জিদানের হাত থেকে উদ্ধার পেলেন হামেস

বিজ্ঞাপন
default-image

২০১৪ বিশ্বকাপে কলম্বিয়ার হয়ে আলো ছড়ানোর পর অনেক স্বপ্ন নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদে নাম লিখিয়েছিলেন হামেস রদ্রিগেজ।

ছয় বছর পর পেছনে ফিরে তাকালে সে সুখস্মৃতি এখন বড় অচেনা বলে মনে হওয়ার কথা এই কলম্বিয়ান তারকার। রিয়ালে যে কখনই নিজেকে অবিচ্ছেদ্য হিসেবে প্রমাণ করতে পারেননি। কোচ জিনেদিন জিদানের সঙ্গে বনিবনা হচ্ছিল না বছরের পর বছর। ফরাসি কোচের কৌশলে মোটেও মানিয়ে নিতে পারছিলেন না কলম্বিয়ান প্লে মেকার।

default-image
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টাও সম্ভবত তাঁর দিক থেকে কখনো তেমন দেখা যায়নি। গত দুই মৌসুমে বায়ার্ন মিউনিখে ধারে খেলা রদ্রিগেজকে এই মৌসুমে বিক্রি করে দিতে তাই রাজি ছিল রিয়াল। কিন্তু চোট মার্কো আসেনসিওকে মৌসুমের অর্ধেকেরও বেশি সময়ের জন্য কেড়ে নেওয়ায় তাঁকে রেখে দিতে বাধ্য হন জিদান। রেখেও অবশ্য কোনো লাভ হয়নি। সব মিলিয়ে মৌসুমে ১৪ ম্যাচ খেলেছেন রদ্রিগেজ, গোল করেছেন মাত্র একটি। ফলে কোনো রকমে হামেসকে ক্লাব থেকে বের করতে পারলেই যেন শান্তি পেতেন জিদান। হামেসও চাচ্ছিলেন পাকাপাকিভাবে ক্লাব থেকে বের হয়ে গিয়ে অন্য কোথাও নতুন করে শুরু করতে।

default-image
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সে নতুন শুরু সুযোগ করে দিলেন হামেসেরই সাবেক গুরু। ইতালিয়ান কোচ কার্লো আনচেলত্তি এর আগে তাঁকে রিয়াল মাদ্রিদে নিয়ে এসেছিলেন মোনাকো থেকে, বায়ার্নের কোচ থাকার সময় রিয়াল থেকে বায়ার্নে ধারে এনেছিলেন। এবার এই আনচেলত্তিই রিয়াল থেকে এভারটনে নিয়ে গেলেন এই তারকাকে। আগের দুবার হামেসকে সই করানোর পরপরই চাকরি হারিয়েছিলেন আনচেলত্তি। এভারটনে এবার কি হয়, কে জানে! এবার এ জুটির ভাগ্য ভালো হবে কিনা, সেটা সময়ই বলে দেবে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হামেস নিজেও এভারটনের ওয়েবসাইটে আনচেলত্তির কথাই বলেছেন ইংল্যান্ডে আসার কারণ হিসেবে, 'অসাধারণ এই ক্লাবটায় আসতে পেরে আমি অনেক খুশি। ঐতিহাসিক একটি ক্লাব এটা। এখানে আমি এমন এক ম্যানেজারের হয়ে খেলব যিনি আমাকে অনেক ভালো চেনেন।'

আড়াই কোটি ইউরোর বিনিময়ে রিয়াল থেকে হামেসকে এনেছে এভারটন। তবে বেতন পাবেন রিয়ালের অর্ধেক। তা-ই সই। মাদ্রিদ ছেড়ে অন্তত মানসিক শান্তিটা থাকবে তাঁর। রিয়াল অবশ্য লাভই করছে। আড়াই কোটি ইউরোর পাশাপাশি হামেসের বেতনের ৪০ লাখ ইউরোর পুরোটাই বেঁচে যাচ্ছে।

হামেস অন্তত এসব নিয়ে ভাববেন না। এভারটনে অন্তত তাঁকে বসে থাকতে হবে না, এ বিশ্বাসটা নিশ্চয়ই রাখতে চাইবেন কলম্বিয়ান তারকা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন