হারের পর বিমর্ষ জার্মান ফরোয়ার্ড তিমো ভের্নার।
হারের পর বিমর্ষ জার্মান ফরোয়ার্ড তিমো ভের্নার।ছবি: এএফপি

ময়দানি লড়াইয়ে দুই দলের শক্তির পার্থক্য আকাশ-পাতাল। ঐতিহ্যে তো জার্মানির ধারেকাছেও নেই উত্তর মেসিডোনিয়া। জার্মানি চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন, ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ১৩তম। ওদিকে সাবেক যুগোস্লাভিয়ার কাছ থেকে স্বাধীনতাপ্রাপ্তির পর ফুটবল মাঠে মনে রাখার মতো কিছু সাফল্য রয়েছে উত্তর মেসিডোনিয়ার।

ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ৬৫তম দেশটির ইংল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস ও ইতালির বিপক্ষে ড্র করার স্মৃতি রয়েছে। তাই বলে জার্মানির ঘরে ঢুকে জয় ছিনিয়ে নেওয়া? যাহ্‌, সেটা আবার হয় নাকি!

শক্তিতে আকাশ-পাতাল পার্থক্য থাকার পরও ফুটবল কখনো কখনো দুই দলকে নামিয়ে আনে এক কাতারে। কিংবা অপেক্ষাকৃত ছোট দলের জয়ে মাটিতে নেমে আসে বড় দল। এমএসভি অ্যারেনায় কাল রাতে ২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ঠিক এমন নজিরই দেখা গেল। জার্মানিকে ২-১ গোলে হারিয়ে চমক দেখিয়েছে উত্তর মেসিডোনিয়া।

বিজ্ঞাপন

জেনোয়া ফরোয়ার্ড গোরান পানদেভ প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে গোল করে এগিয়ে দেন উত্তর মেসিডোনিয়াকে। ৬৩ মিনিটে পেনাল্টি থেকে জার্মানিকে সমতায় ফেরান ইকাই গুন্দোগান। নির্ধারিত সময়ের ৫ মিনিট আগে এলজিফ এলমাসের গোলে নিজেদের ফুটবল ইতিহাসে সেরা জয়টি তুলে নেয় উত্তর মেসিডোনিয়া।

বলকান অঞ্চলের দেশটি কখনো বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পায়নি। তবে এ বছর ইউরোয় প্রথমবারের মতো খেলবে তারা। এমন দলই কিনা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে প্রায় ভুলে যাওয়া স্বাদ উপহার দিল জার্মানিকে। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে জার্মানি কতটা অপ্রতিরোধ্য, পরিসংখ্যান তার সাক্ষী।

default-image

২০০১ সালে মিউনিখে ইংল্যান্ডের কাছে ৫-১ গোলে হেরেছিল জার্মানি। সেটি ছিল ২০০২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচ। এরপর বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে কালই প্রথম হারের মুখ দেখল জার্মানি। ২০ বছর পর বাছাইপর্বে জার্মানি এই হারের মুখ দেখার আগে জিতেছে টানা ১৮ ম্যাচ।

জার্মানির কোচ ইওয়াখিম লুভের জন্যও হারটি যন্ত্রণার। জুন-জুলাইয়ে ইউরোর পর জার্মানি জাতীয় দলের দায়িত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন লুভ। তার আগে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে এটাই ছিল জার্মানির শেষ ম্যাচ। অর্থাৎ জার্মানি জাতীয় দলের কোচ হিসেবে ১৫ বছরের রাজত্বে বাছাইপর্বে নিজের শেষ ম্যাচে হারের মুখ দেখলেন লুভ, ‘এটা খুব হতাশার। আমরা অনেক ভুল করেছি। দ্রুতলয়ে খেলার সময় আমরা বিপজ্জনক ছিলাম, কিন্তু সত্যিকার অর্থে দাপট দেখাতে পারিনি। সব মিলিয়ে ঘরের মাঠে হারটা ভীষণ হতাশার।’

ম্যাচটা কিন্তু নিয়ন্ত্রণ করেছে জার্মানিই। ম্যাচে ৭০ শতাংশ সময় বল দখলে রেখেছিল তারা। প্রথমার্ধে গোলের সুযোগ নষ্ট করেন লিও গোর্তেকা। তবে পেনাল্টিও হজম করতে পারত জার্মানি।

এমেরে কান ‘হ্যান্ডবল’ করলেও পেনাল্টি দেননি রেফারি। উত্তর মেসিডোনিয়া কোচ ইগর আনজেলোভস্কি ঐতিহাসিক জয়ের পর বলেন, ‘ছেলেরা চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে উত্তর মেসিডোনিয়াকে গর্বিত করেছে। এত শিরোপাজয়ী কোনো দলকে আমরা কখনো হারাতে পারিনি।’ এ জয়ে ‘জে’ গ্রুপে জার্মানিকে তিনে ঠেলে দুইয়ে উঠে এল উত্তর মেসিডোনিয়া। দুই দলের সমান ৬ পয়েন্ট হলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে আনজেলোভস্কির দল।

default-image

বাছাইপর্বে অন্য ম্যাচে কসোভোকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে স্পেন। প্রথমার্ধে ওলমো ও ফেরান তোরেসের গোলে এগিয়ে যায় ২০১০ বিশ্বকাপজয়ীরা। বিরতির পর ৭৫ মিনিটে স্পেনের হয়ে গোল করেন মোরেনো। ৭ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের শীর্ষে রয়েছে স্পেন। পোল্যান্ডকে ২-১ গোলে হারিয়েছে ইংল্যান্ড। ৮৫ মিনিটে হ্যারি ম্যাগুয়ারের গোলে জয় নিশ্চিত করে স্বাগতিকেরা। তিন ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে ‘আই’ গ্রুপের শীর্ষে ইংল্যান্ড।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন