বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যে বাছাইপর্ব পেরিয়ে মূল পর্বে খেলার সুযোগ পেয়েছে পাঞ্জাব, সেটা শেষ হতে হতে দলবদলের সময়সীমা পেরিয়ে যায়, যার শেষ দিন ছিল আগস্টের ৩১ তারিখ। রাজস্থান তার আগে প্রয়োজনীয় খেলোয়াড় নিবন্ধিত করে রাখেনি, উল্টো দলকে শক্তিশালী করার আশায় অনেককেই ছেড়ে দিয়েছে। ভেবেছিল, বাছাইপর্ব শেষ হতে যেহেতু দেরি হচ্ছেই, পরে বিশেষ বিবেচনায় খেলোয়াড় নিবন্ধন করতে দেবে সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন।


কিন্তু সে আশায় গুড়ে বালি। এমনকি ৩১ তারিখের আগে অপেশাদার খেলোয়াড় নিবন্ধন না করার কারণে সেসব আনকোরা খেলোয়াড়দেরও ৩১ ডিসেম্বরের আগে মাঠে নামাতে পারছে না রাজস্থান। ফলে আজ রাউন্ডগ্লাস পাঞ্জাবের বিপক্ষে ম্যাচের আগে মাঠে নামানোর জন্য ১১ জন খেলোয়াড়ই খুঁজে পাচ্ছেন না কোচ! ব্যাপারটা অনেকটা এমন, গাছে কাঁঠাল দেখে গোঁফে তেল মাখতে শুরু করার পর গাছই কাটা পড়ার দশা!

এ ব্যাপারে ক্লাবের পক্ষ থেকে দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘হিরো আই লিগের ২০২১-২২ মৌসুমে অভিষেক হচ্ছে রাজস্থান ইউনাইটেডের। এ সময় কিছু বিষয় নিয়ে ক্লাবকর্তা ও মালিকপক্ষ ধোঁয়াশা কাটাতে চায়। গত অক্টোবরে বাছাইপর্ব জিতেই আই লিগের মূল পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে রাজস্থান ইউনাইটেড। বাছাইপর্বের মৌসুম দীর্ঘায়িত হওয়ার কারণে আই লিগে সুযোগ পাওয়ার পর নতুন কোনো খেলোয়াড় সই করাতে পারেনি ক্লাবটা, কারণ, তত দিনে খেলোয়াড় নিবন্ধনের সময়সীমা পেরিয়ে গিয়েছিল। যে কারণে মূল পর্বে ওঠা যতই গর্বের হোক না কেন, আমরা ঠিকভাবে প্রস্তুতি নিতে পারিনি। শক্তিশালী দল গঠন করতে পারিনি। এমন উঁচু মানের টুর্নামেন্টে খেলার জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ দল গঠন করতে হয়। আমরা চেয়েছিলাম একদম ন্যূনতমসংখ্যক খেলোয়াড় ধরে রেখে আরও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ লিগ থেকে খেলোয়াড় আনতে। কিন্তু পেশাদার খেলোয়াড়দের দলবদলের সময়সীমা আগস্টের ৩১ তারিখে শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে (দীর্ঘায়িত বাছাইপর্বের আগেই শেষ হয়ে যায় দলবদলের সময়সীমা) আমরা নতুন কোনো পেশাদার খেলোয়াড়ও আনতে পারিনি। এর অর্থ, জানুয়ারির ১ তারিখের আগে আমরা চাইলেই নতুন কোনো খেলোয়াড় এনে নিবন্ধন করতে পারছিলাম না।’

default-image

অনিবন্ধিত খেলোয়াড় নিয়ে হলেও কেন আজ মাঠে নামছে না দলটি, সে ব্যাখ্যাও দেওয়া হয়েছে বিবৃতিতে, ‘সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন এমন সমস্যায় পড়া দলগুলোর জন্য একটা বিবৃতি প্রকাশ করে। সেখানে জানানো হয়, চাইলেই অপেশাদার ফুটবলার দিয়ে ম্যাচগুলো খেলা যাবে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু এরপর আরেকটা বিবৃতি দেওয়া হয়, যে বিবৃতিটা আমাদের পরিকল্পনায় আবারও পানি ঢেলে দেয়। সেখানে জানানো হয়, শুধু সেসব অপেশাদার খেলোয়াড়ই খেলতে পারবেন, যাঁরা ৩১ আগস্ট বা তার আগে দলের সঙ্গে নিবন্ধিত হয়েছেন। এদিকে আমরা অপেশাদার খেলোয়াড়দের নিবন্ধিত করাই ফেডারেশনের প্রথম বিবৃতির পর। ফলে রাউন্ডগ্লাস পাঞ্জাবের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে খেলার জন্য উপযুক্ত খেলোয়াড় পাওয়াটা একটা সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ম্যাচটা যেন স্থগিত করা হয় সে জন্য আমরা আরজি করেছিলাম, কিন্তু সে অনুরোধ মানা হয়নি।’


ফলে এখন হয় ম্যাচ খেলার জন্য উপযুক্ত ৯ জনকে নিয়েই মাঠে নামতে হবে, অথবা পাঞ্জাবকে ওয়াকওভার দিতে হবে, যা ৩ পয়েন্ট এনে দেবে পাঞ্জাবকে। বাংলাদেশ সময় আজ রাত আটটায় মাঠে নামবে রাজস্থান ইউনাইটেড ও রাউন্ডগ্লাস পাঞ্জাব। অভাবিত এক দৃশ্যই দেখা যাবে ম্যাচটায়!

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন