default-image

ইউরোপা লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে নিজেদের মাঠ ক্যাম্প ন্যু-তে আইনট্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্টের বিপক্ষে অপ্রত্যাশিতভাবে হেরে বিদায় নিয়েছেন বার্সেলোনার ছেলেরা। যে ম্যাচে স্বাভাবিকের চেয়ে ঢের বেশি ফ্রাঙ্কফুর্ট সমর্থক মাঠে গিয়ে খেলা দেখেছেন। প্রতিপক্ষ সমর্থকদের জন্য সর্বোচ্চ ৫ হাজার টিকিট রাখার নিয়ম থাকলেও সে ম্যাচে জার্মানি থেকে অন্তত ৩০ হাজার সমর্থক ক্যাম্প ন্যু-তে চলে গিয়েছিলেন। নিজগৃহেই যেন পরবাসী হয়ে গিয়েছিলেন ডি ইয়ং-অবামেয়াংরা। পরে আবিষ্কার হয়, নিজেদের টিকিট ফ্রাঙ্কফুর্ট সমর্থকদের কাছে বিক্রি করে দিয়েছিলেন অনেক বার্সা সমর্থক। বার্সেলোনার এক সমর্থক নাকি একাই ২০০০ টিকিট ফ্রাঙ্কফুর্ট সমর্থকদের কাছে বিক্রি করেছেন, এমন খবরও এসেছে!

টিকিট বিক্রি করে দেওয়ার সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা একটাই হতে পারে, মাঠে গিয়ে প্রিয় ক্লাবের ক্রমাগত ব্যর্থ হওয়া সরাসরি দেখতে চান না কেউই। যেটা আবার মেয়েদের ম্যাচের ক্ষেত্রে বলা যাচ্ছে না। মেয়েদের ম্যাচে দর্শক উপস্থিতির রেকর্ড যে প্রতিনিয়ত গড়ে চলেছে বার্সেলোনা।

default-image

কিছুদিন আগে মেয়েদের চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে ‘এল ক্লাসিকো’-তে ৯১ হাজার ৫৫৩ দর্শক ক্যাম্প ন্যু-তে গিয়েছিলেন। এর আগে মেয়েদের ম্যাচ দেখার জন্য এত বেশি দর্শক শুধু ক্যাম্প ন্যু কেন, মেয়েদের ফুটবলের কোনো পর্যায়েই হয়নি।

পরের রাউন্ডেই কাল সে রেকর্ড আবারও নতুন করে লিখেছে বার্সেলোনা। সেমিফাইনালের প্রথম লেগে কাল জার্মান ক্লাব ভলফসবুর্গের বিপক্ষে ম্যাচটি দেখতে ৯১ হাজার ৬৪৮ জন সমর্থক গেছে ক্যাম্প ন্যু-তে। রিয়াল ম্যাচের রেকর্ডের চেয়ে ৯৫ জন বেশি দর্শক! এত এত দর্শককে হতাশ করেনি বার্সেলোনা, জার্মান ক্লাবকে হারিয়েছে ৫-১ গোলে।

default-image

মেয়েরা অবশ্য খেলছেনও দুর্দান্ত। বার্সেলোনার তো বটেই, স্মরণকালের অন্যতম সেরা নারী ফুটবল দল বলা হচ্ছে এই স্কোয়াডটাকে। গতবার ফাইনালে চেলসিকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা জিতেছিল দলটা, এবারও সেই পথেই এগোচ্ছে। সর্বশেষ সাত ক্লাসিকোতে রিয়াল মাদ্রিদকে নাকানিচুবানি খাইয়েছে। সর্বশেষ ব্যালন ডি’অরের প্রথম দুই স্থানই বার্সেলোনার মেয়েদের দখলে ছিল-শিরোপা জেতেন আলেক্সিয়া পুতেয়াস, দ্বিতীয় হয়েছেন জেনিফার এরমোসো। শীর্ষ দশে আরও ছিলেন আইতানা বোনমাতি, ক্যারোলিন হানসেনরা। মজার ব্যাপার হলো, ভলফসবুর্গের বিপক্ষে গত রাতে এই চারজনের প্রত্যেকেই গোল পেয়েছেন।

দলের অবস্থা যেখানে এমন, বার্সেলোনা সমর্থকেরা খেলা না দেখে থাকেন-ই কী করে!

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন