাল্টি থেকে, ফেডারেশন কাপে সাইফ স্পোর্টিংয়ের বিপক্ষে।

বিজ্ঞাপন

দ্বিতীয়ার্ধে গোল বাড়ানোর সুযোগ পেয়েও হতাশ করেছেন শেখ রাসেলের ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড লোপেজ। ৫৫ মিনিটে ফ্রি–কিক থেকে পাওয়া বলটি ব্রাদার্স গোলরক্ষক মহিউদ্দিনের সামনে দাঁড়িয়েও হেডে বাইরে পাঠালেন লোপেজ!

গোলপোস্টের নিচে অস্থির ভাবটা ম্যাচজুড়েই রইল মহিউদ্দিনের। সেই সুযোগে আরেকবার ব্যবধান বাড়িয়ে নিতে পারতেন শেখ রাসেলের ফরোয়ার্ড লোপেজ। ৭৫ মিনিটে বল ধরতে গিয়ে জায়গা ছেড়ে বেরিয়ে আসেন মহিউদ্দিন। তাঁকে ফাঁকি দিয়ে ততক্ষণে ফাঁকা পোস্টে বল নিয়ে এগিয়ে গেছেন লোপেজ। কিন্তু বলের নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেননি। কোনাকুনি শট নিলে হয়তো গোল হতেও পারত। ততক্ষণে ব্রাদার্সের দুই ডিফেন্ডার সামনে এসে গোলপোস্ট আগলাতে ব্যস্ত। আর বলটি লোপেজ নিজে শট না নিয়ে বাড়িয়ে দেন খালেকুজ্জামানকে। কিন্তু তিনিও গোল করতে পারেননি! বল গেছে মাঠের বাইরে।

ম্যাচের শেষ মিনিটে সমতায় ফেরানোর দারুণ সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি ব্রাদার্স। বক্সের বাইরে থেকে জোরালো এক শট নেন মোহাম্মদ সুজন, শটটি ক্রসবারে লেগে ফেরে। কিন্তু সেই ফিরতি বল হেড করেন জুনাপিও। বলটি ভালোভাবেই মুঠোবন্দী করেন শেখ রাসেল গোলরক্ষক সবুজ দাস। স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে মাঠ ছেড়েছে শেখ রাসেল।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন