রিয়ালকে আশা দেখাচ্ছে পিএসজির নতুন চুক্তি।
রিয়ালকে আশা দেখাচ্ছে পিএসজির নতুন চুক্তি।ছবি: এএফপি

রিয়াল মাদ্রিদে খেলার আগ্রহের কথা এখন আর সরাসরি বলেন না। কিন্তু একসময় স্প্যানিশ পরাশক্তিদের নিয়ে ভালো লাগার কথা সুযোগ পেলেই জানাতেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। স্পেনের ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটিও ফরাসি এই তারকাকে পাওয়ার আগ্রহের কথা জানিয়েছে বহুবার। মাঝেমধ্যেই শোনা যায় গাঁট বাঁধতে যাচ্ছে তারা। কিন্তু এরপর আর বেশি দূর এগোয় না সেই গুঞ্জন।

২০১৭ সালে স্বদেশি ক্লাব প্যারিস সেন্ট–জার্মেইতে যোগ দিয়েছেন এমবাপ্পে। ক্লাবটির সঙ্গে তাঁর চুক্তি আছে ২০২২ সালের গ্রীষ্ম পর্যন্ত। শোনা যায় রিয়ালে খেলার স্বপ্নের জন্যই পিএসজির সঙ্গে চুক্তি বাড়াচ্ছেন না তিনি। কিন্তু আর্থিকভাবে সংকটে থাকায় রিয়ালও নিতে পারছে না তাঁকে। এভাবে আর কত দিন থাকা যায়! এএসডটকমের খবর অনুযায়ী এমবাপ্পেকে নতুন চুক্তির প্রস্তাব দিয়েছেন ক্লাবের পরিচালক লিওনার্দো এবং সেই নতুন চুক্তিতে স্বাক্ষর করতে যাচ্ছেন ২২ বছর বয়সী ফরাসি তারকা।

বিজ্ঞাপন
default-image

চুক্তির মেয়াদ বাড়ালেও স্বপ্নের রিয়ালে খেলার সুযোগটি খোলা রাখছেন এমবাপ্পে। চুক্তিতে একটি বিশেষ শর্ত থাকছে। আর সে শর্তে চুক্তিতে বিশেষভাবে উল্লেখ থাকবে মাদ্রিদে খেলতে দেওয়ার সুযোগের কথা। অর্থাৎ পিএসজির সঙ্গে নতুন চুক্তিতে একটি রিলিজ ক্লজ থাকবে এমবাপ্পের। সেটি শুধু রিয়াল মাদ্রিদের জন্য। অন্য ক্লাব চেষ্টা করে পিএসজিকে রাজি করাতে না পারলেও নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ দিয়ে এমবাপ্পেকে দলে ভেড়াতে পারবে স্পেনের ক্লাবটি।

এমবাপ্পের ঘনিষ্ঠ একজনের বরাত দিয়ে এএসডটকম জানিয়েছে, এই মাসেই হতে যাচ্ছে সেই নতুন চুক্তি। নতুন চুক্তি অনুযায়ী বাৎসরিক ৩৭ মিলিয়ন ইউরো বেতন পাবেন এমবাপ্পে। বর্তমানে যা পাচ্ছেন দলের মূল তারকা নেইমার। বর্তমানে এমবাপ্পের বাৎসরিক বেতন ২১ মিলিয়ন ইউরো। নতুন চুক্তিতে নেইমারের সমান বেতন পাচ্ছেন। কিন্তু এরপরও যে স্পেনে মন পড়ে থাকবে তাঁর, সেটা এই বিশেষ রিলিজ ক্লজেই টের পাওয়া যাচ্ছে। রিয়ালের জন্য যদিও রিলিজ ক্লজটা একটু দুশ্চিন্তার কারণ হতে পারে। করোনা–পরবর্তী পৃথিবীতে অঙ্কটি হতে পারে আকাশছোঁয়া—২২২ মিলিয়ন ইউরো। এই ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরোতেই পিএসজিতে গিয়েছিলেন নেইমার।

default-image

করোনাকালীন যুগের পর এমন মোটা অঙ্কের বিনিময়ে রিয়াল মাদ্রিদ এমবাপ্পেকে দলে ভেড়াতে পারবে কি না, সে প্রশ্নটি থেকেই যায়। বর্তমানে অর্থসংকটে ভুগছে জিনেদিন জিদানের ক্লাব। বর্তমানে খেলোয়াড়দের বছরে ৪৪৮ মিলিয়ন ইউরো বেতন দিচ্ছে মাদ্রিদ। স্টেডিয়ামের সংস্কারকাজের জন্য ১০০ মিলিয়ন ইউরোর লোন নিয়েছে। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে ক্লাবের স্টাফদের ২৫ শতাংশ বেতন কর্তনের কথাও ভাবছে তারা। কিন্তু এমন ঘোর দুঃসময়েও এমবাপ্পের রিলিজ ক্লজের বিষয়টি তাদের জন্য সুসংবাদই।

আর্থিক সংকটে থাকলেও ভবিষ্যতে এমবাপ্পেকে দলে ভেড়ানোর সুযোগটি নিতেও পারে রিয়াল। কারণ, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো চলে যাওয়ার পর রিয়ালে আর বিশ্ব শাসন করার মতো তারকা নেই। রোনালদোর বিকল্প হিসেবে যে এডেন হ্যাজার্ডকে আনা, চোট নিয়ে বেশির ভাগ সময় মাঠের বাইরেই থাকতে হয় তাঁকে।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন