বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গত সপ্তাহে চ্যাম্পিয়নস লিগে চেলসিকে হারিয়ে সেমিফাইনালে উঠেছে রিয়াল। দুই লেগ মিলিয়ে ৫-৪ ব্যবধানে জয় পেলেও ঘরের মাঠে ৩-২ গোলে হেরেছিল রিয়াল। নিজেদের মাঠে কোণঠাসা রিয়ালকে নিয়ে তার এক দিন পরই কথা বলেছিলেন জাভি। নিজেরা চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে ছিটকে পড়েছেন, খেলেছেন ইউরোপা লিগে।

তবু রিয়াল মাদ্রিদকে খোঁচা মারতে বাঁধেনি জাভির, ‘বার্সেলোনার ইতিহাস দেখুন। ক্রুইফ এখানে এসে ভালো খেলার একটা ভিত তৈরি করেছেন। আমাদের ভালো খেলে জিততে হয়। কাতালানরা এভাবে খেলে। মাদ্রিদের বিষয়টা আমি জানি না, তারা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। কিন্তু বার্সার গল্পটা ভিন্ন।’

এমন দম্ভ করে মাঠেও সেটা করে দেখাতে হয়। কিন্তু বার্সেলোনা ঘরের মাঠে ফ্রাঙ্কফুর্টের কাছে হেরে বসেছে। একদম প্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের মতোই ৩-২ ব্যবধানে। বার্সেলোনা প্রথম লেগে ড্র করায় বাদ পড়েছে ইউরোপা লিগ থেকে।

default-image

বার্সেলোনাকে তাই খোঁচা ফেরত দেওয়ার উপলক্ষ পেয়ে গিয়েছিলেন আনচেলত্তি। আনচেলত্তি কাল ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে অবশ্য প্রথমে নিরাপদ পথে হেঁটেছেন, ‘ভালো খেলা কথাটার মানে কী? আমার কাছে ভালো খেলার মানে বল পায়ে থাকলে ভালো করা, না থাকলেও ভালো করা। আপনি চাইলে রক্ষণেও ভালো খেলতে পারেন। আপনি যদি বল পায়ে ভালো করেন, কিন্তু রক্ষণ খারাপ করেন, তাহলে আমার মনে হয় না আপনি ভালো খেলছেন।’

জাভির অধীন বার্সেলোনা বেশ ভালো ফল পেলেও রক্ষণে দুর্বলতা রয়েই যাচ্ছে। ফ্রাঙ্কফুর্টের বিপক্ষে ইউরোপা লিগের ম্যাচে দুটি গোল রক্ষণের ভুলেই হজম করেছে দলটি।

আনচেলত্তি এ ব্যাপারে তুলনা টেনেছেন আতলেতিকো মাদ্রিদকে। চ্যাম্পিয়নস লিগেই কোয়ার্টার ফাইনালে আতলেতিকো ও ম্যানচেস্টার সিটির ম্যাচটি ট্যাকটিক্যাল দিক থেকে অনন্য ছিল। সে ম্যাচে আতলেতিকোর কৌশলের দিকটা মনে করিয়ে দিয়েছেন আনচেলত্তি, ‘ফুটবলে আক্রমণ ও রক্ষণ দুটোই আছে। একটা দল তখনই ভালো খেলে, যখন তাদের আক্রমণ আর রক্ষণ দুটোই ভালো হয়। সেটা বিভিন্নভাবে করা যায়। ম্যানচেস্টার সিটি ও আতলেতিকো মাদ্রিদের প্রথম লেগ নিয়ে অনেক বিতর্ক শুনেছি। কিন্তু আমার মনে হয়েছে আতলেতিকো খুব ভালো রক্ষণ করেছে। তারা কি বল পায়ে আরও বাড়তি কিছু করতে পারত? হ্যাঁ, কিন্তু ওদের রক্ষণাত্মক কাজ খুব, খুব ভালো হয়েছে।’

default-image

এরপর জাভিকে খোঁচা দিয়েছেন আনচেলত্তি। কী প্রসঙ্গে, সেটা জানতে হলে আবার জাভির মন্তব্যে ফিরতে হচ্ছে। গত বুধবার জাভি বলেছিলেন, বার্সেলোনা কোচের কাজটা কঠিন। কারণ, তাঁকে ভালো খেলা নিশ্চিত করতে হয়, ‘আমাদের যেমন জয় পাওয়ার বাধ্যবাধকতা আছে, তেমনি বাধ্যবাধকতা আছে ভালো খেলার। ১-০ গোলে জয় আর সেটাও ৯০ মিনিটের গোলে, এটা আমাদের এখানে চলে না। আমরা বার্সেলোনা। আমরা যেটাই করি না কেন, দুর্দান্তভাবে করি। এর কোনো তুলনা নেই। বার্সেলোনা কঠিন এক জায়গা, এখানে চাহিদা অসীম।’

আনচেলত্তি সেটাই ফিরিয়ে দিয়েছেন, বলেছেন কারও শুধু ভালো খেললেই চলে, তবে তাঁকে শিরোপা জিততে হয় তাঁর ক্লাবে, ‘সব দলের কোচিংই কঠিন। সব ক্লাবেরই নিজস্ব চাহিদা আছে—(কারও জন্য) শিরোপা জেত, (কারও জন্য) ভালো খেল, (কারও জন্য) অবনমন এড়াও। কোচিং এত সহজ না। এটা কঠিন, কিন্তু এ কাজটাই আমরা ভালোবাসি।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন