চেলসিতে কোচিংয়ে সাফল্য পেলেন না ল্যাম্পার্ড।
চেলসিতে কোচিংয়ে সাফল্য পেলেন না ল্যাম্পার্ড। ছবি: রয়টার্স

প্রথম মৌসুমে কী চমকটাই না দেখিয়েছিলেন ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড! শীর্ষ পর্যায়ে প্রথমবারের মতো কোচ হয়ে এসেছিলেন, তা-ও নিজেরই ‘ঘর’ চেলসিতে। এসেই দেখলেন, দলের সেরা খেলোয়াড় চলে যাচ্ছেন রিয়াল মাদ্রিদে। মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা, দলবদলের নিষেধাজ্ঞা জুটেছিল চেলসির। ফলে এডেন হ্যাজার্ডের বিকল্প হিসেবে কাউকেই আনা হয়নি তাঁর।

কিন্তু তরুণ এক দল নিয়েই চমক দেখালেন ল্যাম্পার্ড। দারুণ আক্রমণাত্মক ফুটবল আর তরুণ স্কোয়াডে ভর করেই দলকে শীর্ষ চারে রাখলেন। চ্যাম্পিয়নস লিগ নিশ্চিত করার পুরস্কার হিসেবে এ মৌসুমে চেলসির মালিক রোমান আব্রামোভিচ নিজের পকেট উন্মুক্ত করে দিয়েছিলেন।

করোনাকালের দলবদলেও ২০ কোটি পাউন্ড খরচ করেছে চেলসি। কিন্তু লিগের অর্ধেক পেরিয়ে যাওয়ার পরও চেলসির খেলায় অবনতির ছাপ। সে কারণে লিগ টেবিলে ৯ নম্বরে থাকা চেলসি আরও একবার কোচ ছাঁটাই করতে যাচ্ছে। ক্লাব কিংবদন্তি ল্যাম্পার্ডকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দিয়েছে লন্ডনের নীল দলটি। সে জায়গায় নেইমার-এমবাপ্পেদের ক্লাব পিএসজি থেকে বরখাস্ত টমাস টুখেলকে আনতে যাচ্ছে চেলসি, ইউরোপজুড়ে সংবাদমাধ্যম এমনটাই জানাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

দলবদলের বাজারে চেলসি ২০ কোটি পাউন্ড খরচ করার পরই ল্যাম্পার্ডকে ঘিরে শঙ্কাটা জেগেছিল। মালিক হিসেবে কখনোই খুব বেশি ধৈর্যের পরিচয় দেননি আব্রামোভিচ। এবারের দলবদলে টিমো ভের্নার, কাই হাভার্টজ, বেন চিলওয়েল, হাকিম জিয়েশ, এদুয়ার্দ মেন্ডিকে কিনে আনা হয়েছে। থিয়াগো সিলভার মতো অভিজ্ঞ এক ডিফেন্ডারকে মুফতে পেয়েছে দলটি। তবু ১৯ ম্যাচ শেষে লিগে নবম স্থানে। দশে থাকা সাউদাম্পটন নিজেদের হাতে থাকা ম্যাচটিতে জয় পেলেই টপকে যাবে চেলসিকে।

চেলসির কোচ হিসেবে ম্যাচপ্রতি ১.৬৭ পয়েন্ট পেয়েছেন ল্যাম্পার্ড। লন্ডনের ক্লাবটিতে স্থায়ীভাবে দায়িত্ব পেয়েছেন এমন কোচদের মধ্যে গত ১০ বছরে লিগে ম্যাচপ্রতি এত কম পয়েন্ট কারও ছিল না। আর সব প্রতিযোগিতা মিলে মাত্র ৫২.৪ শতাংশ ম্যাচে জয় পেয়েছেন ল্যাম্পার্ড। রোমান আব্রামোভিচ ক্লাবের মালিক হয়ে আসার পর এর চেয়ে বাজে জয়ের হার শুধু ছিল আন্দ্রে ভিল্লাস-বোয়াসের (৪৭.৫ শতাংশ)। এ কারণেই ১০ বছর পর প্রথম ইংলিশ কোচ হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বে শীর্ষস্থান নিয়ে শেষ ষোলোতে যাওয়াটাও চাকরি বাঁচাতে পারেনি ল্যাম্পার্ডের।

গত সপ্তাহে লেস্টার সিটির কাছে হারের পরই নাকি বাস্তবতা মেনে নিয়েছিলেন ল্যাম্পার্ড। সে ম্যাচের পর খেলোয়াড়দের সঙ্গে হাত মিলিয়ে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে দিয়েছিলেন। এরপর এফএ কাপে লুটন টাউনকে কাল চেলসি ৩-১ গোলে হারালেও ল্যাম্পার্ডের ভাগ্য বদলায়নি। আজ চেলসির অনুশীলনের সময় পেছানোর পরই গুঞ্জন ভারী হয়। স্থানীয় সময় দুপুর সাড়ে ১২টার অনুশীলন পিছিয়ে বেলা ২টায় নেওয়ার পরই নিশ্চিত বোঝা যায়, আজই ঘোষণা আসছে।

default-image

সে ঘোষণাও চলে এল। কিছুক্ষণ আগে দলের মালিক রোমান আব্রামোভিচই ক্লাবের কিংবদন্তির সঙ্গে সম্পর্কচ্ছেদের কথা জানিয়েছেন। রোমান আব্রামোভিচ বলেছেন, ‘ক্লাবের জন্য খুবই কঠিন সিদ্ধান্ত ছিল। কারণ, ফ্রাঙ্কের সঙ্গে আমার দারুণ ব্যক্তিগত সম্পর্ক আছে এবং আমি তাঁকে সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা করি। তিনি একজন সৎ মানুষ এবং কাজের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ নৈতিকতা দেখান। কিন্তু বর্তমান যে অবস্থা, তাতে এখন কোচ বদলানোই সেরা সিদ্ধান্ত বলে আমরা মনে করি।’

‘কোচ হিসেবে তিনি যা করেছেন, এর জন্য ক্লাব ও পরিচালকদের পক্ষ থেকে ও ব্যক্তিগতভাবে আমি তাঁকে ধন্যবাদ দিতে চাই এবং তাঁর ভবিষ্যতের সাফল্য কামনা করি। ক্লাবের খুবই গুরুত্বপূর্ণ আইকন তিনি এবং তাঁর ভাবমূর্তি এখানে অমলিন থাকবে।’

এখন পর্যন্ত যা খবর, তাতে ল্যাম্পার্ডের জায়গায় টমাস টুখেলকে আনা হচ্ছে। পিএসজি থেকে বছরের শুরুতেই ছাঁটাই হয়েছেন টুখেল। চেলসিতে তাঁর চুক্তির মেয়াদ দেড় মৌসুমের হতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে। নেইমারদের নিয়ে গত মৌসুমে পিএসজিকে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তুলেও এই মৌসুমে ব্যর্থতার দায়ে সরে যেতে হয়েছে টুখেলকে।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন