জেলা ফুটবলের দায়িত্ব নিয়েছেন কাজী সালাউদ্দিন।
জেলা ফুটবলের দায়িত্ব নিয়েছেন কাজী সালাউদ্দিন।ছবি: সংগৃহীত

৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নির্বাচন। নির্বাচিতরা আজ-ই বাফুফে ভবনে প্রথম সভায় বসেছিলেন। সভায় খেলা মাঠে গড়ানোর ব্যাপারে ফলপ্রসূ কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। গঠিত হয়েছে বেশ কিছু সাব কমিটি।

বেশির ভাগ সাব কমিটিতে পুরোনো মুখ থাকলেও জেলা ফুটবলের দায়িত্ব নিজের হাতে নিয়েছেন সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। এর আগে তিন দফায় কখনো জেলা ফুটবল লিগ কমিটির দায়িত্ব নিজের কাছে নেননি সালাউদ্দিন, চতুর্থ মেয়াদে সভাপতি হয়ে এসে এবারই প্রথম দায়িত্বটা নিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
default-image

পেশাদার লিগ ও অর্থ কমিটি থাকছে যথারীতি জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদীর হাতে। জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে বহাল থাকছেন সহসভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ।

প্রথমবারের মতো সহ সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে আসা আতাউর রহমান ভূঁইয়া ও ইমরুল হাসানকে দেওয়া হয়েছে বড় দায়িত্ব। বসুন্ধরা কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসান পেয়েছেন মহানগরী লিগ কমিটির দায়িত্ব। আতাউর রহমান পেয়েছেন উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যানের পদ। গতবার শুরুতে যা ছিল রাদল রায়ের হাতে। পরে তাঁকে সরিয়ে নিজেই এই কমিটির দায়িত্ব নেন সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন।

আমি শক্তিশালী একটা কমিটি করব, এর চেয়ে শক্তিশালী কমিটি বাংলাদেশে হতে পারে না। জেলাগুলো হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নশিপ করতে হবে। শেখ কামাল, শেখ রাসেল টুর্নামেন্ট হবে জেলায়।
কাজী সালাউদ্দিন, বাফুফে সভাপতি

এবার সালাউদ্দিন নিজের হাতে রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ জেলা ফুটবল লিগ কমিটির প্রধানের পদ। গত কমিটির প্রথম দিকে এই কমিটির প্রধান ছিলেন তরফদার রুহুল আমিন।

কাজী সালাউদ্দিন জমানায় জেলাগুলোর ফুটবল হারিয়ে গেছে বলে অভিযোগ শোনা যায়। চতুর্থ মেয়াদে সভাপতি হয়ে এসে এবার নিজের হাতে এবার জেলা ফুটবল নেওয়ার কারণটা জানালেন সালাউদ্দিন, ‘আমি জেলার ফুটবল নিজের হাতে রাখলাম কারণ আমি শুনি, অনেকে বলে জেলার ফুটবল নাকি হয় না। এ জন্য এই কমিটি আমি আমার হাতে রাখলাম। যাতে গ্যাপটা পূরণ করতে কারও ওপর ভরসা করতে না হয়।’

বিজ্ঞাপন

এবার সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পরই সালাউদ্দিন জেলাগুলোকে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন, পরপর দুই বছর কোনো জেলা লিগ আয়োজনে ব্যর্থ হলে তাদের বাফুফের কাউন্সিলরশিপ বাতিল হবে।

আজ জেলা লিগ কমিটির দায়িত্ব নেওয়ার পরও বাফুফে সভাপতির কণ্ঠে একই হুঁশিয়ারি বার্তা, ‘প্রতিটি জেলায় লিগ হবে। আমি শক্তিশালী একটা কমিটি করব, এর চেয়ে শক্তিশালী কমিটি বাংলাদেশে হতে পারে না। জেলাগুলো হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নশিপ করতে হবে। শেখ কামাল, শেখ রাসেল টুর্নামেন্ট হবে জেলায়।’

জেলাগুলো লিগ করতে ব্যর্থ হলে বাফুফে নিজের উদ্যোগে লিগ আয়োজন করবে বলে জানিয়েছেন সালাউদ্দিন।

মন্তব্য পড়ুন 0