বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রিমিয়ার লিগের ১৩টি ক্লাবের মধ্যে খেলোয়াড় নেয়নি শুধু শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। সর্বোচ্চ ১৪ জন ও ১২ জন করে খেলোয়াড় নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াইয়ে নেমেছে অনলাইন বেটিংয়ের দায়ে অভিযুক্ত ব্রাদার্স ইউনিয়ন ও আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ। তিন বিদেশির সঙ্গে স্থানীয় ১১ জনকে নিয়েছে ১৩ দলের মধ্যে ১২ নম্বরে থাকা ব্রাদার্স।

জাতীয় দলের সাবেক স্ট্রাইকার জাহিদ হাসান, ডিফেন্ডার আরিফুল ইসলাম ও আতিকুর রহমানকে নিয়েছে তারা। এদের মধ্যে লিগের প্রথম পর্বে শেখ জামাল ধানমন্ডিতে খেলেছেন আরিফুল ও আবাহনীতে ছিলেন আতিকুর। সর্বশেষ মৌসুমে কোনো ক্লাবে খেলা হয়নি এমিলির। ১৫ বছর পর তাঁর পুরোনো ক্লাব ব্রাদার্সে ফেরার সঙ্গে লিগেও ফিরলেন তিনি।

default-image

তলানিতে থাকা আরামবাগ খেলোয়াড় নিয়েছে ১২ জন। তাঁদের মধ্যে আছেন উজবেকিস্তানের চার বিদেশি। সাতজন ফুটবলার নিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়াচক্র। দুই বিদেশির একজন লিগের প্রথম পর্বে বাংলাদেশ পুলিশ ক্লাবের হয়ে খেলা আইভরিকোস্টের স্ট্রাইকার বাল্লো ফামুসা। স্থানীয় যে পাঁচ ফুটবলারের নাম নিবন্ধন করেছে মুক্তিযোদ্ধা, তাঁরা এবারই প্রথম প্রিমিয়ার লিগে খেলতে যাচ্ছেন।

এক বিদেশির সঙ্গে তিন স্থানীয় ফুটবলার নিয়েছে উত্তর বারিধারা ক্লাব। একজন করে স্থানীয় ও বিদেশি নিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ ক্লাব। ইউরোপা লিগের বাছাইপর্ব খেলার অভিজ্ঞতা আছে পুলিশের নতুন আইভরিকোস্টের ফরোয়ার্ড ক্রিশ্চিয়ান কুয়াকুকের। বসুন্ধরা থেকে ছেড়ে দেওয়া রবিউল হাসান ও নতুন ক্যামেরুনের এক স্ট্রাইকার নিয়েছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। একজন করে ফুটবলার নিয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনী, রহমতগঞ্জ ও শেখ জামাল ধানমন্ডি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন