বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বড় জয়ের কৃতিত্ব দিতেই হবে বাংলাদেশকে। কিন্তু প্রশ্নটি এসেই যায়, এমন দুর্বল দলের বিপক্ষে মুড়িমুড়কির মতো গোল করে জিতে বাংলাদেশের লাভ হচ্ছে কতটা? সমপর্যায়ের দলের বিপক্ষে খেলতে গিয়ে তো খেই হারিয়ে ফেলছে দল। জাতীয় দলের ১৫ খেলোয়াড় নিয়ে এই টুর্নামেন্ট খেলছে বাংলাদেশ। সমপর্যায়ের নেপালের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র ও ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ জিতেছে ১–০ গোলে। শ্রীলঙ্কাকে ১২ গোল দেওয়ার আগে বাংলাদেশ ভুটানকে হারিয়েছিল ৬–০ গোলে।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনেও উঠল এমন ম্যাচ খেলে বাংলাদেশের লাভ হচ্ছে কতটা? বাংলাদেশ কোচ গোলাম রব্বানী বলেন, ‘খেলার মধ্যে এটা থাকবেই। কিছু দল দুর্বল থাকবে, কিছু শক্তিশালী। এখানে ভারত ও নেপালের মতো শক্তিশালী দল আছে। তাদের সঙ্গে খেলে আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। এই ম্যাচে তার প্রতিফলন হয়েছে।’

default-image

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বড় জয়ের জন্য মেয়েদের কৃতিত্ব দিলেন গোলাম রব্বানী, ‘প্রথমে মেয়েদের ধন্যবাদ দিতে হবে। এই টুর্নামেন্টে আমাদের প্রত্যাশা ছিল দর্শকদের আনন্দ দেওয়া। আজ আমাদের জয় প্রয়োজন ছিল। অন্যান্য ম্যাচের তুলনায় আজ ফিনিশিংটা ভালো হয়েছে। এটা ভালো দিক।’ ২২ ডিসেম্বর ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। সে ম্যাচে ফিনিশিং আরও ভালো হতে হবে বলে জানালেন গোলাম রব্বানী।

টুর্নামেন্টে ৪ ম্যাচ খেলে মোট ২৮ গোল খেয়েছে শ্রীলঙ্কা। নিজের দল সম্পর্কে শ্রীলঙ্কার কোচ মানজুলা চামিন্দা বলেন, ‘বাংলাদেশের খেলোয়াড়েরা অনেক অভিজ্ঞ। দলে ভালো ভালো খেলোয়াড় আছে। আমার দলটা স্কুলের মেয়েদের নিয়ে গঠন করা হয়েছে। এই অঞ্চলে মেয়েদের বয়সভিত্তিক ফুটবলে বাংলাদেশ ও ভারত এগিয়ে আছে। সেটাই প্রমাণ হয়েছে।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন