এই দুজনের সমন্বয়েই গোল পেল লিভারপুল। নেকো উইলিয়ামস (বাঁয়ে) ও কার্টিস জোন্স (ডানে)।
এই দুজনের সমন্বয়েই গোল পেল লিভারপুল। নেকো উইলিয়ামস (বাঁয়ে) ও কার্টিস জোন্স (ডানে)। ছবি: রয়টার্স

কুইভিন কেলেহার, নেকো উইলিয়ামস, কার্টিস জোন্স...এঁদের কেউই লিভারপুলের মূল একাদশে নিয়মিত নন। এই মৌসুমে যা একটু সুযোগ মিলছে। আলিসন বেকার, ভার্জিল ফন ডাইক, থিয়াগো আলকানতারা, ট্রেন্ট আলেক্সান্ডার-আরনল্ডের মতো তারকারা মূল একাদশে নেই দেখে সুযোগ পাচ্ছেন। করোনাভাইরাস আর চোটে বিপর্যস্ত ইয়ুর্গেন ক্লপের দল এখন এই তরুণদের ওপরেই আস্থা রাখছে।

আর কী অসাধারণভাবেই না কোচের আস্থার প্রতিদান দিচ্ছেন এই তরুণেরা! গত রাতে এই তিনজনের কৃতিত্বেই আয়াক্সকে ১-০ গোলে হারিয়েছে লিভারপুল। আর নিশ্চিত করেছে চ্যাম্পিয়নস লিগের পরের রাউন্ডে নিজেদের যাওয়া।

বিজ্ঞাপন

ম্যাচের আগে জানা যায়, হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে পড়ে মাঠের বাইরে চলে গেছেন লিভারপুলের মূল গোলরক্ষক আলিসন বেকার। তাঁর পরিবর্তে যাঁর নামার কথা, সেই আদ্রিয়ানের প্রতি ক্লপ আস্থা রাখেননি। উল্টো ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় অভিষিক্ত করেছেন তরুণ আইরিশ গোলরক্ষক কুইভিন কেলেহারকে।

default-image

গোটা ম্যাচে আলিসনের যোগ্য বিকল্প হিসেবেই খেলেছেন কেলেহার, সেভ করেছেন চার-পাঁচবার। এর মধ্যে ৮৭ মিনিটের সেভটা তো দুর্দান্ত। এসি মিলান, রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক অভিজ্ঞ ডাচ স্ট্রাইকার ক্লাস-ইয়ান হুন্টেলারের একটা হেড একেবারে ‘পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ’ থেকে সেভ করেছেন ২২ বছর বয়সী তরুণ। গোলটা হলে সমতায় চলে আসত আয়াক্স।

এর আগে ম্যাচের ৫৮ মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন তরুণ মিডফিল্ডার কার্টিস জোন্স। তাঁর গোলের সহায়তাটাও এসেছে আরেক তরুণের পা থেকে—নেকো উইলিয়ামস।

ট্রেন্ট আলেক্সান্ডার আরনল্ডের বদলে রাইটব্যাক হিসেবে খেলা উইলিয়ামস মাঠের ডান প্রান্ত থেকে দুর্দান্ত এক ক্রস দেন বক্সে থাকা জোন্সের দিকে। ক্রসটা দখলে আনতে গিয়ে পজিশনিংয়ে একটু গড়বড় করে ফেলেন আয়াক্সের গোলরক্ষক আন্দ্রে ওনানা। সেই সুবিধা কাজে লাগিয়ে পাকা স্ট্রাইকারের মতো বল জালে ঢুকিয়ে দেন জোন্স।

ক্লপের অধীনে এই নিয়ে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বের একেবারে শেষ ম্যাচের আগেই নকআউট পর্ব নিশ্চিত করল লিভারপুল (৫ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট)।

বিজ্ঞাপন

তবে ইংলিশ চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে পরের রাউন্ডে কে উঠবে, তা নিয়ে ২০১৮-১৯ মৌসুমে সেমিফাইনালিস্ট আয়াক্স ও ২০১৯-২০ মৌসুমের কোয়ার্টার ফাইনালিস্ট আতালান্তার মধ্যে চলছে তুমুল লড়াই। গত রাতে গ্রুপের আরেক ম্যাচে ড্যানিশ ক্লাব মিতিউলানের বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করেছে আতালান্তা, তাদের পয়েন্ট এখন ৮। আয়াক্সের পয়েন্ট ৭। শেষ রাউন্ডে এই দুই দলই মুখোমুখি হবে।

ওদিকে গ্রুপ ‘এ’–এর হাইভোল্টেজ ম্যাচে চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে আতলেতিকো মাদ্রিদ। পর্তুগিজ তারকা জোয়াও ফেলিক্সের গোলে এগিয়ে গেলেও সেটি ধরে রাখতে পারেনি আতলেতিকো। ৮৬ মিনিটে গোল করে বায়ার্নকে সমতায় ফিরিয়েছেন জার্মান মিডফিল্ডার টমাস মুলার। গ্রুপের আরেক ম্যাচে লোকোমোতিভ মস্কোকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে সালজবুর্গ। অন্য গ্রুপে পোর্তোর মাঠে গোলশূন্য ড্র করেছে ম্যানচেস্টার সিটি।

মন্তব্য করুন