ছবিতে জার্মানি-পর্তুগালের ৬ গোল

রোমাঞ্চকর? সে তো বটেই। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর গোলের পর যেন মৌচাকে ঢিল পড়ল! দুই দল মিলে এরপর একে একে ঝুলি থেকে বের করল আরও পাঁচ গোল। এই ইউরোয় এখন পর্যন্ত সেরা ম্যাচটা উপহার দিল জার্মানি-পর্তুগাল। ছয় গোলের রোমাঞ্চ ছড়ানো এ ম্যাচে শেষ পর্যন্ত জার্মানি জয়ী ৪-২ গোলে।

মিউনিখের অ্যালিয়াঞ্জ অ্যারিনায় গোলের শুরুটা করেছিল পর্তুগাল। এরপর দাপুটে ও আক্রমণের জবাবে পাল্টা আক্রমণের ফুটবল খেলে জার্মানি যেন পর্তুগালকে স্রেফ ছিড়েখুড়ে ফেলে! লাভটা হয়েছে দর্শকদের।

এমন রোমাঞ্চকর ও গোলউৎসবের ম্যাচ তো আর প্রতিদিন দেখা যায় না! আসুন দেখে নেই ম্যাচের কোন সময়ে ও কীভাবে এই ছয় গোলের উৎসব হলো।

১ / ৬
পর্তুগালের রক্ষণভাগে আক্রমণ করেছিল জার্মানি। সেখান থেকে পাল্টা আক্রমণে ম্যাচের ১৫ মিনিটে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর গোল। ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় পর্তুগাল।
ছবি: রয়টার্স
২ / ৬
পিছিয়ে পড়ার পর জার্মানির চার মিনিটের 'টর্নেডো' শুরু। ৩৫ মিনিটে বাঁ প্রান্ত থেকে আসা ক্রস 'ক্লিয়ার' করতে গিয়ে নিজেদের জালে বল জড়ার পর্তুগিজ ডিফেন্ডার রুবেন দিয়াস। ১-১ গোলে সমতায় ফেরে জার্মানি।
ছবি: রয়টার্স
৩ / ৬
সমতায় ফেরার পর ঝড় থামেনি জার্মানির। ৩৮ মিনিটে জার্মানির আক্রমণ ঠেকাতে গিয়ে আত্মঘাতী গোল করে বসেন পর্তুগিজ লেফটব্যাক রাফায়েল গুয়েরেইরো। ২-১ গোলে এগিয়ে যায় জার্মানি।
ছবি: রয়টার্স
৪ / ৬
বিরতির পর আরও ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে জার্মানি। আক্রমণের পর আক্রমণের সুবাদে ৫১ মিনিটে গোল আদায় করে নেয় তারা। রবিন গোসেনসের পাস থেকে গোল করেন জার্মান মিডফিল্ডার কাই হাভার্টজ। ৩-১ গোলে এগিয়ে জার্মানি।
ছবি: রয়টার্স
৫ / ৬
দুই গোল ব্যবধানে এগিয়ে যাওয়ার পর থামেনি জার্মান আক্রমণভাগ। এবার জশুয়া কিমিখের ক্রস থেকে ৬০ মিনিটে রবিন গোসেনসের হেডে গোল। ম্যাচসেরাও গোসেনস। ৪-১ গোলে এগিয়ে থেকে ম্যাচটা তখনই যেন নিজেদের করে নেয় জার্মানি।
ছবি : রয়টার্স
৬ / ৬
তিন গোল ব্যবধানে পিছিয়ে পড়েও ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করেছে পর্তুগাল। ৬৭ মিনিটে ডিয়েগো জোতার গোলটি সেই সুবাদেই। রোনালদোর কাটব্যাক থেকে দেওয়া পাসে গোল করেন জোতা। এরপর আর গোল পায়নি পর্তুগাল। ম্যাচটা ৪-১ গোলে জিতে নেয় জার্মানি।
ছবি: রয়টার্স