বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এবার অনেকটা গার্দিওলার কথারই প্রতিধ্বনি শোনা গেল যেন লন্ডন থেকে। গার্দিওলাকে সমর্থন দেওয়ার জন্য এগিয়ে এসেছেন চেলসির কোচ টমাস টুখেল। টুখেলের কাছে মনে হয়েছে, শুধু লিভারপুলই নয়, ইয়ুর্গেন ক্লপ যখনই যে দলের কোচ ছিলেন, তখনই সে দল সবার সমর্থন পেয়েছে, ভালোবাসা পেয়েছে। কারণ, ক্লপ সবাইকে বিশ্বাস করাতে পারেন, তাঁর দলই ‘আন্ডারডগ।’

আজ ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে এফএ কাপের ফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে ক্লপের লিভারপুল ও টুখেলের চেলসি। বাংলাদেশ সময় রাত পৌনে ১০টায় শুরু হতে যাওয়া ম্যাচটির আগের সংবাদ সম্মেলনেই ক্লপ আর লিভারপুলকে নিয়ে এসব বলেছেন চেলসির জার্মান কোচ।

default-image

টুখেলের কাছে মনে হয়েছে, প্রতিপক্ষ দুর্বল হলেও নিজের দলকে ঠিকই ‘আন্ডারডগ’ হিসেবে দেখানোর দারুণ দক্ষতা আছে ক্লপের। চ্যাম্পিয়নস লিগে বেনফিকা আর ভিয়ারিয়ালের সঙ্গে লিভারপুলের ম্যাচের প্রসঙ্গ টেনে টুখেলের কথা, ‘আসলে কী, তা জানেন? ক্লপ নিজেদের আন্ডারডগ প্রমাণ করানোর মাস্টার। এমনকি ভিয়ারিয়াল আর বেনফিকার বিপক্ষে ম্যাচের আগেও নিজেদের আন্ডারডগ ভাবাতে বাধ্য করেছেন তিনি; যদিও এটা আশ্চর্যের বিষয় যে ড্রয়ে লিভারপুল কীভাবে ওদের পেয়ে গেল! আজীবন এমনটাই করে এসেছেন তিনি। ঠিক এ কারণেই মানুষের সহমর্মিতা পান।’

এত কিছু বলার পর টুখেল যদিও বলেছেন, হিংসা থেকে এসব বলছেন না তিনি, ‘এখানে আমার দিক থেকে হিংসার কিছু নেই। ক্লপ অসাধারণ একজন মানুষ, মজার মানুষ। বিশ্বের অন্যতম সেরা একজন কোচ, এটাই তাঁর কাজ।’

default-image

এরপরই আকারে-ইঙ্গিতে গার্দিওলাকে সমর্থন দিয়েছেন টুখেল, ‘তিনি (ক্লপ) যখন ডর্টমুন্ডের কোচ ছিলেন, পুরো দেশ ডর্টমুন্ডকে ভালোবাসত। এখন লিভারপুলের ক্ষেত্রেও সেটাই হচ্ছে। এখন আপনার কাছে এমনটা মনে হতে পারে যে পুরো দেশ লিভারপুলকে ভালোবাসে। তাঁকে (ক্লপ) কৃতিত্ব দিতেই হয় এই ব্যাপারে। যে কারণে আপনি যখনই তাঁর দলের বিপক্ষে খেলতে যাবেন, এমনটাই মনে হবে।’

গার্দিওলা কেন কথাটা বলছেন, সেটি ব্যাখ্যা করারও চেষ্টা থাকল চেলসি কোচের, ‘আমি লিভারপুলের ভক্ত নই। তবে আমি বুঝতে পারি গার্দিওলা কেন ওই কথা বলেছে। আমি বুঝতে পারি গার্দিওলা কোন ধরনের মনোভাব থেকে অমন কথা বলেছে। ওর কথার সঙ্গে দ্বিমত হওয়া যায় না আসলে। ব্যাপারটা চেলসিকে নিয়ে নয়। ম্যানসিটি আর লিভারপুলকে নিয়ে, তাই তো? আমি বলব না আমি গার্দিওলার সঙ্গে শতভাগ সম্মত, কিন্তু আমি লিভারপুলের প্রতি দেশের সহমর্মিতার ব্যাপারটা বুঝতে পারি।’

তা যেহেতু সবাই লিভারপুলকে ভালোবাসছে, তার মানে হিসাব অনুযায়ী কি আজ লিভারপুলের প্রতিপক্ষ চেলসি সবার চোখেই তাহলে খলনায়ক? টুখেল সেটাই মনে করছেন।

তাঁর দলকে আজ ‘ব্যাড গাই’ হিসেবে দেখানো হলে সেটি নিয়ে আপত্তিও নেই চেলসি কোচের, ‘ফাইনালে যদি আমাদের কেউ খলনায়ক ভাবে, কোনো সমস্যা নেই। গোটা দেশের সহমর্মিতা চাই না আমরা, আমরা শুধু ট্রফিটা চাই।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন