default-image

প্যাট্রিক ভিয়েরার মন খারাপ ছিল গত বেশ কিছুদিন। ২০১৮ সালে ফ্রেঞ্চ ক্লাব নিসের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছিলেন। গত ডিসেম্বরে সে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। একটু রূঢ়ভাবে বললে ছাঁটাই করা হয়েছে ভিয়েরাকে। এরপর থেকে আর নতুন চাকরিতে দেখা যায়নি তাঁকে। অবশ্য নতুন চাকরি খুঁজতে আগ্রহও দেখাচ্ছেন না খুব একটা। এ ব্যাপারে তাঁর সাবেক কোচের পরামর্শকে পাথেয় মানছেন ভিয়েরা।

নিসকে প্রথম মৌসুমেই লিগের পয়েন্ট তালিকার ৭ নম্বরে তুলে এনেছিলেন ভিয়েরা। সে সুবাদে ইউরোপা লিগেও জায়গা করে নিয়েছিল নিস। কিন্তু পরের মৌসুমেই ছন্দপতন। লিগে শুরুটা ভালো হয়নি। ওদিকে ইউরোপা থেকেও বাদ পড়েছে দল। ক্লাব কর্তৃপক্ষের আর তর সয়নি, পত্রপাঠ বিদায় করে দিয়েছে ভিয়েরাকে।

এ অবস্থায় তাঁকে সাহস জুগিয়েছেন আর্সেনালে ভিয়েরার কিংবদন্তি হওয়ার যাত্রায় যিনি ডাগআউটে ছিলেন, তিনি—আর্সেন ওয়েঙ্গার। বলেছেন, ছাঁটাই না হলে সত্যিকারের কোচ হওয়া যায় না!

বিজ্ঞাপন
default-image

২০১৬ সালে নিউইয়র্ক সিটিকে দিয়ে কোচিং ক্যারিয়ার শুরু করেছেন ভিয়েরা। আড়াই বছরে সাবেক ফরাসি মিডফিল্ডার ভালোই খেলিয়েছেন এমএলএসের ক্লাবটিকে। সে সুবাদেই নিসের চাকরি পেয়েছিলেন। কিন্তু দেড় মৌসুমে এসেই ম্যানেজার জীবনের উল্টো দিকটা দেখে ফেললেন। ডিসেম্বরে চাকরি খোয়ানোর পরই ফোন করেছিলেন ওয়েঙ্গারকে। আর্সেনালের স্বর্ণযুগে ওয়েঙ্গারের অন্যতম সেরা অস্ত্র ছিলেন। তাই নিজের হতাশার মুহূর্তে ওয়েঙ্গারের কথাই মনে পড়েছিল তাঁর।

লে’কিপের সঙ্গে কথোপকথনে ভিয়েরা বলেছেন, ‘আমি আর্সেনকে ফোন করেছিলাম। একদম শুরুতেই তিনি যেটা বলেছেন তা হলো, “যতক্ষণ পর্যন্ত তুমি ছাঁটাই না হচ্ছ, ততক্ষণ তুমি সত্যিকারের কোচ হতে পারবে না।” আর্সেনের সঙ্গে বেশ গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে—সব সময় তা-ই হয়। এই পেশায় ঢুকলে আপনাকে মেনে নিতেই হবে, কখনো না কখনো ছাঁটাই হতেই হবে।’

নিজের ভাগ্য মেনে নিয়েছেন ভিয়েরা। তবে নিসকে নিয়ে নিজের পরিকল্পনা কাজে লাগাতে না পারার দুঃখটা রয়ে গেছে তাঁর, ‘আরেকটু দেরিতে (ছাঁটাই) হলে ভালো লাগত। কিন্তু এটাই হয়েছে। আমার জন্য যেটা গুরুত্বপূর্ণ হলো, এই অভিজ্ঞতা আমাকে ভবিষ্যতে কোচ হিসেবে আরও ভালো বানাবে। আমি নিশ্চিত আমি কোচ হওয়ার জন্যই জন্মেছি।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন