বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে ছেত্রীকে আটকানো সহজ নয়। ৩৭ বছর বয়সী স্ট্রাইকার এখনো প্রতিপক্ষের কাছে আতঙ্কের নাম। জাতীয় দলের জার্সিতে ১২০ ম্যাচে ৭৫ গোল করা ছেত্রী এবারের সাফেও ভারতের সবচেয়ে বড় ভরসা। আগামীকাল মালে জাতীয় স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু করবে ভারত।

প্রথম ম্যাচ জয়ে উজ্জীবিত জামাল ভূঁইয়ারা ভারতকে হারানোর কথাই বলছেন। অবশ্য ড্রতেও খুশি থাকবেন তাঁরা। ভারতের কাছ থেকে ১ পয়েন্ট পেলে টুর্নামেন্টের ফাইনালে ওঠার পথে ভালোভাবে টিকে থাকবে লাল–সবুজের দল। হারলে পিছিয়ে পড়তে হবে।

গত চারটি সাফে গ্রুপ পর্বই পেরোতে না পারার ব্যর্থতা ভোলেনি বাংলাদেশ। তাই এবার অন্তত ফাইনাল খেলার আশা। সেই লক্ষ্য পূরণে অনুশীলনে ঘাম ঝরাচ্ছেন নতুন কোচ। বিদায়ী কোচ জেমি ডে সাধারণত কম অনুশীলন করাতেন। ঘণ্টা খানেকও হতো না তাঁর অনুশীলন। তবে সাফের জন্য জামাল ভূঁইয়াদের অন্তর্বর্তীকালীন কোচ অস্কার ব্রুজোনের অনুশীলন কখনো কখনো দুই ঘণ্টাও পার হয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশের জন্য ভালো খবর, মিডফিল্ডার সোহেল রানা জ্বর কাটিয়ে অনুশীলনে ফিরেছেন গতকাল। ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামতে তৈরি বলেই জানালেন। ভারতকে হারানোর প্রত্যয়ও শোনা গেল তাঁর কণ্ঠে, ‘আমি এখন ভালো অনুভব করছি। কোচ একাদশে রাখলে সেরটা দিতে চাইব। ভারতের বিপক্ষে জিতলে সেটা হবে আমাদের জন্য দারুণ কিছু। আশা করি, আমরা জিততে পারব ওদের বিপক্ষে।’

কোচ ব্রুজোন একদিক থেকে এগিয়ে রাখছেন বাংলাদেশকে। বলছেন, ‘ভারতের পয়েন্ট শূন্য, বাংলাদেশের ৩। এই জায়গায় মনস্তাত্ত্বিকভাবে আমরা এগিয়ে থাকব।’ ৩ পয়েন্ট হাতে নিয়ে মাঠে নামা মনোবল বাড়াবে নিশ্চয়ই। তবে কোচ জানেন, ভালো রক্ষণ করতে না পারলে বিপদ আছে ভারত ম্যাচে।

কিন্তু গতকাল মালের টার্ফ মাঠে অনুশীলনে বাংলাদেশ দলের দুই সেন্টারব্যাক তপু বর্মণ ও তারিক কাজীকে দেখা গেল ফুরফুরে। তারিকের সঙ্গে মাঠে একপাশে দীর্ঘক্ষণ কথা বলেন বাংলাদেশ দলের সঙ্গে মালে আসা বাফুফের টেকনিক্যাল ডাইরেক্টর পল স্মলি। ছেলেদের ফুটবল দলের সঙ্গে সাধারণত দেখা যায় না স্মলিকে। বাংলাদেশ নারী দলের সঙ্গে সবখানেই ভ্রমণ করেন তিনি। এবার এলেন জাতীয় দলের সঙ্গে। কোচকে নানা পরামর্শ আর সবকিছু পর্যবেক্ষণ করা তাঁর কাজ। মেয়েদের অনুশীলনে যেমন পলিকে তৎপর দেখা যায়, ছেলেদের জাতীয় দলে তা নয়।

default-image

ব্রুজোনই সর্বেসর্বা তাঁর বাহিনীতে। তাঁকে বেশ আত্মবিশ্বাসী দেখাচ্ছে। কাল দেখা গেল সবচেয়ে বেশি জোর দিচ্ছেন অল্প জায়গায় বল নিয়ন্ত্রণের ওপর। পাসিং ফুটবলই তাঁর বেশি পছন্দ। রক্ষণে ফাঁকফোকর বন্ধ করতে কিছু টেকনিক্যাল কাজও করলেন।

শ্রীলঙ্কা ম্যাচে কোনো পরীক্ষাই দিতে হয়নি বাংলাদেশ গোলকিপার আনিসুর রহমানকে। পুরো ম্যাচ আরামে খেলেছেন বসুন্ধরা কিংসের এই গোলকিপার। তবে আগামীকাল সুনীল ছেত্রীরা পরীক্ষা নেবেন নিশ্চিত এবং প্রস্তুতই মনে হলো আনিসুরকে। অভিজ্ঞ গোলকিপার আশরাফুল ইসলামও তৈরি রাখলেন নিজেকে। বলেন, ‘ভারত ম্যাচটা সব সময়ই আমাদের কাছে ভালো খেলার প্রেরণা। আশা করি, এবার ভালো ফল হবে।’

সেই ভালো ফলের সন্ধানেই আগামীকাল বাংলাদেশ সময় বিকেল পাঁচটায় মালে জাতীয় স্টেডিয়ামে নামবেন জামাল ভূঁইয়ারা। ভারতের কাছে সাফ মানে ডালভাত টুর্নামেন্ট। এখন আর সাফ নিয়ে ভাবে না তারা। কারণ, বাংলাদেশের ফিফা র‍্যাঙ্কিং যেখানে ১৮৯, ভারতের ১০৭। স্বাভাবিকভাবে ভারত এখন নিজেদের অন্য স্তরের দল ভাবে। চোখ রাখে এশিয়ান কাপে। সাফের মতো টুর্নামেন্ট ভারতীয় কোনো প্রচারমাধ্যম এখন আর সুনীল ছেত্রীদের সঙ্গী হয় না।

default-image

ভারতীয় দল অবস্থান করছে মালে শহর থেকে একটু দূরে প্যারাডাইস দ্বীপে। যেখান থেকে প্রতিদিন ট্রলারে এসে তারা মালতে অনুশীলন করে। টুর্নামেন্ট শুরুর আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে ভারতের কেউই আসেননি। কারণ, ১ অক্টোবর তাদের ম্যাচ ছিল না। বাকি চার দলের সংবাদ সম্মেলনেই বারবার উচ্চারিত হলো ভারতের নাম। চার কোচেরই শীর্ষ ফেবারিট ভারত। নেপালের সহকারী কোচ কিরণ শ্রেষ্ঠা যেমন বলেন, ‘ভারত এই অঞ্চলের সেরা দল। সাতবার সাফ জিতেছে। এবারও তারাই ফেবারিট। তবে আমরাও ছেড়ে কথা বলব না।’

default-image

নেপাল যে কাউকে ছেড়ে কথা বলবে না, তা বুঝিয়ে দিয়েছে টুর্নামেন্টে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই স্বাগতিক মালদ্বীপকে হারিয়ে। টুর্নামেন্টটা স্বপ্নের মতো শুরু করেছে নেপাল। মালদ্বীপের বিপক্ষে সারাক্ষণ চাপে থেকেও কাজের কাজটি করেছে হিমালয়ের দেশটিই। প্রতি–আক্রমণে একমাত্র সুযোগ কাজে লাগিয়ে তুলে নিয়েছে দারুণ এক জয়।

শ্রীলঙ্কার কোচ আমির আলাগিক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিটি প্রশ্নের অনেক বড় উত্তর দেন। টুর্নামেন্টপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে প্রথম আলোর এক প্রশ্নের উত্তরে বসনিয়া হার্জেগোভিনার এই কোচ ভারতের ফুটবলীয় শক্তির নানা দিক বর্ণনা করতে শুরু করে বলেন, ‘ভারতে আইএসএল হয়। সেখানে ক্লাব ফুটবল অনেক শক্তিশালী। ভারতের জাতীয় দলও নিজেদের ভালো একটা জায়গায় নিয়ে গেছে। আমি বলব, ভারতই সাফে সবার চেয়ে এগিয়ে।’

বাংলাদেশ কোচ অস্কার ব্রুজোন মালদ্বীপ, ভারত—দুই দেশেরই ক্লাব স্তরে কাজ করেছেন। ভারত তাদের ফুটবল কাঠামোয় কতটা পরিবর্তন এনেছে, তা তিনি জানেন। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই ব্রুজোন বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলের যে মান, তাতে ভারত অন্যদের পেছন ফেলেছে বেশ আগেই। বাস্তবতা মানতে হবে এবং আমি বলব, সাফ জেতার দৌড়ে ভারত বরাবরের মতোই সবার আগে।’

অবশ্য ভারতকে আটকে দেওয়া সম্ভব। গত মাসেই নেপালের সঙ্গে দেশটির মাটিতে প্রীতি ম্যাচে ড্র করেছে ভারত। সেটা থেকে প্রেরণা নিয়ে বাংলাদেশও তৈরি হচ্ছে। সুনীল ছেত্রীকে এবার আর গোল করতে দেওয়া যাবে না—এ প্রতিজ্ঞায় নিজেকে শাণিত করছেন আন্তর্জাতিক ফুটবলে ৫ গোল করা তপু বর্মণও।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন